দারুচিনি| ভেষজ ঔষধ গুণে সম্পুর্ণ দারুচিনির উপকারিতা

দারুচিনি| ভেষজ ঔষধ গুণে সম্পুর্ণ দারুচিনির উপকারিতা

দারুচিনি হলো এই গ্রহের সবচেয়ে বেশি অ্যান্টি-অক্সিডেন্টসমৃদ্ধ ভেষজ। আমরা যারা গ্রামে কিংবা শহরে বসবাস করি সবাই খুব ভালভাবে দারুচিনি কম-বেশি চিনি। যাকে গরম মসলা বলা হয়ে থাকে। পোলাও-কোরমা এবং মিষ্টি খাবার, অর্থাৎ সেমাই বা পায়েস-জাতীয় বিশেষ খাবারে ব্যবহার করা হয়ে থাকে দারুচিনি, সাধারণত সুগন্ধের জন্যই ।

বিশেষ করে যেকোনো পেশাগত রান্নায় দারুচিনির গুঁড়া কিংবা আস্ত দারুচিনি আমরা ব্যবহার করে থাকি। কারণ, এই মসলা খাবারের স্বাদ দ্বিগুণ বাড়িয়ে দেয়। দারুচিনি যখন এত ব্যবহার করি, কিন্তু আমরা অনেকেই জানি না যে আমাদের দেহেও দারুচিনির অনেক উপকারিতা আছে। চলুন তাহলে জেনে নেই দারুচিনির কিছু বিস্ময়কর স্বাস্থ্য উপকারিতা সম্পর্কে—

অ্যান্টি অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ : দারুচিনি অ্যান্টি অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ একটি খাবার। আর এই অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান আমাদের দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে।শরীরের বিভিন্ন অংশের ক্ষত সারিয়ে তুলতেও এই মসলা বেশ কার্যকর।

ক্যান্সার প্রতিরোধ করে : দারুচিনি নানাবিধ উপাদান আমাদের দেহের গ্যাস্ট্রিক, ক্যান্সার, টিউমার ও মেলানমাস রোগ প্রতিরোধ করে।

বাত ও অস্টিওপোরোসিস দূর করে : দারুচিনিতে আছে প্রচুর পরিমাণে ম্যাঙ্গানিজ, যা হাড় গঠন, রক্ত ও শরীরের অন্যান্য কোষ সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। যাদের শরীরে খনিজ উপাদানের অভাব থাকে তাদের বাত ও অস্টিওপোরোসিসের সমস্যা হতে পারে।

টাইপ-২ ডায়াবেটিস দূর করে : রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে এবং টাইপ-২ ডায়াবেটিসের রোগীদের জন্য খুবই উপকারী। প্রতিদিন ২ ইঞ্চি পরিমাণ দারুচিনি দুই কাপ পানিতে জ্বাল দিয়ে সেই পানি এক কাপে নিয়ে এসে গরম–গরম চায়ের মতো করে দিনে তিনবার খেলে টাইপ-২ ডায়াবেটিসের জন্য অনেক উপকারী, রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে কার্যকর।

স্মরণ শক্তি বাড়াতে : মানুষের স্মরণশক্তি বৃদ্ধি করতে সাহায্য দারুচিনির কিছু উপাদান। যারা প্রতিদিন দারুচিনি খেয়ে থাকেন তাদের স্মরণশক্তি তীক্ষ্ণ হয়ে থাকে।

 ত্বকের ঔজ্জ্বল্যতা বৃদ্ধিতে : দারুচিনি, দূর্বাঘাস ও হলুদ সমপরিমানে বেটে মিশিয়ে ত্বকে লাগালে ভালো। তৈলাক্ত ত্বকে ব্রন রোধ করতে দারুচিনি উপকারী।

দাঁতের ক্ষয় ও মাড়ির সমস্যায় দারুচিনি : দারুচিনির তেল চুইংগাম, মিন্ট চকলেট, মাউথওয়াশ, টুথপেস্ট ইত্যাদি তৈরিতে ব্যাবহার করা হয়। কারন দারুচিনির উপাদান দাঁত ও মাড়ির ক্ষতি করে মুখের ভিতরে এমন ব্যাক্টেরিয়ার বৃদ্ধি প্রতিরোধ করে।

শরীরের ছত্রাকজনিত সমস্যায় : অনেকে শরীরের নানান স্থানে ছত্রাকজনিত সমস্যা ভুগে থাকেন। তাঁদের জন্য দারুচিনি একটি আদর্শ সমাধান। ইস্ট ছত্রাকজনিত ইনফেকশন প্রতিরোধ করে দারুচিনি। সারা দিনে ২ চা–চামচের বেশি দারুচিনি খাওয়া যাবে না, দারুচিনি খাওয়ার কারণে ডায়রিয়া ও মাথা ধরার মতো উপসর্গ দেখা দিতে পারে। যাঁদের এমন উপসর্গ দেখা দেবে, তাঁদের দারুচিনি না খাওয়াই উত্তম। বাজারে দারুচিনির নামে অনেক ধরনের গাছের ছাল দারুচিনি বলে বিক্রি হয়ে থাকে, কেনার আগে গন্ধ এবং একটু ভেঙে মুখে দিয়ে দেখুন ঝাঁজালো স্বাদ কি না। নিশ্চিত হলেই নেবেন। প্যাকেটজাত দারুচিনি পরিহার করুন।