লালা,এনামুল,বিনয় মিশ্রের পর সিবিআই জালে তোলাবাজ ভাইপো - শুভেন্দু অধিকারী

লালা,এনামুল,বিনয় মিশ্রের পর সিবিআই জালে তোলাবাজ ভাইপো  - শুভেন্দু অধিকারী

সকালে নন্দীগ্রামের সভা থেকেই ঘোষণা করেছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। সেই মতো শুভেন্দুর কাঁথির সভামঞ্চে বিজেপিতে যোগ দিলেন সৌম্যেন্দু অধিকারী। তাঁর সঙ্গেই বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন কাঁথি পুরসভার আর ১৪ জন প্রাক্তন কাউন্সিলর সহ নেতা-কর্মীরা।

অন্য দিকে এই সভা থেকেই তৃণমূলকে একের পর এক ইস্যুতে তোপ দাগেন শুভেন্দু। গত ২৩ ডিসেম্বর কাঁথিতে তৃণমূলের সভা থেকে শুভেন্দুকে আক্রমণ করেছিলেন পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম এবং দলের সাংসদ সৌগত রায়। দু’জনই শুভেন্দুকে বিশ্বাসঘাতক বলেছিলেন।

তার জবাবে শুভেন্দু বলেন, ‘‘মেদিনীপুরের মানুষকে বিশ্বাসঘাতক বলছেন? এটা মেদিনীপুরের মানুষ মেনে নেবেন না। এখানে বিশ্বাসঘাতক জন্মায় না। বিদ্যাসাগররা জন্মান।’’ শাসক দলের পাশাপাশি 'তোলাবাজ ভাইপো'-কেও আক্রমণ অব্যাহত রেখেছেন শুভেন্দু।

শুক্রবার নন্দীগ্রামের সোনাচুঁড়ার সভা থেকে নাম না করে ফের অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে তোপ দাগেন শুভেন্দু অধিকারী। মুখ খোলেন রাজ্য জুড়ে চলা কয়লা ও গরু পাচার চক্রের তদন্তে নামা সিবিআইয়ের অভিযান নিয়েও।

রাজ্য জুড়ে কয়লা পাচার ও গরু পাচার কাণ্ডের তদন্তে নেমে তল্লাশি অভিযান চালাচ্ছে সিবিআই। লালা, এনামুলের পর ইতিমধ্যেই ঘটনায় নাম উঠে এসেছে যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক ব্যবসায়ী বিনয় মিশ্রের নাম। ইতিমধ্যেই বিনয় মিশ্রের কলকাতার দুটি বাড়ি ও কৈখালির বাড়িতে তল্লাশি চালিয়েছে সিবিআই।

কৈখালির ফ্ল্যাট সিলও করে দিয়েছে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা। পাশাপাশি নিরুদ্দেশ বিনয় মিশ্রের বিরুদ্ধে জারি হয়েছে লুক আউট নোটিস। সোনাচুঁড়ার সভা থেকে শুভেন্দু অধিকারী বলেন, লালা, এনামুল, বিনয় মিশ্রের পর আর একটা চৌকাঠ। তারপরই পালা তোলাবাজ ভাইপোর।

অর্থাত্‍ নাম না করে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্য়ায়কে হুঁশিয়ারী দিয়ে রাখলেন শুভেন্দু অধিকারী। পাল্টা দিয়েছেন, তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায়ও। শুভেন্দু সিবিআইয়ের মুখপাত্র কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন ছুঁড়ে দিয়েছেন প্রবীণ তৃণমূল নেতা। একইসঙ্গে তিনি বলেছেন,'সিবিআইয়ের কাছে কোনও প্রমাণ থাকলে সামনে আনুক। সিবিআই কেন্দ্রের নির্দেশে প্রতিশোধমূলক কাজ করছে।'