রাস্তার ধারে ড্রেনের মধ্যে থেকে উদ্ধার হল কয়েক বস্তা ভোটার কার্ড

রাস্তার ধারে ড্রেনের মধ্যে থেকে উদ্ধার হল কয়েক বস্তা ভোটার কার্ড

কেঁচো খুড়তে বেরল কেউটে! রাস্তার ধারে ড্রেনের মধ্যে থেকে উদ্ধার হল কয়েক বস্তা ভোটার কার্ড (voter Card) ও ফোটোকপি। শুধু তাই নয়, মিলেছে খাদ্যসাথীর কুুপন ও বিপুল পরিমাণ রেশন কার্ডও। স্থানীয় এক পুজো কমিটি ড্রেন পরিষ্কার করতে গিয়ে এই বস্তাগুলি খুঁজে পায়। ঘটনার তদন্তে নেমেছে পুলিশ। স্থানীয় এক পুজো কমিটির উদ্যোক্তার কথায়, “ড্রেন পরিষ্কার করতে গিয়ে এলাকার অনেকে শনিবার সকালে দেখতে পান ড্রেনের মধ্যেই কয়েকটা বস্তা পড়ে রয়েছে।

সেই বস্তাগুলি কোথা থেকে এসেছে তা কেউ জানে না। বস্তার মধ্যে একাধিক পরিমাণে আধার কার্ড, ভোটার কার্ড, রেশন কার্ড পাওয়া গিয়েছে। কে বা কারা এই কাজ করেছে জানা নেই। চাই দোষীরা ধরা পড়ুক।” স্থানীয় এক এলাকাবাসীর কথায়, “সকালে আমরা দেখতে পাই ড্রেন ওভারফ্লো করে পুরো জল থইথইও। স্ল্য়াব সরিয়ে দেখা যায় ড্রেনে জমে রয়েছে প্রচুর কাগজ।

পরে দেখা যায় ওগুলো সবই ভোটার কার্ড, রেশন কার্ড। শুনেছি আরও অনেক দরকারি কাগজ পাওয়া গিয়েছে। কে বা কারা এই কাগজ ফেলেছে জানা নেই। পুলিশকে খবর দেওয়া হয়েছে। পুলিশ এসে গোটা ঘটনা তদন্ত করে দেখছে।” অশোকনগর থানার পুলিশ জানিয়েছে, প্রায় চার-পাঁচটি বস্তা ভর্তি এই ভোটার কার্ড, রেশন কার্ড ও খাদ্য সুরক্ষার কুপনগুলি পাওয়া গিয়েছে।

অধিকাংশই বাগদা ও হেলেঞ্চা ব্লকের। কী করে এই কুপন বা কার্ডগুলি এল তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। কোথাও বিরাট জালচক্র কাজ করছে বলেই অনুমান পুলিশের। গোটা ঘটনার তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। তবে, এই প্রথম নয়, কিছুদিন আগেই অশোকনগরেই এক ভুয়ো আধার কার্ড তৈরির সংস্থার খোঁজ মিলেছিল। গ্রেফতার করা হয়েছিল সেই সংস্থার মালিক ও তাঁর দুই সহকর্মীকেও।

শুধু অশোকনগর নয়স, লক্ষ্যণীয়ভাবে দুয়ারে সরকার প্রকল্প চালু হওয়ার পরেই জায়গায় জায়গায় এমন জাল ভোটার ও আধার কার্ডের খোঁজ মিলেছে। অনেকক্ষেত্রেই দেখা গিয়েছে নর্দমা বা নদীর পারে ফেলে দেওয়া হয়েছে সেসব কার্ড। এই স্তূপীকৃত বিপুল পরিমাণ জাল নথি কীভাবে তৈরি হচ্ছে কীভাবেই তা পাচার হচ্ছে বা আদৌ কী করা হচ্ছে তা এখনও স্পষ্ট নয়। পুলিশ জানিয়েছে দুষ্কৃতীদের খোঁজ চলছে।