বুলেট প্রুফ আবরণ সরিয়ে কাশ্মীরবাসীর মন জয় অমিত শাহের

বুলেট প্রুফ আবরণ সরিয়ে কাশ্মীরবাসীর মন জয় অমিত শাহের

কাশ্মীরের মানুষের মন জয়ে মরিয়া অমিত শাহ। তিন দিনের সফরে ইতিমধ্যেই জঙ্গিদের গুলিতে নিহত পুলিশ অফিসারের বাড়িতে গিয়ে দেখা করেছেন। জম্মু কাশ্মীরকে রাজ্যের তকমা ফিরিয়ে দেওয়ার বার্তাও দিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী (Amit Shah)। সোমবার শ্রীনগরে একটি অনুষ্ঠানে কাশ্মীরবাসীর আস্থা অর্জনে নিজের নিরাপত্তাতেও আপোস করলেন অমিত শাহ (Amit Shah in Kashmir)। এ দিন শ্রীনগরে একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছিলেন অমিত শাহ (Amit Shah removes bullet proof security in Kashmir)।

সেখানেই কাশ্মীরবাসীর সঙ্গে খোলাখুলি কথা বলার জন্য মঞ্চেতার জন্য রাখা কাচের বুলেটপ্রুফ আবরণ সরিয়ে ফেলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। এ দিন শের-ই-কাশ্মীর কনভেনশন সেন্টারের ওই অনুষ্ঠানে উপস্থিত হন অমিত শাহ। তার সঙ্গে ছিলেন জম্মু কাশ্মীরের উপ রাজ্যপাল মনোজ সিনহা। মঞ্চে উঠেই নিরাপত্তাকর্মীদের কাচের আবরণ সরিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দেন শাহ।  পরে বক্তব্য রাখতে গিয়ে অমিত শাহ বলেন, 'অনেকেই আমার নিন্দা করেছেন, আমার উপর ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। আজ আমি আপনাদের সঙ্গে খোলাখুলি কথা বলতে চাই।

সেই কারণেই এখানে কোনও বুলেটপ্রুফ আবরণ নেই, নিরাপত্তাও নেই। আমি আপনাদের সামনে এ ভাবেই উপস্থিত হয়েছি।' ন্যাশনাল কনফারেন্স নেতা ফারুক আবদুল্লার কথা উল্লেখ করে শাহ আরও বলেন, 'ফারুখ আবদুল্লাহ আমাকে পাকিস্তানের সঙ্গে কথা বলার পরামর্শ দিয়েছিলেন। কিন্তু আমি ফারুখ সাহেব এবং আপনাদের কাছে স্পষ্ট বলতে চাই- পাকিস্তান নয়, আমি উপত্যকার যুব সম্প্রদায় এবং সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথা বলতে চাই।' বক্তব্যের শেষে অনুষ্ঠান স্থলে হাজির আমজনতার কাছেও চলে যান শাহ।

অনেকের সঙ্গে হাত মেলাতে দেখা যায় তাঁকে। কাশ্মীরের আম নাগরিকদের মন জয়ের পাশাপাশি এ দিন কেন্দ্রীয় সশস্ত্র আধা সামরিক বাহিনীর জওয়ানদের সঙ্গে দেখা করেও তাঁদের মনোবল বৃদ্ধি করেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। পুলওয়ামার লেথপোরায় সিআরপিএফ ক্যাম্পে গিয়ে জওয়ানদের সঙ্গে দেখা করে একসঙ্গে নৈশভোজ সারেন শাহ। ট্যুইটারে অমিত শাহ জানান, 'আধা সেনার জওয়ানদের সঙ্গে সময় কাটাতে চেয়েছিলাম। তাঁদের সঙ্গে দেখা করে তাঁদের কঠিন মনোভাব এবং সাহসিকতা সামনে থেকে দেখতে চেয়েছিলাম।

সেই কারণেই পুলওয়ামার লোথপোরায় সিআরপিএফ ক্যাম্পে সাহসী জওয়ানদের সঙ্গে খাওয়াদাওয়া সেরে সেখানেই রাতে বিশ্রাম নেব।' সিআরপিএফ জওয়ানদের প্রশংসা করে অমিত শাহ বলেন, ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের পর কাশ্মীরে কড়া বিধিনিষেধ জারি করা হয়েছিল। কিন্তু সিআরপিএফ জওয়ানদের দক্ষতার কারণেই উপত্যকার কোনও জায়গায় গুলি চালাতে হয়নি, যা অত্যন্ত গর্বের বিষয়। কাশ্মীরের উন্নয়নে সিআরপিএফ-এর ভূমিকা অনস্বীকার্য বলেও দাবি করেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।