ব্যালটবক্স আর ইভিএম নিয়ে যাওয়া তৃণমূলের পুরনো অভ্যাস!‌ মন্তব্য দিলীপ ঘোষের

ব্যালটবক্স আর ইভিএম নিয়ে যাওয়া তৃণমূলের পুরনো অভ্যাস!‌ মন্তব্য দিলীপ ঘোষের

রাজ্যে চলছে হাইভোল্টেজ তৃতীয় দফার ভোটগ্রহণ পর্ব। আর টার ঠিক আগের রাতেই হাওড়ার উলুবেড়িয়ায় উত্তর কেন্দ্রের তৃণমূল নেতা গৌতম ঘোষের বাড়িতে মিলেছে ইভিএম ও ভিভিপ্যাট। গ্রামবাসীরা এই ঘটনায় তার বাড়ি ঘিরে বিক্ষোভ দেখায়। এই ঘটনায় নির্বাচন কমিশন সেক্টর অফিসারকে সাসপেন্ড করে। এই ঘটনা প্রসঙ্গে রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, '‌পঞ্চায়েত ভোটের সময় ব্যালটবক্স নিয়ে চলে গিয়েছিল তৃণমূল নেতা, কর্মীরা।

সেই চিত্র দেখেছিল বাংলার মানুষ। ব্যালটবক্স লুঠ করে নিয়ে গিয়ে পুকুরে ফেলে দিত তৃণমূল কর্মীরা। এভাবেই বাংলায় ভোট করত তৃণমূল। আর এবার উলুবেড়িয়া উত্তরে তৃণমূল নেতার বাড়ি থেকে ইভিএম আর ভিভিপ্যাট পাওয়া যাচ্ছে, সেটা বাংলার মানুষ সবাই দেখছেন। আমার মনে হয়, তৃণমূলের পুরনো অভ্যাস পাল্টাতে সময় লাগবে।'‌

এর পাশাপাশি দিলীপ ঘোষের আরও সংযোজন, ইভিএমের উপর তৃণমূল আস্থা হারাচ্ছে। কারণ তৃণমূলের নেতারা জানেন মানুষ ওদের ভোট দেবে না তাই এখন ইভিএম মেশিন বাড়ি নিয়ে গিয়ে ছাপ্পা দিতে চাইছে তৃণমূলের নেতারা। তৃতীয় দফার ভোটেও রাজ্যের এদিক ওদিক গোলমালের চেষ্টা করছে।

যদি এইসব গোলমাল করে জেতা যায়। তৃণমূল হারছে এটা সবাই জানে। রাজ্যে এবার বিজেপির বিপুল জয় হবে বলেও ১০০ শতাংশ আশাবাদী বঙ্গ বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ। রাজ্যের পুলিশরাও এবার তৃণমূলের হয়ে ভোটে কাজ করছে না। কারণ পুলিশরাও এবার মমতা ব্যানার্জির দিক থেকে সরে আসছেন। মমতা ব্যানার্জির অন্যায় সবাই বুঝতে পারছে ,তাই সবাই সরে যাচ্ছে। রাজ্যের পুলিশ নির্বাচন কমিশনের নিয়ন্ত্রণে থাকায় পুলিশরাও নিরপেক্ষ ভাবে কাজ করছে।