এয়ার ফ্রেশনার ব্যবহার করার আগে স্বাস্থ্যের প্রতি সচেতন হন

এয়ার ফ্রেশনার ব্যবহার করার আগে স্বাস্থ্যের প্রতি সচেতন হন

আজবাংলা   ঘরে কিংবা গাড়িতে দুর্গন্ধ ছড়ালেই এয়ার ফ্রেশনার ব্যবহার করা হয়। এয়ার ফ্রেশনার ব্যবহারের কিছুক্ষণের মধ্যে ঘরে আসে সজীবতা সেই সঙ্গে সুন্দর গন্ধ। তবে এই এয়ার ফ্রেশনার কি আসলেই নিরাপদ?

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এটি ব্যবহারের ফলে শরীরে বাসা বাঁধতে পারে নানা রোগব্যাধি। এয়ার ফ্রেশনারের থাকে রাসায়নিক দ্রব্য যা শরীরের জন্য ক্ষতিকর। তাদের মতে, সুগন্ধি জাতীয় বিভিন্ন সামগ্রী যেমন- এয়ার ফ্রেশনার, সেন্টেড মোমবাতি সবকিছুতেই রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহৃত হয়।

এই ক্ষতিকারক রাসায়নিক হরমোনের ক্ষতি করে। ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাস্থ্য ও পরিবেশ বিশেষজ্ঞরা গবেষণা করে দেখেছেন, ঘরের ভেতরে রুম ফ্রেশনার স্প্রে করলে তা বিক্রিয়া করে বিভাজিত হয়ে ক্ষতিকর যৌগ তৈরি করে। তবে এয়ার ফ্রেশনার পুরোপুরি ব্যবহার বন্ধ করে দেয়ার পক্ষে কেউই বলেনি। কিছু নিয়ম মেনে তারপর ব্যবহার করতে হবে-

1> হার্টের সমস্যা অথবা শ্বাসকষ্ট থাকলেও এয়ার ফ্রেশনার ব্যবহার না করাই উচিত হবে বলে মনে করছেন চিকিৎসকেরা। এক্ষেত্রে প্রয়োজনে দরজা-জানালা খুলে দিন। 2> স্প্রে ব্যবহারের সময় অবশ্যই মাস্ক ব্যবহার করবেন। তা না হলে বিষাক্ত বাতাস ফুসফুসের ক্ষতি করতে পারে।

3> সবসময় চেষ্টা করুন হালকা কোনো গন্ধের এয়ার ফ্রেশনার ব্যবহার করতে। 4> বাড়িতে বয়স্ক বা শিশুরা থাকলে এয়ার ফ্রেশনার যতো কম ব্যবহার করা যায় তত ভালো।