বর্ধমান শহরের প্রাণকেন্দ্রে দুঃসাহসিক ব্যাঙ্ক ডাকাতি

বর্ধমান শহরের প্রাণকেন্দ্রে দুঃসাহসিক ব্যাঙ্ক ডাকাতি

 বর্ধমানে দুঃসাহসিক ব্যাঙ্ক ডাকাতি। শহরের প্রাণকেন্দ্র কার্জনগেট লাগোয়া পঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাঙ্কের শাখায় ডাকাতি।  ৬-৭ জন দুষ্কৃতী হুড়মুড়িয়ে ব্যাঙ্কে ঢুকে পড়ে। হাতে থাকা আগ্নেয়াস্ত্র উঁচিয়ে কর্মীদের খুন করার ভয় দেখানো শুরু হয়। এরপর সঙ্গে থাকা ব্যাগে টাকা ভরে চম্পট দেয়। তবে কীভাবে নিরাপত্তারক্ষীদের নজর এড়িয়ে ভিতরে ঢুকল ডাকাত দল, তা ভেবেই আতঙ্কে কাঁটা হয়ে রয়েছেন উপস্থিত গ্রাহকরা।

ইতিমধ্যেই ঘটনাস্থলে পৌঁছে গিয়েছেন জেলা পুলিশের পদস্থকর্তারা। সেখানে উপস্থিত সকলের সঙ্গে কথা বলছেন। নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা সকলের সঙ্গেও কথা বলবেন তারা। দিনে-দুপুরে এমন ঘটনায় আতঙ্কিত সকলেই। ঘটনাস্থলে এসে উপস্থিত হয় বর্ধমান থানার পুলিশ। জানা যায়, এদিন সকাল ১০:১৫ নাগাদ ঘটনাটি ঘটে। ৬-৭ জন হিন্দিভাষী যুবকের একদল এসে হানা দেয় ব্যাঙ্কে।

তাদের সকলের কাছেই ছিল আগ্নেয়াস্ত্র।শুক্রবার সকালে কার্জন গেট সংলগ্ন পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাঙ্কের শাখায় এসে পৌঁছান এক গ্রাহক। তিনি জানান, ব্যাঙ্কে তিনি টাকা তোলার উদ্দেশ্যে এসেছিলেন। তাঁর মেয়ে অসুস্থ এবং ভর্তি রয়েছে নার্সিংহোমে। তাই তিনি টাকা তুলতে যান কার্জন গেট সংলগ্ন ওই ব্যাঙ্কটিতে। তবে ব্যাঙ্কে ঢুকে তিনি দেখেন একদল দুষ্কৃতী হাতে বন্দুক নিয়ে রীতিমতো দাপিয়ে বেড়াচ্ছে ব্যাঙ্কময়।

তাকেও দুষ্কৃতীরা বসতে বলে। সাথে সাথেই তাঁর ফোন কেড়ে নেওয়া হয়। বারবার ফোন দেওয়ার জন্য অনুরোধ করলেও তাঁরা কথা শোনেনি। তাকে আটকে রাখা হয় ব্যাঙ্কের মধ্যেই। বর্ধমান শহরের প্রাণকেন্দ্র কার্জন গেটের মতো এমন একটি জমজমাট পূর্ণ এলাকায় এইরকম দুঃসাহসিক ডাকাতির ঘটনায় রীতিমতো আতঙ্কিত এলাকাবাসী।