বিছুটি পাতার এই উপকারি দিকগুলি জানেন ?

বিছুটি পাতার এই উপকারি দিকগুলি জানেন ?

বিছুটি পাতা, এই নামটির সঙ্গে আমরা সকলেই পরিচিত। বিছুটি (বৈজ্ঞানিক নাম: Tragia involucrata - ত্রাজিয়া ইনভোলুক্রাতা) হলো ইউফোরবিয়াসেই পরিবারের একটি উদ্ভিদ। বিছুটি কে উত্তর বঙ্গের লোকেরা ছোতরা পাতার গাছ/ছোতরা গাছ/চুলচুইল্লাগাছ বলে ডাকে। তবে এর শুদ্ধ নাম বিছুটি গাছ। এটি এমন একপ্রকার উদ্ভিদ যার পাতা/রস/পাতার গুড়ো শরীরে লাগলে শরীর চুলকানি শুরু হয়।ঝোপ ঝাড়ে জন্মায় এই গাছ ।

বিছুটি পাতা নামটা শুনলেই আমাদের মাথায় প্রথম যে কথাটা আসে তা হল এক বার গায়ে লাগলে আর রক্ষে নেই।  বিছুটি পাতার সঙ্গে রাসায়নিক  সংমিশ্রণ শরীরের জন্য ক্ষতিকর। তাই ব্যবহার করার আগে এই পাতা ভালো করে শুকিয়ে নিয়ে ব্যভার করাই ভালো । তবে জানেন কি এই পাতার অনেক উপকারিতাও আছে। এই পাতার মধ্যে রয়েছে ফ্যাট , আয়রন ,  পটাসিয়াম , ম্যাগনেসিয়াম,  প্রোটিন সহ নানান উপাদান। এই পাতার নির্যাস ওষুধ তৈরি করতে কাজে লাগে এবং বড় বড় অসুখ সারাতেও এই পাতা কাজ করে। এছাড়াও নানা গুনাগুন আছে এই পাতায়।জানুন সেগুলো কি......

ধুলোবালির কারণে শ্বাসকষ্ট হয় বা কোনোরকম এলার্জি হয় , খাবারের প্রতি অরুচি তৈরি হয় তাহলে এই পাতার রস এই ধরণের সমস্যা ঠেকাতে সাহায্য করে।  সর্দি , কাশি ,জ্বরে মুখের স্বাদ ফিরিয়ে আনতেও দারুণ কার্যকরী বিছুটি পাতা। এটি অ্যান্টি ইনফ্ল্যামেটরি এবং অ্যান্টি অ্যালার্জিক উপাদান সমৃদ্ধ। হাঁপানির সমস্যা থেকেও মুক্তি দেয় এই পাতা।মূত্রনালি সংক্রমণ যার ফলে পেটে ব্যথা, খিঁচুনি , প্রস্টেটের সমস্যা,  ইত্যাদি নানান সমস্যা থেকেও নিরাময় দেয় এই বিছুটি পাতা । বিছুটি পাতা শারীরবৃত্তীয় প্রক্রিয়া স্বাভাবিক এবং সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।

পেটের ক্ষত সারাতে মোক্ষম দাওয়াই এই পাতার রস , এছাড়াও আলসার নিরাময়ে বিভিন্ন ওষুধ তৈরিতে বিছুটি পাতার উপাদান ব্যবহার করা হয়।  এই পাতার মধ্যে রয়েছে উপকারী হেপাটো প্রটেক্টিভ,  অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, শরীরকে বিভিন্ন রোগজীবাণু থেকে রক্ষা করে।রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে বিছুটি পাতার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে, রক্ত শুদ্ধ রাখে। এর হাইপার গ্লাইসেমিক বৈশিষ্ট্যে অনেক কম তাই ডায়াবেটিস নিরাময়েও সাহায্য করে।হার্ট এবং লিভারের স্বাস্থ্য সুরক্ষিত রাখে।