অভিনেত্রী স্বরা ভাস্করের বিরুদ্ধেও উঠল 'ঘৃণা ছড়ানো'র অভিযোগ

অভিনেত্রী স্বরা ভাস্করের বিরুদ্ধেও উঠল 'ঘৃণা ছড়ানো'র অভিযোগ

গাজিয়াবাদের ঘটনায় এ বার বলিউড অভিনেত্রী স্বরা ভাস্কর (Swara Bhaskar)-র বিরুদ্ধেও অভিযোগ দায়ের হল। বৃহস্পতিবার দিল্লি পুলিশের কাছে অভিনেত্রী স্বরা ভাস্কর, টুইটারের ভারতের ম্যানেজিং ডিরেক্টর সহ আরও দুইজনের নামে অভিযোগ দায়ের করেন এক আইনজীবী। চলতি মাসেই উত্তর প্রদেশের গাজিয়াবাদে এক মুসলিম বৃদ্ধকে মারধর ও জোর করে দাড়ি কেটে নেওয়ার অভিযোগ ওঠে ছয় ব্যক্তির বিরুদ্ধে।

ওই বৃদ্ধ দাবি করেন, তাঁকে জোর করে “জয় শ্রী রাম” ও “বন্দেমাতরম” বলতেও বাধ্য করা হয়েছিল। সুফি আব্দুল সামাদ নামক ওই বৃদ্ধের কাকুতি-মিনতি করার ভিডিয়ো ভাইরাল হতেই সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে তোলপাড় শুরু হয়ে যায়। যদিও তদন্তে নেমে উত্তর প্রদেশ পুলিশ জানায়, ওই বৃদ্ধ নকল তাবিজ বিক্রি করায় তাঁকে মারধর করে অভিযুক্ত ৬ জন। তাঁদের সবাইকেই আটক করা হয়েছে।

তবে এই ঘটনার সঙ্গে সাম্প্রদায়িক কোনও যোগ নেই। উত্তর প্রদেশ পুলিশের অভিযোগের ভিত্তিতে এবং কেন্দ্রের নয়া ডিজিটাল নীতি অনুসরণ না করায় টুইটারের আইনি সুরক্ষা তুলে নেওয়া হয়। পরে দিল্লি পুলিশের কাছেও টুইটের মাধ্যমে বিদ্বেষ ছড়ানোর অভিযোগ জানান এক আইনজীবী। তিনি অভিনেত্রী স্বরা ভাস্কর, সাংবাদিক আরফা খানুম, আসিফ খান ও টুইটার অধিকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন।

তাঁর অভিযোগ, গোটা ঘটনার সত্যতা যাচাই না করেই এনারা নিজেদের টুইটার অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের মধ্যে হিংসা ছড়ানোর চেষ্টা করছিলেন। যদিও এর প্রেক্ষিতে এখনও কোনও এফআইআর দায়ের করা হয়নি বলেই জানিয়েছে দিল্লি পুলিশ। অন্যদিকে, ভারতে টুইটার অধিকর্তা হিসাবে মনীশ মাহেশ্বরীও গোটা বিষয়টি সম্পর্কে কোনও পদক্ষেপ করেননি এবং ভুয়ো টুইটগুলিও সরিয়ে ফেলেননি। এর আগে উত্তর প্রদেশ পুলিশের তরফেও একই অভিযোগ আনা হয় টুইটারের বিরুদ্ধে।