আপনি কি একটুতেই রেগে যান ? জেনে নিন  রাগ নিয়ন্ত্রণের সহজ কিছু উপায় 

আপনি কি একটুতেই রেগে যান ? জেনে নিন  রাগ নিয়ন্ত্রণের সহজ কিছু উপায় 

রাগের সময় কারোরই হিতাহিত জ্ঞান থাকে না। অত্যাধিক রাগের ফলে হার্ট অ্যাটাক, উচ্চ রক্তচাপ, স্ট্রোক ইত্যাদি হওয়ার আশঙ্কা অনেক বেড়ে যায়। অত্যাধিক রাগের বশে  মানুষ খুন পর্যন্ত করে বসে। এই ভয়ংকর ব্যাধি ব্যাক্তিগত, সামাজিক ও কর্মজীবনের উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। তাই আসুন জেনে নেওয়া যাক, রাগ নিয়ন্ত্রণের কিছু সহজ কিছু উপায় 

রাগের বশে এমন কিছু কখনই বলবেন না, যার জন্য আপনাকে পরবর্তী সময়ে অনুশোচনা করতে হয়। কিছু বলার আগে একবার বিপরীত পক্ষের স্থানে নিজেকে রেখে ভেবে দেখুন। অনিয়ন্ত্রিত ক্রোধের বহিঃপ্রকাশ, সম্পর্কে ভাঙন ধরাতে পারে।  

অতিরিক্ত রাগ হলে  কিছুক্ষণ কথা না বলে, চুপ করে থাকুন।অতিরিক্ত রাগের সময় অনেক ক্ষেত্রেই না চাইতেও অপশব্দের বহিঃপ্রকাশ হতে পারে। তাই অত্যাধিক রাগের অনুভূতি হওয়া মাত্রই, কোনও কথা না বলে কিছুক্ষণ চুপ করে থাকুন এবং পরিস্থিতি কীভাবে সামলানো যায়, সেই বিষয়ে ভাবনা-চিন্তা করুন।

শারীরিক ক্রিয়াকলাপ স্ট্রেস কমাতে সহায়তা করে, যা পরোক্ষভাবে ক্রোধ নিয়ন্ত্রণে সহায়ক। রাগের অনুভূতি হলেই দ্রুত হাঁটুন কিংবা দৌড়ান অথবা অন্যান্য শারীরিক ক্রিয়াকলাপ করুন। 

রাগ হলে নিজেকে শান্ত  করে গান শুনুন , এটি রাগ নিয়ন্ত্রনের একটি অন্যতম জনপ্রিয় উপায়। পছন্দের সুর এবং গান মেজাজ ভাল করে, মনকে রিল্যাক্স করতে সক্ষম। 

 রাগ প্রশমিত করার একটি সহজ পদ্ধতি হল হাসি। রাগের  অনুভূতি হলেই হাসার উপায় খুঁজুন এবং জোরে জোরে হাসুন। যেমন - বাচ্চাদের সঙ্গে খেলা, স্ট্যান্ড-আপ কমেডি দেখা, হাসির ভিডিয়ো দেখা, জোকস শোনা বা পড়া কিংবা হাসির কোনও স্মৃতি মনে করা, প্রভৃতি। 
ক্রোধ নিয়ন্ত্রণ করতে  সহায়তা করে হাঁটাহাঁটি। এটি শরীরের সমস্ত পেশীকে রিল্যাক্স করে এবং আপনাকে শান্ত করতেও সহায়তা করে। এছাড়াও, কীভাবে রাগের পরিস্থিতিতে প্রতিক্রিয়া করা উচিত, তা নিয়ে ভাবনা-চিন্তা করতেও সময় দেয়।