বাংলাদেশের প্রথম হিন্দু বিচারপতির কারাদণ্ডের নির্দেশ

বাংলাদেশের প্রথম হিন্দু বিচারপতির কারাদণ্ডের নির্দেশ

বাংলাদেশের প্রথম হিন্দু বিচারপতির কারাদণ্ডের নির্দেশ। প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহাকে দুর্নীতি ও বিশ্বাসভঙ্গের মামলায় ১১ বছরের কারাদণ্ডের নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশের একটি আদালত। তিনি বাংলাদেশের সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায় থেকে প্রথম প্রধান বিচারপতি। এই ঘটনাকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে মনে করছেন অনেকেই।

২০১৭ সালে, সুরেন্দ্র কুমার সিনহা সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি ছিলেন। সেই সময় রায় দেওয়া হয় যে সংসদ বিচারকদের বরখাস্ত করতে পারবে না। ওই বছরই বাংলাদেশ ছাড়েন তিনি। অভিযোগ, সেই রায় অনুসরণ করে তাঁকে পদত্যাগ করতে বাধ্য করা হয়েছিল। বর্তমানে উত্তর আমেরিকার বাসিন্দা সুরেন্দ্র কুমার সিনহা। ঢাকা আদালতে তাঁর কারাদণ্ডের ঘোষণা করা হয়েছে। তিনি আদালতে উপস্থিত ছিলেন না।

সূত্রের খবর, সুরেন্দ্র কুমার সিনহাকে একটি বেসরকারি ব্যাঙ্কের কিছু কর্মকর্তার সঙ্গে যোগসাজশের অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে। প্রায় ৪ লক্ষ ৭১ হাজার ডলার পাচারের অভিযোগ রয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে। ঢাকা আদালতের বিশেষ বিচারক শেখ নাজমুল আলম, যিনি মঙ্গলবার রায় দেন, তিনি সিনহাকে অর্থ পাচারের অভিযোগে সাত বছরের কারাদণ্ড ও বিশ্বাসভঙ্গের জন্য চার বছরের কারাদণ্ডের নির্দেশ দেন।

প্রসিকিউটর খুরশিদ আলম খান বলেছেন, এই রায়ই প্রমাণ করে যে এই দেশে কেউই আইনের ঊর্ধ্বে নয়। এই ঘটনায় সরকারের ওপর ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অনেকেই। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনের অধ্যাপক আসিফ নজরুল এক সংবাদ সংস্থাকে বলেন, ‘এটা খুবই স্পষ্ট যে সরকার ওনার ওপর ক্ষুব্ধ ছিল এবং তাঁর সম্মান মাটিতে মেশানোর জন্য সবরকম চেষ্টা তারা করেছিল।’