কালবৈশাখীর সঙ্গে বৃষ্টির সম্ভাবনা, জেনে নিন আবহাওয়ার খবর

কালবৈশাখীর সঙ্গে বৃষ্টির সম্ভাবনা, জেনে নিন আবহাওয়ার খবর

 গত কয়েকদিন ধরেই ভ্যাপসা গরমে নাজেহাল সাধারণ মানুষ। কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলিতে বাতাসে আপেক্ষিক আর্দ্রতার আধিক্য রীতিমতো অস্বস্তিতে ফেলেছে সাধারণ মানুষকে। এই পরিস্থিতিতে প্রশ্ন উঠছিল কবে হবে স্বস্তির বৃষ্টি। অবশেষে সেই প্রশ্নের উত্তর পাওয়া গেল। আলিপুর আবহাওয়া দফতর সূত্রে খবর, বৃহস্পতিবার কলকাতা সহ উত্তর এবং দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলিতে বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

ফলে তাপমাত্রা এবং আর্দ্রতাজনিত অস্বস্তি অনেকটাই কমবে বলে মনে করা হচ্ছে।  হাওয়া অফিস সূত্রে খবর, এদিন তিলোত্তমাকে ভেজাবে ‘স্বস্তির বৃষ্টি’। এর ফলে অস্বস্তিও কিছুটা কমবে। বৃহস্পতিবার শহরের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা থাকতে পারে ৩৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা থাকতে পারে ২৮ ডিগ্রি সেলসিয়ায়।

গতকাল কলকাতার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৩.১ ডিগ্রি সেলসিয়াস, অন্যদিকে আজ শহরের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২৮.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এদিন বাতাসে আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ সর্বাধিক ৮৫ শতাংশ। আজ শহরে বজ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। বিকেলের দিকে বৃষ্টির জেরে ফিরতে পারে স্বস্তি। দিনভর দেখা পাওয়া যাবে না রোদের।

গুমোট গরমে অস্বস্তি বজায় থাকবে।  দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলিতেও আজ হতে পারে বৃষ্টিপাত। গত কয়েকদিন ধরেই আপেক্ষিক আর্দ্রতার আধিক্যের জন্য অস্বস্তি বাড়ছে। বিকেলের দিকে দক্ষিণবঙ্গের সমস্ত জেলাগুলিতেই হতে পারে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাত। ফলে অস্বস্তি অনেকটাই কমবে বলে মনে করা হচ্ছে।  আজ থেকে উত্তরবঙ্গে বাড়তে পারে বৃষ্টিপাত।

আলিপুরদুয়ার ও কোচবিহারে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির সর্তকতা। আলিপুর আবহাওয়া দফতর সূত্রে খবর, জুন মাসের ৩ তারিখ উত্তরবঙ্গে প্রবেশ করতে চলেছে বর্ষা। ফলে প্রাক বর্ষা বৃষ্টিপাতে ভিজবে উত্তরবঙ্গ। দার্জিলিং, কালিম্পং, জলপাইগুড়ি, কোচবিহার, আলিপুরদুয়ারে শনিবার থেকে ভারী বৃষ্টির সতর্কতা জারি। জানা গিয়েছে, চলতি বছর স্বাভাবিক হবে বর্ষা।

এখনও পর্যন্ত পাওয়া খবর অনুযায়ী, স্বাভাবিক বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে বলেই জানা যাচ্ছে। কয়েকদিনের মধ্যেই রাজ্যে বর্ষা প্রবেশ করতে চলেছে বলে জানাচ্ছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। অন্যদিকে, ঝাড়খণ্ডের উপর অবস্থান করছে একটি ঘূর্ণাবর্ত। আরও একটি নিম্নচাপ অক্ষরেখা রয়েছে রাজস্থান থেকে উত্তর বাংলাদেশ পর্যন্ত । যা উত্তর প্রদেশ বিহার এবং উত্তরবঙ্গের উপর দিয়ে গেছে।