দোতারা হাতে জাতীয় মঞ্চ মাতাচ্ছে নদীয়ার করিমপুরের প্রাঞ্জল

দোতারা হাতে জাতীয় মঞ্চ মাতাচ্ছে নদীয়ার করিমপুরের প্রাঞ্জল

আলো ঝলমলে মঞ্চে দোতারা হাতে গান গাইছে একরত্তি ছেলেটা। কণ্ঠ উজাড় করে ছেলেটি গাইছে, ‘আমার মন মজাইয়ারে দিল মজাইয়া মুরশিদ নিজের দেশে যাও…’, কখনও তাঁর গলায় ‘আমায় ভাসাইলি রে ডুবাইলি রে’। তাঁর গানে সত্যি ডুব দিয়েছে গোটা দেশ। কথা হচ্ছে নদিয়ার ছেলে প্রাঞ্জলের। এর আগে স্টার জলসার রিয়ালিটি শো-এর মঞ্চে দর্শক দেখেছে এই খুদে বাউলকে।

আর এবার হিমেশ রেশমিয়া, জাভেদ আলি, অলকা ইয়াগনিকদের সামনে অনায়াসে দোতারা নিয়ে গেয়ে চলেছে প্রাঞ্জল। প্রতি সপ্তাহে নতুন করে মুগ্ধতা ছড়াচ্ছে। ‘সুপারস্টার সিঙ্গার’-এর মঞ্চ মোহিত প্রাঞ্জলের মেঠো সুরে। গত সপ্তাহে রিয়ালিটি শো-এর মঞ্চে প্রাঞ্জল জানানো জীবনকে বাঁচতে হয়, মন খুলে বাঁচতে হয়।

এদিন জসীমুদ্দিনের ‘জ্বালাইয়া চাঁন্দেরও বাতি, আমি জেগে রব সারারাতি গো…’ শোনা গেল নদীয়ার করিমপুরের প্রাঞ্জল গলায়। এই গান গাইতে গাইতে সে ধরে এস ডি বর্মনের ‘ওহান কৌন হ্যায় তেরা’ গানটি, দারুণ সাড়া ফেলে তাঁর এই অভিনব পরিবেশন। আজীবন গানের সাধনা করতে চায় প্রাঞ্জল, বড় হয়ে ফকির হওয়াই তাঁর লক্ষ্য। আসলে এই খুদের গানের জগতে প্রবেশের গল্পটাও বেশ মনমুগ্ধকর।

একদিন হারিয়ে যাওয়া সাইকেল খুঁজতে খুঁজতে এক ফকির বাবার সাথে আলাপ হয় প্রাঞ্জলের। সেই ফকিরবাবাই ওর হাতে তুলে দেয় দোতারা। আর সেটাই এখন সবসময়ের সঙ্গী। এইবার শো-তে  প্রতিযোগীদের মেন্টরের ভূমিকায় রয়েছেন অরুণিতা কাঞ্জিলাল, পবনদীপ রাজন, সায়লি কাম্বলে, দানিশ আর সালমন আলী।

সলমনের টিমের অংশ নদিয়ার প্রাঞ্জল। চলতি সিজনের সবচেয়ে আলোচিত প্রতিযোগি সে। প্রায় দু' বছরের বিরতির পর ছোট পরদায় ফিরছে ‘সুপার সিঙ্গার সিজন ২’। প্রথম সিজন জিতেছিল কলকাতার প্রীতি ভট্টাচার্য। এবারও কি প্রাঞ্জলের হাত ধরে বাংলার ঘরেই ট্রফি আসবে? শুরু থেকেই ইঙ্গিত তেমনই!