জন্মের পরই নীল রঙের আধার কার্ড! জেনে নিন কীভাবে

জন্মের পরই নীল রঙের আধার কার্ড! জেনে নিন কীভাবে

 বাল আধার কার্ডে অর্থাৎ পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুদের আধার কার্ডে কোনো বায়োমেট্রিক থাকবে না৷ কাজেই, ফিঙ্গারপ্রিন্ট বা আইরিস (চোখের মণি) স্ক্যান করানোরও প্রয়োজন হবে না।UIDAI এর তরফে সম্প্রতি ট্যুইট করে জানানো হয় যে বাচ্চাদের জন্যেও Baal Aadhaar কার্ড তৈরি করতে হয় ৷ এই আধার কার্ড ৫ বছরের কম বয়সের বাচ্চাদের জন্য তৈরি করা হয় ৷ বাচ্চাদের জন্য জারি করা আধার কার্ড নীল রঙের হয় ৷

তবে বাচ্চার ৫ বছর বয়স হয়ে গেলে এই আধার বাতিল হয়ে যায় ৷ তাই নিকটবর্তী স্থায়ী আধার কেন্দ্রে গিয়ে এই আধার নম্বরেই বাচ্চার বায়োমেট্রিক বিবরণ রেজিস্টার্ড করাতে হয় ৷ ইউআইডিএআই-এর তরফে স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে বাল আধার কার্ডে বায়োমেট্রিক আইডেন্টিফিকেশনের মতো আইরিস স্ক্যান বা ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানের দরকার পড়ে না ৷ ৫ বছর পূর্ণ হতেই বায়োমেট্রিক সহ আধার কার্ড জারি করা হবে ৷

 সন্তারের আধার কার্ড তৈরি করার জন্য বাচ্চার সঙ্গে আধার এনরোলমেন্ট সেন্টারে গিয়ে ফর্ম ফিলআপ করতে হবে ৷ বাচ্চার এবং বাবা মায়ের মধ্যে একজনের পরিচয় পত্র নিয়ে যেতে হবে ৷ সেন্টারে বাচ্চার ছবি তোলা হবে যেটা আধার কার্ডে থাকবে ৷ এখানে কোনও বায়োমেট্রিক ডিটেল থাকবে না ৷ রেজিস্টার্ড মোবাইল নম্বর দিতে হবে ৷ ভেরিফিকেশন ও রেজিস্ট্রেশনের পর কনফার্মেশন মোবাইল নম্বরে পাঠানো হবে ৷

কনফার্মেশন মেসেজ পাওয়ার ৬০ দিন পর বাবা মায়ের রেজিস্টার্ড ঠিকানায় বাল আধার (Baal Aadhaar) কার্ড চলে আসবে ৷  নীল রঙের আধার অন্যান্য আধার কার্ডের মতোই বৈধ ৷ নতুন নিয়ম অনুযায়ী, নীল আধার কার্ড বাচ্চাদের জন্য জারি করা হয়ে থাকে ৷

জেনে নিন বাল আধার সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি তথ্য-

* ১ বছরের বেশি বয়সের শিশুরা ‘বাল আধার’ এর জন্য আবেদন করতে পারবে। 

* শিশুর বয়স ৫ বছর না হওয়া পর্যন্ত আঙুলের ছাপ সহ অন্যান্য বায়োমেট্রিক তথ্য লাগবে না।
* পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুদের আধারের সঙ্গে তাদের বাবা-মা-র আধার ডিটেল লিঙ্ক করা থাকবে।
* শিশুর বয়স ৫ বছর হলে, তার বায়েমেট্রিক তথ্য নেওয়া হবে। বয়স ১৫ হলে ফের একবার আধারের তথ্য নেওয়া হবে।