অভিষেক ব্যানার্জির স্ত্রী রুজিরা ব্যানার্জর অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা যেত ৪ দেশে

অভিষেক ব্যানার্জির স্ত্রী রুজিরা ব্যানার্জর  অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা যেত ৪ দেশে

দুটি নয়। চার-চারটি অ্যাকাউন্ট! শুধু ইংল্যান্ড আর থাইল্যান্ড, এই দুটি দেশের অ্য়াকাউন্টেই যে টাকা যেন এমনটা নয়! অভিষেক ব্যানার্জির স্ত্রী রুজিরা ব্যানার্জি অ্যাকাউন্ট থেকে মোট ৪টি দেশে টাকা যেত। যার মধ্যে ব্যাঙ্কক, লন্ডন ছাড়াও রয়েছে আরও দুই দেশের অ্যাকাউন্ট। এই সবকটা অ্যাকাউন্ট-ই রুজিরা বন্দ্যোপাধ্য়ায়ের অ্যাকাউন্ট। সবকটি অ্যাকাউন্টের মাধ্যমেই বেআইনি লেনদেন হত।

এমনটাই দাবি করেছে সিবিআই। প্রসঙ্গত, কয়লাকাণ্ডে আজই অভিষেক বন্দ্যোপাধ্য়ায়ের বাড়িতে গিয়ে তাঁর স্ত্রী রুজিরা ব্যানার্জিকে (Rujira Banerjee) নোটিস ধরায় CBI। নোটিসে আজই হাজিরার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। বিকেল ৩টে পর্যন্ত তাঁকে হাজিরার জন্য সময়সীমা দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু এখনও পর্যন্ত কেউ-ই নোটিসের পরিপ্রেক্ষিতে সিবিআই-এর যোগাযোগ করেনি। সিবিআই সূত্রে জানা গিয়েছে, রুজিরা ব্যানার্জি একজন মহিলা হওয়ায়, আজ আর 'শান্তিনিকেতনে' যাবেন না আধিকারিকরা।

বদলে আগামিকাল দ্বিতীয়বার নোটিস দেবে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা। উল্লেখ্য, শনিবার রুজিরার সঙ্গে CBI-এর কথা হয়। আজ নোটিস দিতে যাওয়ার ব্যাপারে কালই রুজিরাকে জানিয়েছিল CBI। এরপর আজ বাড়িতে নোটিস দিতে গেলে রুজিরার বোন তা গ্রহণ করে। সিবিআই সূত্রে আরও জানা গিয়েছে, অভিষেকের স্ত্রীয়ের পাশাপাশি তাঁর (রুজিরার) বোনও কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার নজরে রয়েছে।

অভিষেকের শ্যালিকা মনিকা গম্ভীরকেও জিজ্ঞাসাবাদ করতে চান তদন্তকারীরা। তাঁকেও নোটিস দিয়েছে সিবিআই। মেইল-এ নোটিস পাঠানো হয়েছে। উপহার লাক্সারি কমপ্লেক্সের টাওয়ার থ্রি-তে ১৮০৩ নম্বর ফ্ল্যাটে থাকেন মনিকা গম্ভীর। কয়লাকাণ্ডে আগামিকাল সকাল ১১টায় বাড়িতে গিয়েই তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে চান সিবিআই আধিকারিকরা। তাঁকে তাই বাড়িতে থাকতে বলা হয়েছে।

প্রতি মাসে রুজিরার অ্যাকাউন্ট থেকে মনিকার অ্যাকাউন্টে টাকা যেত বলে সিবিআই সূত্রে খবর। প্রসঙ্গত, কয়লাকাণ্ডের অন্যতন কিংপিন বিনয় মিশ্রের (Binoy Mishra) সঙ্গে রুজিরা ব্যানার্জির (Rujira Banerjee) যোগ থাকার তথ্য উঠে এসেছে তদন্তকারীদের হাতে। নীরজ সিং নামে একজন মধ্যস্থতাকারীর হদিস পেয়েছে সিবিআই।

তিনি শ্রীরামপুরের একজন চ্যাটার্ড অ্যাকাউন্ট। বিনয় ঘনিষ্ঠ এই নীরজ সিং অ্যাকাউন্টে টাকা ফেলতেন বলে সিবিআই সূত্রে খবর। কয়লা পাচারের মূলচক্রী অনুপ মাঝি ওরফে লালার (Lala) টাকা কলকাতায় পৌঁছত বিনয় মিশ্রের কাছে। সেই টাকাই ঘুরপথে কলকাতার বিভিন্ন প্রভাবশালীদের কাছে পৌঁছে দিতেন মধ্যস্থতাকারী। এখন সিবিআই বাড়ি গিয়ে নোটিস ধরাতেই কড়া ভাষায় টুইটারে তোপ দাগেন অভিষেক। অভিষেক লেখেন, "আজ দুপুর ২টোয় আমার স্ত্রীর নামে একটি নোটিস দিয়েছে CBI।

তবে আইনের ওপর আমাদের পূর্ণ বিশ্বাস রয়েছে। যদি কেউ মনে করে থাকেন এগুলো দিয়ে আমাদের ভয় দেখানো যাবে, তাঁরা ভুল করছেন। আমরা কেউ কাপুরুষ নেই।" অন্যদিকে, কয়লাকাণ্ডে অভিষেকের (Abhishek Banerjee) স্ত্রী রুজিরাকে নোটিস প্রসঙ্গে বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারী বলেন, "টাকা বিদেশে গিয়েছে। শুধু থাইল্যান্ড না, আরও নানা জায়গায় গিয়েছে।" বাবুল সুপ্রিয় বলেন, "আমি ৩ বছর আগেই বলেছি, বিনয় মিশ্রের মাধ্যমে টাকা পাচার হয়ে গিয়েছে। আর উনি তো ব্যাঙ্ক স্টেটমেন্টও দেখিয়ে দিয়েছেন। এখন সিবিআই তার কাজ করুক। কান টানলে মাথা আসবে। আর মাথা কোথায় গিয়ে মিলবে....!" বাবুলের কথার সূত্র ধরেই শুভেন্দু আরও টিপ্পনী কাটেন, "তোলাবাজ ভাইপো এখনই যেন ফাঁসির মঞ্চে না যান! আমি অনুরোধ করব। এখনও অনেককিছু দেখা বাকি আছে।"