জেনে নিন লাল চায়ের গুনাবলী সম্পর্কে

জেনে নিন লাল চায়ের গুনাবলী সম্পর্কে

আমরা সাধারণত সকালে বা দুপুরের খাবারের পর পরই চা পান করি।চা পান করেন না এমন মানুষ পাওয়া খুব কঠিন।সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে, লাল চা-ই স্বাস্থ্যের জন্য সবচেয়ে ভালো। জার্মানির বার্লিন বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল বিজ্ঞানী তাদের গবেষণায় এমনটিই জানিয়েছেন। এক কাপ লাল চা দিনের শুরুতে যেমন কর্মশক্তি যোগায়, তেমনি দিনের শেষে শরীরে ক্লান্তি দূর করতে সাহায্য করে। লাল চায়ে থিয়োফিলাইন নামক একটি উপাদান রয়েছে যা শরীরকে সতেজ রাখে সবসময়। আসুন জেনে নেই কেন লাল চা শরীরের জন্য কতটা উপকারী:

হার্ট ভালো রাখে:– হার্টের জন্য ভালো গবেষণায় বলা হয়, লাল চা খাওয়া কার্ডিওভাসকুলার সমস্যা প্রতিরোধে সাহায্য করে। এর মধ্যে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ক্ষতিকর কোলেস্টেরলের জারিত হওয়া প্রতিরোধে কাজ করে। নিয়মিত লাল চা খেলে হৃত্‍পিণ্ড ভালো রাখে। 

ক্যানসার প্রতিরোধে:– লাল চায়ের মধ্যে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রেক্টাল, জরায়ুর ক্যানসার, ফুসফুস ও ব্লাডার ক্যানসার প্রতিরোধ করে। এটি স্তন ক্যানসার, প্রোস্টেট ক্যানসার ও পাকস্থলীর ক্যানসারও প্রতিরোধে কাজ করে।

অ্যাস্থেমার প্রকোপ কমে:– বেশ কিছু গবেষণা দেখা গেছে লাল চা পানের সময় আমাদের শ্বাসনালী প্রসারিত হয়ে যায়। ফলে অক্সিজেন ঠিক মতো ফুসফুসে পৌঁছাতে কোনও সমস্যাই হয় না। এই কারণেই তো শ্বাসকষ্টে ভোগা রোগীদের লাল চা খাওয়া পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা।

খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায়:– আমেরিকান হার্ট অ্যাসোসিয়েশনের তত্ত্বাবধানে হওয়া এক গবেষণায় দেখা গেছে দিনে ৩-৪ কাপ লিকার চা পান করলে শরীরে জমতে থাকা এল ডি এল বা খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমতে শুরু করে। 

হজম ভালো করে:– এর মধ্যে থাকা ট্যানিন হজম প্রক্রিয়াকে সাহায্য করে। এটি অন্ত্রের সমস্যা এবং গ্যাস্ট্রিকের সমস্যার সঙ্গে লড়াই করে। লাল চা অন্ত্রের প্রদাহ প্রতিরোধেও কাজ করে।

কিডনি স্টোনের মতো রোগ দূরে থাকবে:–oxalate, ক্যালসিয়াম এবং ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রা বাড়তে থাকলে কিডনিতে স্টোন হওয়ার আশঙ্কা থাকে। তাই কোনও ভাবে যদি এই সব উপাদানগুলি কিডনিতে জমতে না পারে, তাহলেই আর কোনও চিন্তা থাকবে না। আর ঠিক এই কারণেই নিয়মিত লাল চা খেতে হবে। কারণ, নিয়ম করে লাল চা খেলে কিডনিতে স্টোন হওয়ার আশঙ্কা প্রায় ৮ শতাংশ কমে যায়।

ওজন হ্রাস করে:– নিয়মিত লাল চা পানের ফলে হজম শক্তির উন্নতি ঘটে। আর তাই শরীরে অতিরিক্ত মেদ জমতে পারে না। আপনার ওজন যদি একটু বেশি হয়ে থাকে তাহলে আপনার ওজন কমাতে নিয়মিত লাল চা খাওয়া শুরু করেন।

মানসিক চাপ কমায়:– লাল চায়ে রয়েছে অ্যামাইনো অ্যাসিড, যা স্ট্রেস কমাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। সেই সঙ্গে মনকে চনমনে করে তুলতেও বিশেষ ভূমিকা নেয়।সুস্থ থাকার জন্যে প্রকৃতপক্ষে স্বাস্থসম্মত খাবার এবং জীবনযাপনের কোন বিকল্প নেই। তাই চায়ের অভ্যাসটাও গড়ে তুলুন স্বাস্থসম্মতভাবে। দুধ চায়ের বদলে পান করুন উপকারি লাল চা। রোগবালাইকে দুরে রেখে উপভোগ করুন সুস্থ, সুন্দর জীবন।