সিগারেট খেয়েও ফুসফুস ভালো রাখার উপায়

সিগারেট খেয়েও ফুসফুস ভালো রাখার উপায়

সিগারেট ছাড়ার কথা ভেবে ও সিগারেট ছাড়তে পারছেন না। বাকি জীবনেও হয়তো আর সিগারেট ছেড়ে উঠতে পারবেন না। কারণ অনেক দিনের অভ্যাস ছেড়ে দেওয়া খুবই কঠিন। শরীরের ক্ষতি না চাইলে সুস্থ খাদ্যভ্যাস তৈরি করুন। যে সমস্ত খাবার শরীরে গেলে আপনার ফুসফুসের নিকোটিন পরিস্কার করে দেয়দেয় সেই সমস্ত খাবার খাদ্য তালিকায় রাখার চেষ্টা করুন। 

ব্রকোলি:– ব্রকোলি হল সবুজ রঙের ফুলকপি যা এখন যেকোনো বাজারেই পাওয়া যায়। ব্রকোলির মধ্যে আছে ভিটামিন বি-৫ ও সি। ভিটামিন বি যা সামগ্ৰিকভাবে শরীরকে সুস্থ রাখে ও ভিটামিন সি পরিপাকতন্ত্রকে ঠিক রাখে। এটি খাওয়ার ফলে রক্ত সঞ্চালন ঠিক মতো হয়। যার ফলে নিকোটিনের খারাপ প্রভাব কম পড়ে। 

আদা:– রোজ সকালে এক টুকরো কাঁচা আদা খেতে পারলে তা আপনার শরীরের জন্য খুবই উপকারী। আদা শরীর থেকে নিকোটিনজাত পদার্থ বের করে দেয় এবং শরীরকে সুস্থ রাখে। 

কালোজাম:– শরীর থেকে নিকোটিন বের করার ক্ষেত্রে কালোজাম খুবই উপকারী। এবং তা ছাড়া ও রক্ত বাড়াতে সাহায্য করে। কিন্তু এই সমস্ত ফল সব ঋতুতে পাওয়া যায় না। 

গম:–নিকোটিন শরীরে প্রবেশ করে শরীরের পেশিগুলোকে শক্ত করে তোলে। সেই কারণে গমকে  খাদ্য তালিকায় রাখা খুবই জরুরি। গমের মধ্যে আছে ভিটামিন এ যা পেশী নমনীয় করে তোলে। 

পালং শাক:– রোজ পালংশাক খাদ্য তালিকায় রাখতে পারলে খুবই ভালো হয়। পালংশাকের মধ্যে রয়েছে অত্যধিক ফলিক অ্যাসিড যা শরীর থেকে নিকোটিন বের করে দেয়। 

বেদানা:– ধূমপানে রক্তচাপ বাড়ে, তার সাথে রক্ত দূষিত ও হয়। এই সমস্ত কিছু যাতে না হয় তার জন্য বেদানা খাওয়া উচিত। বেদানা রক্ত তৈরিতেও সাহায্য করে। 

লেবু:– যেকোনো লেবুতেই রয়েছে ভিটামিন সি। যা শরীর থেকে নিকোটিন বের করতে সাহায্য করে। এছাড়া নিকোটিনের প্রভাবে ম্লান হয়ে যাওয়া ত্বককে উজ্জ্বল ও সজীব রাখে। এই খাবার খাওয়ার সাথে সাথে অত্যধিক মাত্রায় সিগারেট খাবার অভ্যাস থাকলে তা কিছুটা কমানোর চেষ্টা করুন।