নবম শ্রেণির ছাত্রীকে লাগাতার ধর্ষণে অভিযোগ গৃহশিক্ষকের বিরুদ্ধে

নবম শ্রেণির ছাত্রীকে লাগাতার ধর্ষণে অভিযোগ গৃহশিক্ষকের বিরুদ্ধে

ভগবানগোলা   নবম শ্রেণির ছাত্রীকে লাগাতার ধর্ষণের অভিযোগে উত্তপ্ত হল মুর্শিদাবাদের ভগবানগোলা ১ নম্বর ব্লকের সুন্দরপুর গ্রাম। অভিযোগ, আব্দুর রহিম ওরফে বিট্টু ওই ছাত্রীকে লাগাতার ধর্ষণ করেছে। সোমবারই এনিয়ে উত্তপ্ত হয়েছিল এলাকা। মঙ্গলবার তাতে রাজনৈতিক রঙ লেগে যায়।জানা গিয়েছে রহিমের মামী আঞ্জুরা বিবি স্থানীয় পঞ্চায়েতের তৃণমূল সদস্য।

তিনি প্রশাসনের উপর প্রভাব খাটিয়ে ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছেন। ওই ছাত্রীর বাবা পরিযায়ী শ্রমিক।আপাতত তিনি ভিন রাজ্যে কাজে রয়েছেন। মেয়েকে অনেক কষ্ট করেই পড়াশোনা শেখাচ্ছেন মা। জানা গিয়েছে, ওই গৃহশিক্ষকের কাছে বিজ্ঞান বিভাগের বিষয়গুলি পড়তে যেত ওই কিশোরী। 

অভিযোগ, পড়ানো শেষ হয়ে গেলে বাকি ছাত্রছাত্রীদের ছুটি দিয়ে দিলেও আটকে রাখা হত ওই ছাত্রীকে।তারপর চলত যৌন নির্যাতন। সম্প্রতি মেয়ের কিছু আচরণে সন্দেহ হয় মায়ের। কিন্তু প্রথমে কিছু বলেনি সে। তার মা জানিয়েছেন, পড়তে যাওয়ার কথা বলতেই ভয়ে কুঁকড়ে যেত মেয়ে। কিছুতেই ওই মাস্টারমশাইয়ের কাছে পড়তে যেতে চাইত না।

এরপর অনেক জিজ্ঞাসা করার পর মায়ের কাছে সব খুলে বলে ওই ছাত্রী। স্বামী দূরে থাকেন।তাই প্রতিবেশীদের কাছে গোটা ঘটনা জানান। এরপরই উত্তপ্ত হয়ে ওঠে এলাকা। মঙ্গলবার, অভিযুক্তের মামী তথা তৃণমূলের পঞ্চায়েত সদস্য বলেন, সিপিএম আর কংগ্রেস মিলে এই ষড়যন্ত্র করেছে। রাজনৈতিক রঙ লাগানোর বিরুদ্ধে ক্ষোভে ফেটে পড়েন গ্রামবাসীরা।

তাঁদের বক্তব্য, এখানে সিপিএম কংগ্রেসের কোনও ব্যাপারই নেই। অপরাধীকে আড়াল করতেই এই ধরনের কথা বলা হচ্ছে। ধর্ষণের ঘটনা চাউর হতেই, এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে অভিযুক্ত গৃহশিক্ষক। গোটা ঘটনার তদন্তে নেমেছে পুলিশ। পুলিশ সূত্রের খবর, ওই ছাত্রী তদন্তকারীদের বলেছে, গৃহশিক্ষক হুমকি দিয়েছিল, মুখ খুললে প্রাণে মেরে দেওয়া হবে। অভিযুক্তকে ধরতে তল্লাশি শুরু করেছে পুলিশ।