টাইগার উডসকে হারিয়ে অগস্টা মাস্টার্স জিতে নিলেন ডাস্টিন জনসন

টাইগার উডসকে হারিয়ে অগস্টা মাস্টার্স জিতে নিলেন ডাস্টিন জনসন

টাইগার উডসকে হারিয়ে অগস্টা মাস্টার্স জিতে নিলেন ডাস্টিন জনসন। গত বছর উডস যখন পঞ্চম বার মাস্টার্স জিতছেন তখন অল্পের জন্য রানার্স হয়েছিলেন ডাস্টিনকে। এ বার সেই কাপ আর ঠোঁটের ফারাক মুছে ফেললেন তিনি। প্রসঙ্গত, আমেরিকার জর্জিয়া প্রদেশের অগস্টা শহরের এই টুর্নামেন্টকে বলা হয় গল্ফে বিশ্বের অন্যতম সেরা মিট।

বিশ্বের এক নম্বর হলেও এত দিন যে কাপ অধরাই ছিল ডাস্টিনের। আমেরিকার এই গল্ফার শুধু জিতলেনই না, রেকর্ড গড়ে জিতলেন। টুর্নামেন্টের ইতিহাসে সেরা স্কোর (২৬৮) করে গড়লেন নতুন রেকর্ড। গত বছরের বিজয়ী টাইগারের হাত থেকে পরে নিলেন ঐতিহ্যবাহী সবুজ ব্লেজার। ঘটনা হল, ২০১৯ সালে টাইগারের জয় আজও স্মরণীয় গলফপ্রেমীদের কাছে।

১৪ বছর পর মাস্টার্স জিতেছিলেন তিনি। ৪৪ বছরের টাইগারের কাছে এই জয় যেন ফিনিক্স পাখির মতো ফিরে আসা। কারণ, একাধিক চোটে জর্জরিত টাইগারের বারবার অস্ত্রপচার হয়েছিল। বারংবার চেষ্টা করেছিলেন ফিরে আসতে, কিন্তু ব্যর্থ হচ্ছিলেন। সমালোচকরা বলেছিলেন, টাইগারের কেরিয়ার হয়তো শেষ।

ঘটনা হল, টাইগারের সেই লড়াই সে বার সামনে থেকে দেখেছিলেন ডাস্টিন। সেখান থেকেই হয়তো অনুপ্রেরণা পেয়ে গিয়েছিলেন এ বারের সাফল্যের। অগস্টা মাস্টার্সে জয় যে কোনও গল্ফারের কাছেই স্বপ্ন। আর সেই জয়ের পর যদি সবুজ ব্লেজার পরিয়ে দেন টাইগার তবে যেন সাফল্য আরও কিছুটা বাড়তি মাত্রা পায়।

ব্লেজার গায়ে চাপিয়ে বেশ উত্তেজিত জনসন বলেন, 'আমি সারা জীবন এই ব্লেজার পরার স্বপ্ন দেখেছি।' কিছু পরে তিনি যোগ করেন, 'মাস্টার্স জেতা, টাইগারের হাত থেকে ব্লেজার পরা যেন স্বপ্ন মনে হচ্ছে। কিন্তু অসাধারণ লাগছে, দারুণ উত্তেজিত আমি।' বস্তুত, জনসনকে বলা যেতে পারে অগস্টার ঘরের ছেলে। মাত্র ৮০ মাইল দূরে দক্ষিণ ক্যারোলিনার কলম্বিয়া শহরে জন্ম তাঁর।

৩৬ বছরের এই গলফার টুর্নামেন্টের শেষ দিনে বেশ নার্ভাস ছিলেন। তিনি বলেন, 'বুঝতে পারছিলাম জয়ের খুব কাছে এসে পড়েছি। অগস্টা মাস্টার্স এমন একটা টুর্নামেন্ট যা জেতার জন্য মুখিয়ে ছিলাম। যে ভাবে নিজেকে সামলেছি এবং শেষ করতে পেরেছি এই টুর্নামেন্ট, তাতে গর্বিত।' টাইগারের পরে তিনিই প্রথম বিশ্বের এক নম্বর গল্ফার যিনি মাস্টার্স জিতেছেন।

২০০২ সালে এই রেকর্ড গড়েছিলেন টাইগার। এ বারের টুর্নামেন্টটা যদিও একদমই ভাল যায়নি তাঁর। শেষ দিনের আগেই বুঝে গিয়েছিলেন যে জয় বেশ কঠিন। স্বীকারও করে নেন যে, হাওয়ার দিক ভুল বুঝিয়েই ডুবতে হল তাঁকে। নিজের কেরিয়ারের সব থেকে খারাপ স্কোর করলেন তিনি এ বারের টুর্নামেন্টে।

দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দেখলেন তাঁর চেয়ে প্রায় ৮ বছরের তরুণ এক গলফার অবলীলায় জিতে নিলেন মাস্টার্স। বয়স কি তবে থাবা বসাচ্ছে টাইগারের ওপর? নাকি এটা শুধুই একটা খারাপ দিন? আবার কি আগের চেয়েও শক্তিশালী হয়ে ফিরে আসবেন গলফের ফিনিক্স পাখি? সময়ই জানে এর উত্তর।