দুরারোগ্য রোগ থেকে মুক্তি পেতে পালন করুন নৃসিংহ চতুর্দশী

দুরারোগ্য রোগ থেকে মুক্তি পেতে পালন করুন নৃসিংহ চতুর্দশী

হিন্দু শাস্ত্র অনুসারে, প্রতি বছর বৈশাখ মাসের শুক্লা চতুর্দশী তিথিতে নরসিংহ জয়ন্তী বা নরসিংহ চতুর্দশী Narsingh Chaturdashi পালিত হয়। এবার এই তারিখ পড়বে ১৪ মে। বিশ্বাস করা হয় যে এই তিথিতে ভগবান বিষ্ণু ভক্ত প্রহ্লাদকে রক্ষা করার জন্য নরসিংহের অবতার গ্রহণ করেছিলেন। ভগবান বিষ্ণু নরসিংহ অবতারে অর্ধেক সিংহ ও অর্ধেক মানুষের রূপ ধারণ করেছিলেন।

তাই ভগবানের এই রূপকে বলা হতো নরসিংহ রূপ। নৃসিংহ বিষ্ণুর চতুর্থ অবতার। পুরাণ, উপনিষদ ও অন্যান্য প্রাচীন হিন্দু ধর্মগ্রন্থে তার উল্লেখ রয়েছে। তিনি হিন্দুদের জনপ্রিয়তম দেবতাদের অন্যতম। সাধারণত দুষ্টের দমন ও শিষ্টের পালনের অন্যতম প্রতীক তিনি ৷ প্রাচীন মহাকাব্য অনুসারে এক হাজার বছরেরও বেশি সময় ধরে তার পূজা প্রচলিত রয়েছে।

অতীতে শাসক ও যোদ্ধারা নৃসিংহের পূজা করতেন। একাধিক বৈষ্ণব সম্প্রদায়ে তার পূজা প্রচলিত। দক্ষিণ ভারতে নৃসিংহ পূজার বিশেষ প্রচলন দেখা যায়। হিন্দুদের বিশ্বাস অনুযায়ী, নৃসিংহ মহারক্ষক, তিনি ভক্তকে তার প্রয়োজনের সময় সর্বদা রক্ষা করে থাকেন। কথিত আছে বৈশাখ মাসের চতুর্দশী তিথিতে ভগবান শ্রী হরি বিষ্ণু নরসিংহের অবতার গ্রহন করেন এবং হিরণ্যকশিপুকে হত্যা করেন এবং তার একান্ত ভক্ত প্রহ্লাদকে এর সন্ত্রাস থেকে রক্ষা করেন। ভগবান নরসিংহ ভক্ত প্রহ্লাদকে বর দিয়েছিলেন যে যে এই দিনে উপবাস করবে সে দুরারোগ্য ব্যাধি থেকে মুক্ত হবে। সে সকল আনন্দ ভোগ করবে এবং সকল প্রকার পাপ থেকে মুক্ত হয়ে পরম নিবাস লাভ করবে। 

নরসিংহ চতুর্দশী ২০২২ বা নরসিংহ জয়ন্তী কখন-বৈশাখ মাসের শুক্লা চতুর্দশী তারিখ শুরু হয় ১৪ মে ২০২২, শনিবার বিকেল ৩ টে বেজে ২২ মিনিটে। বৈশাখ শুক্লা চতুর্দশী তারিখ শেষ হয় ১৫ মে ২০২২, রবিবার দুপুর ১২ টা বেজে ৪৬ মিনিটে।

নরসিংহ জয়ন্তী পূজার মুহুর্তানরসিংহ জয়ন্তী ব্রত পূজা সংকল্পের শুভ সময় : সকাল ১০ টা বেজে ৫৭ মিনিট থেকে দুপুর ১ টা বেজে ৪০ মিনিট পর্যন্ত।নরসিংহ জয়ন্তী সন্ধ্যা পূজার সময় বিকেল ৪ টা বেজে ২২ মিনিট থেকে সন্ধ্যা ৭ টা বেজে ২২ মিনিট পর্যন্ত। হিন্দু শাস্ত্রমতে, নরসিংহ চতুর্দশী উপবাসে পুজো করলে বিশেষ ফল পাওয়া যায়।

শ্রীনৃসিংহদেবের স্তব  ---
 
জয় নৃসিংহ শ্রীনৃসিংহ।
জয় জয় জয় শ্রীনৃসিংহ।।
উগ্রং বীরং মহাবিষ্ণুং
জ্বলন্তং সর্বতোমুখম্।
নৃসিংহং ভীষণম ভদ্রং
মৃত্যুর্মৃত্যুং নমাম্যহম্।।
শ্রীনৃসিংহ, জয় নৃসিংহ, জয় জয় নৃসিং।
প্রহ্লাদেশ জয় পদ্মমুখ পদ্মভৃঙ্গ ।।

প্রণাম মন্ত্রঃ
নমস্তে নরসিংহায় প্রহ্লাদাহ্লাদ দায়িনে।
হিরণ্যকশিপো র্বক্ষঃ শিখাটঙ্ক নখালয়ে।।
ইতো নৃসিংহঃ পরতো নৃসিংহ
যতো যতো যামি ততো নৃসিংহো।
বহির্নৃসিংহো হৃদয়ে নৃসিংহো
নৃসিংহমাদিং শরণং প্রপদ্যে।।
তব কর কমলবরে নখমদ্ভূতশৃঙ্গম্
দলিতহিরণ্যকশিপু তনুভৃঙ্গম।
কেশব ধৃত-নরহরিরূপ জয় জগদীশ হরে।।