চাণক্য নীতি অনুসারে সময় খারাপ চললে মাথায় রাখুন ৮ উপদেশ

চাণক্য নীতি অনুসারে সময় খারাপ চললে  মাথায় রাখুন ৮ উপদেশ

ভারতের মাটিতে যে সব মহান ব্যক্তি জন্ম নিয়েছেন তাদের মধ্যে চন্দ্রগুপ্ত বিক্রমাদিত্যের প্রধানমন্ত্রী চাণক্য (chanakya) প্রাতঃস্মরণীয়। এখনো পর্যন্ত তার মত একাধারে রাজনীতি, কূটনীতি, যুদ্ধ বিশারদ ও অর্থনীতিবিদ মানুষ ভারতের মাটিতে জন্ম নেয় নি। চন্দ্রগুপ্তের মহামন্ত্রী হলেও তিনিই ছিলেন সাম্রাজ্যের আসল চালিকাশক্তি। চন্দ্রগুপ্তের সিংহাসন আরোহন থেকে শুরু করে নির্বিঘ্নে রাজ্য শাসন সমস্তই তারই উর্বর মস্তিষ্কের ফসল।

চাণক্য নীতি: শুধু শ্রেষ্ঠ শিক্ষক নন, আচার্য চাণক্য শ্রেষ্ঠ বিদ্বানও ছিলেন। অর্থশাস্ত্র ছাড়া আরও নানা বিষয়ে তাঁর বিপুল জ্ঞান ছিল। মানুষের ওপর প্রভাব ফেলে এমন সমস্ত বিষয় গভীরভাবে অধ্যয়ন করেন তিনি। তিনি বলেছেন, প্রত্যেকের জীবনে খারাপ সময় আসে। সে সময়ই তাঁকে প্রকৃতভাবে চেনা যায়। তাঁর কথায়, রাতের শেষে যেমন দিন আসে, তেমনই জীবনে দুঃখের শেষে আসে সুখ।

সুখ দুঃখের এই চক্র মানবজীবনে চলতেই থাকে। তাঁর কথায়, খারাপ সময় মানুষকে ভেতর থেকে মজবুত তৈরি করে, যেমন আগুনের তাপে পোড়ানো হয় সোনা। মানুষকে তা বহু কিছু শেখায়, তাই সময় খারাপ হলে কখনও ঘাবড়ে যেতে নেই, এ জন্য সর্বদা তৈরি থাকা উচিত। তিনি বলেছেন, 

আত্মবিশ্বাস কখনও হারাবেন  না সময় খারাপ হলেও আত্মবিশ্বাস যেন কখনও দুর্বল না হয়। আত্মবিশ্বাসই এই সময় সব থেকে বেশি সাহায্য করে।

সম্পর্ক বুঝতে সাহায্য করে   চাণক্য বলেছেন, মানুষ তার আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধব সম্পর্কে সব থেকে ভাল বুঝতে পারে নিজের খারাপ সময়ে। আপনার যদি খারাপ সময় চলে, তবে সুযোগসন্ধানীরা সবার আগে পাশ থেকে সরে যাবে। যাঁরা প্রকৃতই আপনাকে ভালবাসেন, তাঁরাই শুধু পাশে থাকবেন। তাই খারাপ সময়ে যাঁরা পাশে থাকেন, তাঁদের হাত কখনও ছাড়বেন না।

ধৈর্য রাখুন   আচার্য চাণক্য বলেছেন, যতই সময় খারাপ পড়ুক, কখনও ধৈর্য হারাবেন না। মনে আশা ও বিশ্বাস রাখুন। দুঃখ জীবনে কখনও স্থায়ী হয় না, একটা না একটা সময় মেঘ সরে যাবেই। কিন্তু এই সময়টা জোরের সঙ্গে মোকাবিলা করুন। মন থেকে বার করে দিন নেতিবাচক চিন্তাভাবনা।

দাঁত পরিষ্কার রাখুন  ধনী হওয়ার ইচ্ছে থাকলে শরীরের যাবতীয় অংশ পরিষ্কার রাখা জরুরি। বিশেষ করে জোর দিন দাঁতের পরিচ্ছন্নতায়। বলা হয়, যে নিজের দাঁত পরিষ্কার রাখে, লক্ষ্মী তাকে কৃপা করেন।

প্রয়োজনের বেশি খাবেন না  প্রয়োজনের বেশি যে খায়, সে কখনও ধনী হতে পারে না, বলছে চাণক্য নীতি। সাধারণভাবে দরকারের থেকে একটু কম খান, তাতে দারিদ্র থেকে মুক্তি মিলবে।

মিষ্টি কথা বলুন  সব সময় মিষ্টি কথা বলা উচিত। কারও সঙ্গে কখনও দুর্ব্যবহার করবেন না। অন্যের অনুভূতির কথা মাথায় রাখুন। এতে দেবী লক্ষ্মী প্রসন্ন হন, তাঁর কৃপা বর্ষিত হয়।

বেশি ঘুমোবেন না  কিছু লোক যে কোনও সময় ঘুমোতে পারে। ঘুম না এলেও বিছানা আঁকড়ে থাকে। এদের ওপর লক্ষ্মী অপ্রসন্ন হন, ফলে এদের ধনবান হওয়ার সম্ভাবনা অত্যন্ত কম। তাই ঠিক সময়ে ঘুমোন। কারণ ছাড়া ঘুমোবেন না, বিশেষ করে সন্ধের সময়।

বিশ্বাসঘাতকতা করবেন না ধোঁকা আর বিশ্বাসঘাতকতা এমন জিনিস, যা মানুষের পতনের কারণ হয়। ফলে লোভে পড়ে ধোঁকা দেওয়া বা বেইমানি করা থেকে বিরত থাকুন। এতে আপনার যাবতীয় কাজ সম্পূর্ণ হবে, ন্যায়ের পথে থাকলে আপনার ধনী হওয়া কেউ রুখতে পারবে না।