বিশ্বের গভীরতম সুইমিংপুল দেখতে পাবেন এখন দুবাইয়ে

বিশ্বের গভীরতম সুইমিংপুল দেখতে পাবেন এখন দুবাইয়ে

পর্যটনের পীঠস্থান হিসাবে জনপ্রিয় দুবাই পর্যটন মানচিত্রে বিশেষ জায়গা করে নিয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু ভবন ‘বুর্জ খলিফা’সহ আরো নানা রকমের আকর্ষণীয় স্থান। সেই তালিকায় নবতম সংযোজন এখন এই পুল। এই সুইমিং পুলকে বিশ্বের গভীরতম পুল হিসেবে অ্যাখ্যায়িত করা হয়েছে। দুবাইের মানচিত্রে বিশ্বের সবচেয়ে বিশাকার বিল্ডিং বুর্জ খলিফা রয়েছে।

এবার মানচিত্রে যোগ হয়েছে ডিপ ডাইভ দুবাই। দুবাইয়ে তৈরি হয়েছে বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে গভীর সুইমিং পুল।১৯৭ ফুট অর্থাত ৬০ মিটার গভীর এই সুইমিং পুল এখন এতটাই গভীর যে মোট ৬টি অলিম্পিক সুইমিং পুলের সমান। অলিম্পিক সুইমিং পুল সাধারণত সাধারণ পুলের চেয়ে ১৫ মিটার গভীর হয়। ফলে এই দুবাইয়ের সুইমিং পুল কতটা গভীর ধারণা করতেই পারছেন। এর আগে সবচেয়ে গভীরতম পুল ছিল পোল্যান্ডের ডিপস্পটের কাছে। এর গভীরতা ৪৫ মিটার। 

দুবাইয়ের ডিপ ডাইভ পুলে রয়েছে এক কোটি ৪০ লাখ লিটার বিশুদ্ধ পানি। এই পরিমাণ পানি দিয়ে ছয়টি অলিম্পিক সুইমিং পুল ভরে ফেলা যাবে। গত ২৭ জুন এটি ‘ডাইভিংয়ের জন্য গভীরতম সুইমিং পুল’ হিসেবে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে স্থান করে নিয়েছে।পুলের নীচে রয়েছে আস্ত একটা শহর। এমনই আদলে তৈরি করা হয়েছে। সাঁতারুরা এ ঘর থেকে ও ঘরে যেতে পারবেন। সুইমিং পুলের নীচে রয়েছে আধুনিক সব রকম ব্যবস্থা। রয়েছে বিলিয়ার্ড খেলার জায়গা, লাইব্রেরি, রেস্তরাঁ, কনফারেন্স রুম-সহ নানাবিধ আধুনিক সুবিধা। 

সুইমিং পুলের ভিতরে ৫৬টি ক্যামেরা রয়েছে। যে কোনও অ্যাঙ্গল থেকেই পুলের নীচের সব দৃশ্য ধরা পড়বে। রয়েছে লাইট অ্যান্ড সাউন্ড সিস্টেম। ডিপ ডাইভ-এর আয়োজকরা জানিয়েছেন, জলের স্বচ্ছতা বজায় রাখতে প্রতি ৬ ঘণ্টা অন্তর তা ফিল্টার করা হয় সিলিসিয়াস আগ্নেয় পাথরের মাধ্যমে। নাসা এই ফিল্টার প্রযুক্তি তৈরি করেছে। জুলাইয়ের শেষের দিক থেকে পর্যটকদের জন্য এই পুল খুলে দেওয়া হবে।

১০ বছর এবং তার বেশি বয়সিদের জন্য খুলে দেওয়া হবে এই পুল। আন্তর্জাতিক মানের ডাইভিং বিশেষজ্ঞদের একটি দল উৎসাহীদের সাহায্য করার জন্য প্রস্তুত রাখা হয়েছে।বছরের শেষে সেখানে খুলে যাবে রেস্তরাঁ, রকমারি দোকানও। এই পুলে ডুব দিতে কত খরচ হবে? এখনও পুরোপুরি জানা না গেলেও মনে করা হচ্ছে এক বার ডুব দিতে খরচ হতে পারে ১৭ হাজার টাকার কাছাকাছি।