Chanakya Niti| চাণক্য নীতি অনুসারে মূর্খ বলা হয় এই ব্যক্তিদের

Chanakya Niti| চাণক্য নীতি অনুসারে মূর্খ বলা হয় এই ব্যক্তিদের

 প্রাচীন তক্ষশীলা বিশ্ববিদ্যালয়ে অর্থনীতি ও রাষ্ট্রনীতির অধ্যাপক চাণক্য পরবর্তীকালে মৌর্য্য সম্রাট চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য্যের উত্থানে প্রধান ভূমিকা গ্রহণ করেন। চাণক্য চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য্য ও তার পুত্র বিন্দুসারের রাজ-উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। আচার্য চাণক্যকে ভারতীয় শাস্ত্রের সেরা পণ্ডিতদের মধ্যে অন্যতম হিসাবে গন্য করা হয়। আচার্য চাণক্য মানব জীবনকে প্রভাবিত করার প্রতিটি বিষয় খুব গভীরভাবে অধ্যয়ন করেছিলেন।

এই কারণেই চানক্যের নীতি আজও প্রাসঙ্গিক। শাস্ত্রজ্ঞ পণ্ডিতরা এ কথা বিশ্বাস করেন যে, যিনি আচার্য চাণক্যের নীতি নিয়মিত অধ্যয়ন করেন, তাঁর জীবন থেকে দুঃখ ও দুর্দশা সহজেই দূর হয়। শুধু তাই নয়, যে কোনও বিপর্যয়েও অবিচল থাকার শিক্ষা ও শক্তি মেলে এই দর্শন থেকে।  চাণক্য সুপণ্ডিত, প্রকৃত শিক্ষক ছিলেন। আচার্য চাণক্যের বলে যাওয়া কথা যে আজও কতটা গুরুত্বপূর্ণ ও প্রাসঙ্গিক তা চাণক্য নীতির দিকে চোখ রাখলেই বোঝা যায়। জীবনে চলার পথে এই উপদেশগুলি মেনে চললে উপকার পাবেন। আসুন জেনে নিই….

কাজই পূজা

চাণক্য বলেছেন, কাজ থেকেই মানুষ সম্মান অর্জন করে। যদি সবার মধ্যে নিজেকে আলাদা করতে চান, তাহলে কতকগুলি বিষয় মাথায় রাখতে হবে। চাণক্যের নীতি অনুসারে যে কোনও মানুষ তাঁর কাজের মাধ্যমে মানুষের শ্রদ্ধা, সম্মান, ভালোবাসা পেয়ে থাকেন। ফলে যে ব্যক্তি নিজের মধ্যে ভালো গুণাবলী জাগ্রত করেন, তাকে সফল ব্যক্তি বলা হয়। যে ব্যক্তি সেদিকে মন দেয় না তাকে শুধু বোকা নয়, মূর্খ বলা হয়। চাণক্য কতটা মহান শিক্ষক ছিলেন তা প্রায় সকলেই জানেন। আচার্য চাণক্য দক্ষ শিক্ষকের পাশাপাশি দক্ষ অর্থনীতিবিদ ও কূটনীতিকও ছিলেন। চাণক্য জীবনে কখনও হাল ছেড়ে দেননি বা সম্পদের অভাবের জন্য আফশোষ করেননি। চাণক্য কখনও তাঁর আত্মবিশ্বাসকে দুর্বল হতে দেননি। লক্ষ্য অর্জনের জন্য লড়াই চালিয়ে যান। তাঁর আচরণ ও দক্ষতার জন্য সেরা পণ্ডিতদের মধ্যে চাণক্যকে ধরা হয়। চাণক্যের নীতি অনুসারে কোনও ব্যক্তি যদি নতুন কিছু শেখা বা বোঝার জন্য প্রস্তুত না থাকেন তাহলে তাকে মূর্খ বলা হয়। চাণক্যের মতে, কোনও ব্যক্তি যদি জীবনে সফল হতে চান, তবে তাঁকে নতুন কিছু শিখতে প্রস্তুত থাকতে হবে।

নিজের প্রশংসা শোনার অভ্যাস ত্যাগ করুন

চাণক্যের মতে,  যে ব্যক্তি সর্বদা প্রশংসা শোনার জন্য কাজ করেন, তিনি নিজেকে নিয়ে ব্যস্ত থাকেন। কোনও ব্যক্তিকে তাঁর দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করার চেষ্টা করতে হবে। কিন্তু যে মানুষ সকলের ভালোর জন্য বা মানব কল্যাণের কথা ভেবে কাজ করেন, সেই সব ব্যক্তিরা আসলে সম্মান পান।

অন্যকে কম শক্তিশালী ভাববেন না

চাণক্যের নীতি অনুযায়ী যেসব ব্যক্তি অন্যকে দুর্বল বা অজ্ঞ মনে করেন তারা লোকের কাছে হাসির পাত্র হয়ে ওঠেন। প্রত্যেক ব্যক্তির কিছু না কিছু গুণ রয়েছে। ফলে অন্যকে যথাযোগ্য সম্মান দেওয়া উচিত। কিন্তু যে ব্যক্তি সবসময় নিজেকে মেধাবী, প্রতিভাবান মনে করেন তারা প্রকৃত সম্মান থেকে বঞ্চিত হন।