সন্ধ্যাবেলা এই কাজ করুন, বাস্তু দোষ এবং বিপদ একেবারে কেটে যাবে

সন্ধ্যাবেলা এই কাজ করুন, বাস্তু দোষ এবং বিপদ একেবারে কেটে যাবে

আজবাংলা    আমাদের দৈনন্দিন জীবনে বিভিন্ন রকম সমস্যা দেখা দেয়। যেমন আর্থিক সমস্যা, পারিবারিক সমস্যা অথবা বাসগৃহে যে কোনও রূপ সমস্যার কারণ কিছুটা হলেও সৃষ্টি হয় বাস্তুদোষ থেকে। যে কোনও জটিল পরিস্থিতি থেকে সহজে বেরিয়ে আসা সম্ভব হয় না।

অনেক সময় নানা চেষ্টার পরেও কোনও রকম সমাধান মেলে না। এই রকম সময়ে বাস্তুদোষ কাটিয়ে উঠতে কিছু সহজ উপায় অবলম্বন করতে হবে। যা বাস্তু তথা নানা বিপদের হাত থেকে মুক্তি দেবে।

কোন উপায়ে বাস্তুদোষ থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে—

নিমপাতার ধোঁয়া

বাসগৃহে সন্ধ্যাবেলা যদি ধুনোর সঙ্গে নিমপাতার ধোঁয়া দেওয়া যায় তা হলে বাস্তুদোষ অনেকাংশে কমতে দেখা যায়। বাস্তুবিদদের মতে, নিমের ধোঁয়ার বিশেষ উপকারিতা রয়েছে। বাস্তুদোষ নির্মূল করার সঙ্গে সঙ্গে পারিবারের সুখশান্তি বজায় থাকে এবং পরিবারের সকলের শরীর স্বাস্থ্য ভাল থাকে। সপ্তাহে দু’দিন এই ক্রিয়াটি করতে পারেন।

লবণ ব্যবহার করুন

যখন বাড়ি পরিষ্কার করা হয়, অর্থাৎ যখন ঘর মোছা হয় তখন সেই জলে কিছুটা লবণ মিশিয়ে নিন। এর ফলে গৃহে নেগেটিভ শক্তির প্রভাব কমে গিয়ে পজিটিভ এনার্জি বৃদ্ধি পাবে ও বাস্তুদোষও কেটে যাবে। এ ছাড়া ঘরের এক কোণে একটি পাত্রে কিছুটা লবণ রেখে দিন।

ঠাকুরের স্থান

শোওয়ার ঘরে যদি ঠাকুর রাখা হয় তা হলে বাড়িতে অত্যন্ত বাস্তুদোষ সৃষ্টি হয়। যদি একান্তই কোনও উপায় না থাকে, শোওয়ার ঘরে ঠাকুর রাখতেই হয়, তা হলে রাতে অবশ্যই পর্দা দেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। এ ছাড়া ঘরে যদি ভাঙা ঠাকুরের মূর্তি রাখা হয় এতেও বাস্তুদোষ সৃষ্টি হয়।

ঘরে রাখার গাছ

যে সব গাছ ঘরে রাখা হয় তার মধ্যে যে কোনও একটি গাছ অবশ্যই ঘরে রাখুন। ঘরে রাখার গাছ যে শুধুমাত্র শরীর ভাল রাখে তা নয়, এটি বাস্তুদোষ কাটিয়ে তুলতেও সাহায্য করে।