বাংলায় বিজেপি শক্তিশালী দল:‌ মেনে নিলেন ভোটগুরু প্রশান্ত কিশোর! ‌

বাংলায় বিজেপি শক্তিশালী দল:‌ মেনে নিলেন ভোটগুরু প্রশান্ত কিশোর! ‌

বিজেপি-কে তিনি বাংলার সবথেকে শক্তিশালী রাজনৈতিক সংগঠনের মর্যাদা দিয়েছেন!‌ তিনি নাকি বলেছেন, এই ভোটে নাকি বিজেপি-ই জিতবে! বাংলার শাসকদলের ‌ভোটকৌশলী প্রশান্ত কিশোরের সোশ্যাল মিডিয়ার চ্যাট নিয়ে বিতর্ক কম হয়নি। চাপে পড়ে গেছে শাসকদল তৃণমূল। এদিন একটি সর্বভারতীয় সংবাদ মাধ্যমের সামনে সাক্ষাত্‍কারে ভোটগুরু এক প্রকার স্বাকীর করেই নিলেন, যে তিনি এসব বলেছেন। কিন্তু এই বিজেপি বা মোদি প্রশস্তিই সব নয়।

বরং চ্যাটের একটি ছোট অংশই প্রকাশ্যে এসেছে আর তাই নিয়ে প্রচার করছে বিজেপি। চ্যাটে তিনি আরও অনেক কিছু বলেছেন, যা আড়ালেই থেকে গেছে। তিনি ওই চ্যাটেই জানিয়েছিলেন, বিজেপি যতই শক্তিশালী দল হোক, বাংলায় জিতবে সেই তৃণমূলই। এদিন সাক্ষাত্‍কারে প্রশান্ত কিশোর বললেন, '‌কোনও ভুল করছি না। বিজেপি অবশ্যই বাংলায় শক্তিশালী দল। এই নিয়ে দ্বিমত নেই। কিন্তু সব বিচার করে বলছি, বিজেপি ১০০-র গণ্ডিও পেরোবে না।

বাংলায় জিতবে তৃণমূলই। বড় জয় পাবে তারা।'‌ প্রশান্তের কথায়, ঠিক এটাই সপ্তাহান্তে তিনি সাংবাদিকদের সঙ্গে চ্যাটে আলোচনা করছিলেন। আর তারই অংশ তুলে বিজেপি দাবি করে, খোদ প্রশান্ত কিশোর মেনে নিয়েছেন মোদি বাংলায় যথেষ্ট জনপ্রিয়। প্রশান্ত অবশ্য মানলেন না যে ওই অংশ '‌ফাঁস'‌ করেছে বিজেপি। তাঁর কথায়, '‌এক জন জিজ্ঞেস করছিলেন, যে লোকজন এসব নিয়ে টুইট করছেন।

আমি শুধু বলেছিলাম, তাঁরা যদি এসব শুনে থাকেন, ক্ষতি কি!‌'‌ এই চ্যাট প্রকাশ্যে আসার পর এও অভিযোগ ওঠে, যে প্রশান্ত এখনও মনেপ্রাণে মোদিকেই সমর্থন করেন। কারণ ২০১৪ সালে তিনিই মোদির লোকসভা নির্বাচন জয়ের কারিগর ছিলেন। এই বিতর্ক প্রসঙ্গে প্রশান্তের জবাব, '‌কাজ দিয়ে মানুষকে বিচার করুন। কথা দিয়ে নয়। ২০১৫ সালে আই-পিএসি তৈরি হয়েছে। তখন থেকে আমরা বিভিন্ন রাজ্যে বিজেপি-র বিরুদ্ধেই বিভিন্ন দলের হয়ে কাজ করছি। তাছাড়া স্ট্র‌্যাটেজিস্ট হিসেবে আমার কাজ প্রতিযোগিতাকে খাটো বা হালকা করে দেখাও নয়।'‌