অক্সিজেন ছাড়াই বাঁচতে পারে, এমন বিরল প্রানের খোঁজ মিলল

অক্সিজেন ছাড়াই বাঁচতে পারে, এমন বিরল প্রানের খোঁজ মিলল

আজবাংলা  পৃথিবীর বুকে অক্সিজেন ছাড়া বাঁচে না কোন প্রাণী। কিন্তু এমন এক তথ্য পাওয়া গেছে যা থেকে বদলে যেতে পারে প্রাণী জগতের ধারনা। সম্প্রতি, এক প্রাণীর খোঁজ পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা, যে কিনা অক্সিজেন ছাড়াই থাকতে পারে। প্রাণীটির বিজ্ঞানসম্মত নাম দেওয়া হয়েছে, হেনেগুয়া সালমিনিকোলা। এই নতুন প্রাণীটি মাত্র ১০টি কোষে তৈরি হয়েছে। এর খোঁজ পেয়েছেন ইজরায়েলের তেল আভিভ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা।

এই প্রাণীটিকে দেখতে অনেকটা জেলিফিশের মতো। সলমন মাছের পেশীতে বসবাস করে থাকে এই প্রাণীটি। নতুন এই আবিষ্কারে বিশ্বেজুড়ে শোরগোল পড়ে গিয়েছে। অধ্যাপক ডরোথি হিউচন যুক্ত রয়েছেন এই গবেষণার সঙ্গে। তিনি জানিয়েছন, মানুষ এবং সমস্ত জীবজন্তু ‘অ্যারোবিক রেসপিরেশন’-এর উপর নির্ভরশীল। এর মানে হল, শ্বাসপ্রশ্বাসের জন্য অক্সিজেন দরকার। কিন্তু নতুন যে প্রানের খোঁজ পাওয়া গেছে, সে একেবারে জীবজগতের প্রথাগত ধারণার বাইরে গিয়ে বেঁচে রয়েছে।

বিজ্ঞানী ডরোথি জানিয়েছেন, এই পরজীবীর দেহে কোন মাইটোকন্ড্রিয়াল জিনোম নেই। সেইকারনে এদের বেঁচে থাকার জন্য অক্সিজেনের দরকার নেই। বিশ্বের প্রতিটি প্রাণীর দেহে প্রচুর মাইটোকন্ড্রিয়া পাওয়া যায়। এই মাইটোকন্ড্রিয়া দেহের শক্তি উৎপাদনে সহায়তা করে। এবার অক্সিজেন গ্রহণ করলে তবেই ওই কোষগুলি শক্তিতে রূপান্তরিত হয়। এবার, নতুন যে প্রাণীটির খোঁজ পাওয়া গেছে তাঁদের দেহে শক্তি তৈরির জায়গাই নেই। সেই কারনে তাঁদের অক্সিজেন লাগে না।

এখন এই অদ্ভুত পরজীবীর বিবর্তন হল কীভাবে, সেই ব্যাপারে কোন নিশ্চিত কারন জানতে পারেনি বিজ্ঞানীরা। তাঁরা অনুমান করেছেন, মাছের শরীর থেকেই এই নতুন জীব তাঁর যাবতীয় এনার্জি নেয়। এখন ডরোথির ব্যাখ্যা অনুযায়ী, ‘জলভাগে বিভিন্ন জীব যে ভাবে জীবনধারণ করে, সেইখানে অক্সিজেন গ্রহণ না করেও শক্তি উৎপাদন সম্ভব।