ক্রমেই শক্তি বাড়িয়ে প্রবল গতিতে ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় অশনি

ক্রমেই  শক্তি বাড়িয়ে প্রবল গতিতে ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় অশনি

পুরী (Puri) থেকে আর মাত্র এক হাজার কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছে ঘূর্ণিঝড় অশনি (Cyclone Asani)। আর এই ঘূর্ণিঝড়কে সামাল দিতে যাবতীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করছে পুরীর জগন্নাথ মন্দির (Puri Jagannath Mandir) কর্তৃপক্ষ। সাইক্লোনের আতঙ্কে প্রহর গুনছে ওডিশা (Odisha)। আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাস অনুযায়ী, আগামী ১২ ঘণ্টার মধ্যে তীব্র থেকে তীব্রতর হবে সাইক্লোন।

এর জেরে সর্বোচ্চ ১০০- ১২৫ কিমি জোরে হাওয়া বইবে। আপাতত ঘূর্ণিঝড়টি অন্ধ্র এবং ওডিশা উপকূলের দিকে উত্তর-পশ্চিমে অবস্থান করছে। দক্ষিণ ওডিশা উপকূলের কাছাকাছি এসে অল্প ঘুরে অভিমুখ পরিবর্তন করবে অশনি। এরপর তার অভিমুখ হবে উত্তর ও উত্তর-পূর্ব। সেখান থেকে উপকূল বরবার এটি সমুদ্র উপকূলের সমান্তরালে এগোবে।

কী কী প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে পুরীতে?ঘূর্ণিঝড়ের জেরে আগাম সতর্কতা নেওয়া হয়েছে পুরীর জগন্নাথ মন্দির (Jagannath Temple) ও কোনারক মন্দিরে (Konark Temple)। ২০১৯ সালে সাইক্লোন ফণী যখন আছড়ে পড়েছিল, তখন ক্ষতি হয়েছিল জগন্নাথ মন্দিরে। একইসঙ্গে ২০২০ সালে আমফান এবং ২০২১ সালে ইয়াসের সময়ও জোরদার সুরক্ষা

ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছিল পুরীর মন্দিরে। রক্ষণাবেক্ষণের যাবতীয় প্রস্তুতি রাখা হয়েছে। ঝড়ে যাতে মন্দিরের কোনও ক্ষতি না হয়, তার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। প্রশাসনের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখছে জগন্নাথ মন্দির কর্তৃপক্ষ। একই ধরনের সতর্কতা নেওয়া হয়েছে কোনারক মন্দিরেও।  ভয় ধরাচ্ছে ঘূর্ণিঝড় অশনি (Cyclone Asani)। ক্রমেই শক্তি সঞ্চয় করে ধেয়ে আসছে অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড়।

ইতিমধ্যেই বাংলা ও ওড়িশার বিভিন্ন এলাকা. বৃষ্টি শুরু হয়েছে। মোতায়েন করা হয়েছে NDRF দল। আলার্ট রয়েছে ওডিশা প্রশাসনও। তবে অভিমুখ পরিবর্তনের পরই জলভাগেই দুর্বল হয়ে পড়বে এই ঘূর্ণিঝড়। এই জন্যই স্থলভাগে এসে আছড়ে পড়ার সম্ভাবনা নেই বলেই আশ্বস্ত করছে আবহাওয়া দফতর।  ওডিশার পাশাপাশি বুধ ও বৃহস্পতিবার ভারী বৃষ্টি হতে পারে পশ্চিমবঙ্গের উপকূলের জেলায়।

বাকি জেলাতে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টির সম্ভাবনা। উত্তরবঙ্গেও জেলাতেও মঙ্গলবার থেকেই বাড়বে বৃষ্টির পরিমাণ। মঙ্গলবার ১০ মে থেকে সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে মৎস্যজীবীদের। একইভাবে দিঘা,মন্দারমনি সমুদ্র তটে পর্যটকদের জন্যেও থাকবে নিষেধাজ্ঞা। ঘূর্ণিঝড় অশনির জেরে পিছিয়ে গিয়েছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের (West Bengal Chief Minister Mamata Banerjee) পশ্চিম মেদিনীপুর ও ঝাড়গ্রাম সফরও।