সীমান্তে যৌথ তল্লাশি ৩ ভারতীয় দালাল-সহ ১২ বাংলাদেশি গ্রেফতার

সীমান্তে যৌথ তল্লাশি ৩ ভারতীয় দালাল-সহ ১২ বাংলাদেশি গ্রেফতার

সীমান্তে পুলিশ ও বিএসএফের যৌথ তল্লাশি ৩ ভারতীয় দালাল-সহ ১২ বাংলাদেশি গ্রেফতার। বসিরহাটের ভারত-বাংলাদেশ ঘোজাডাঙ্গা সীমান্তে সীমান্তরক্ষী বাহিনী ও পুলিশের লাগাতার অভিযানে ৩ ভারতীয় দালাল, এক বাংলাদেশি মহিলা ও ১১ জন বাংলাদেশি পুরুষ-সহ মোট ১৫ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ঠিক এক সপ্তাহ আগে ৫মে হিঙ্গলগঞ্জে বিএসএফ আধিকারিকদের সঙ্গে বৈঠকে বাংলাদেশি অনুপ্রবেশ নিয়ে উষ্মা প্রকাশ করেছিলেন। তার এক সপ্তাহের মধ্যেই বসিরহাটের বিভিন্ন সীমান্ত থেকে একাধিক বাংলাদেশি গ্রেফতার হওয়ায় উদ্বেগ আরও বাড়ছে। ১৫৩ নম্বর ব্যাটেলিয়ানের সীমান্তরক্ষী বাহিনী ও বসিরহাট থানার পুলিশের যৌথ তল্লাশিতে এই সাফল্য এসেছে।

অন‍্যদিকে স্বরূপনগরের হাকিমপুর সীমান্ত থেকে ২ জন বাংলাদেশিকে গ্রেফতার করে বিএসএফ। ধৃতদের বসিরহাট মহকুমা আদালতে পেশ করা হবে। কিছুদিন আগেই জলসীমানা লঙ্ঘন করে বঙ্গোপসাগরে ঢুকে পড়া বাংলাদেশি দুটি ট্রলারকে আটক করল দক্ষিণ ২৪ পরগনার ফ্রেজারগঞ্জ উপকূল থানার পুলিশ। পাশাপাশি ট্রলার থেকে ১৫জন বাংলাদেশিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

ধৃতেরা প্রত্যেকেই বাংলাদেশের পটুয়াখালি জেলার বাসিন্দা বলে জানা গিয়েছে। বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরার সময় ঘন কুয়াশার কারণে সঠিক দিক নির্ণয় করতে না পেরে ভারতীয় জলসীমানা মধ্যে ঢুকে পড়ে বলে ধৃত মত্‍স্যজীবীরা পুলিশকে জানিয়েছে। পথভ্রষ্ট না অন্য কোনও উদ্দেশ্য রয়েছে, তা নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে সুন্দরবন জেলা পুলিশ ও উপকূল রক্ষী বাহিনী।

পুলিশ সূত্রের খবর, বঙ্গোপসাগরে টহলদারি দেওয়ার সময় উপকূল রক্ষী বাহিনীর নজরে আসে ট্রলার দুটি। বাংলাদেশের ট্রলার দুটিকে দেখে উপকূল রক্ষী বাহিনি সঙ্গে আটক করে। রাতেই ট্রলার দুটিকে নিয়ে আসা হয় ফ্রেজারগঞ্জ ঘাটে। এরপর উপকূল রক্ষী বাহিনীর পক্ষ থেকে বিষয়টি ফ্রেজারগঞ্জ উপকূল থানার নজরে আনা হয়। ধৃতদের বিরুদ্ধে বেআইনি অনুপ্রবেশ সহ একাধিক ধারায় মামলা রুজু করেছে পুলিশ।