নদিয়া-বর্ধমান সংযোগকারী সেতুর স্প্রিং ভেঙে বিপত্তি

নদিয়া-বর্ধমান সংযোগকারী সেতুর স্প্রিং ভেঙে বিপত্তি

বিপর্যস্ত সেতুগুলির তালিকায় নাম জুড়ল নদিয়ার নবদ্বীপের গৌরাঙ্গ সেতু (Gouranga Bridge)। এই সেতুটি কৃষ্ণনগর থেকে বর্ধমান সংযোগকারী। তার স্প্রিং ভেঙে বিপত্তি। সেতুর স্প্রিং ভেঙে যাওয়ায় দুই জেলার যোগাযোগ সাময়িক বিচ্ছিন্ন। আপাতত ওই সেতুতে ভারী যানচলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছে। সেতুর স্প্রিং ভেঙে যাওয়ায় তৈরি হয়েছে ব্যাপক যানজট। দীর্ঘদিন সেতু সংস্কার না হওয়ায় এই বিপত্তি বলেই দাবি স্থানীয়দের।

স্থানীয়দের দাবি, বুধবার সকালে আচমকাই ভাগীরথী নদীর উপর অবস্থিত নবদ্বীপের গৌরাঙ্গ সেতুর একাংশ বসে যেতে দেখেন। তারপরই দেখা যায় সেতুর স্প্রিং ভেঙে গিয়েছে। তা নজর এড়ায়নি গাড়িচালকদের। খবরটি দ্রুত লোকমুখে ছড়িয়ে পড়ে। আতঙ্কিত হয়ে যান ওই সেতু ব্যবহারকারীরা। ঝুঁকির আশঙ্কায় তড়িঘড়ি নবদ্বীপ থানায় খবর দেন পথচলতিরা।

খবর পাওয়ামাত্রই পুলিশও ঘটনাস্থলে পৌঁছয়। সেতু পরিদর্শনে যান নবদ্বীপ থানার আইসি-সহ উচ্চপদস্থ প্রশাসনিক আধিকারিকরা।পরিদর্শনের পর পুলিশ বিপদ এড়াতে গৌরাঙ্গ সেতু দিয়ে ভারী যানচলাচল বন্ধ করে দেয়। তবে পথচারী এবং হালকা গাড়ি ব্রিজের উপর দিয়ে যাতায়াতে ছাড় দিয়েছে পুলিশ। গৌরাঙ্গ সেতুর স্প্রিং ভেঙে যাওয়ার ফলে ব্যাপক যানজট তৈরি হয়েছে। কৃষ্ণনগর থেকে বর্ধমান সংযোগকারী সেতুর স্প্রিং ভেঙে যাওয়ার ফলে দুই জেলার যোগাযোগ সাময়িক বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

স্থানীয়দের দাবি, বারবার নবদ্বীপের গৌরাঙ্গ সেতু সংস্কারের দাবি তোলা হয়। জানানো হয় প্রশাসনকেও। দাবিদাওয়া থাকা সত্ত্বেও দীর্ঘদিন সেতু সংস্কার হয়নি। তার ফলে স্প্রিং ভেঙে বিপত্তি ঘটেছে। সঠিক সময়ে বিষয়টি নজরে না আসলে বড়সড় বিপদ হতে পারত বলেও ক্ষুব্ধ স্থানীয়রা। সেতুতে যানচলাচল বন্ধ থাকায় কোজাগরী লক্ষ্মীপুজোর (Lakshmi Puja) সকালে ভোগান্তির শিকার হন স্থানীয়রা। অবিলম্বে সেতু সংস্কারের দাবি জানিয়েছেন তাঁরা। ব্রিজ সংস্কার করে দ্রুত যানচলাচল স্বাভাবিক করার চেষ্টা চলছে বলেই দাবি প্রশাসনিক আধিকারিকদের।