সাংবাদিক বৈঠকে শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু স্কুল-কলেজ খোলা নিয়ে যা বললেন

সাংবাদিক বৈঠকে শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু স্কুল-কলেজ খোলা নিয়ে যা বললেন

স্কুল-কলেজ খোলার (Bratya Basu| WB School Reopening) ক্ষেত্রে আগেই আগ্রহ প্রকাশ করেছে রাজ্য। তবে পুরোটাই নির্ভর করছে কোভিড (Covid-19) পরিস্থিতির উপর। "মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (CM Mamata Banerjee) গোটা রাজ্যের স্বাস্থ্য পরিকাঠামোর নজরে রেখেছেন। করোনা পরিস্থিতি বিবেচনা করে তিনি যেমন পরামর্শ দেবেন সেই অনুযায়ী পদক্ষেপ শিক্ষা দফতর", রাজ্যের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে রবিবার এমনটাই জানালেন রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু (Bratya Basu| WB School Reopening)।

রবিবার দমদম বিধানসভা কেন্দ্রে একটি সাংবাদিক বৈঠকে হাজির ছিলেন দমদমের বিধায়ক ব্রাত্য বসু। এদিন সাংবাদিকদের প্রশ্নের মুখে শিক্ষামন্ত্রী (Bratya Basu| WB School Reopening) বলেন, "কোভিড পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে এই বিষয়ে মুখ্যমন্ত্রী (CM Mamata Banerjee) সিদ্ধান্ত নেবেন। তাঁর সিদ্ধান্ত মোতাবেক খুলবে স্কুল কলেজ ।" প্রসঙ্গত, পুজোর পর স্কুল খোলার সম্ভাবনা রয়েছে বলে আগেই ঘোষণা করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী (CM Mamata Banerjee)।

কালীপুজোর পর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলতে পারে বলে ভাবছিল শিক্ষাজগত্‍। মুখ্যমন্ত্রী তখন জানিয়েছিলেন, খোলার আগে অবশ্য তত্‍কালীন করোনা পরিস্থিতি বিচার করে তবেই সিদ্ধান্ত নেবে সরকার। দুর্গাপুজো মিটে যাওয়ার পর স্বাভাবিকভাবেই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার (Bratya Basu| WB School Reopening) বিষয়ে আগ্রহ তৈরি হয়েছে মানুষের মধ্যে। এদিন তারই উত্তর দিয়েছেন ব্রাত্য বসু।

তাঁর বক্তব্য, "আমাদের কাছে প্রধান বিবেচ্য বিষয় স্বাস্থ্যবিধি। স্বাস্থ্যের বিষয়টি বিবেচনা করে মুখ্যমন্ত্রী(CM Mamata Banerjee) চূড়ান্ত নির্দেশ দেবেন। তিনি গোটা রাজ্যের স্বাস্থ্য পরিকাঠামোর সম্পর্কে সবথেকে বেশি ওয়াকিবহাল। তাঁর নজরদারিতেই রয়েছে গোটা রাজ্যের স্বাস্থ্য পরিস্থিতি। তা দেখে তিনি যে মুহূর্তে নির্দেশ দেবেন আমরা সেই অনুযায়ী কাজ করব। যে সিদ্ধান্ত গৃহীত হবে তা ধাপে ধাপে সকলকে জানিয়ে দেওয়া হবে।"

এদিন শিক্ষামন্ত্রীর বক্তব্যে সাম্প্রতিক রাজনৈতিক বিষয়ও উঠে এসেছে। বিজেপি ধর্মীয় বিভাজন তৈরি করে রাজনৈতিক ফায়দা তোলার চেষ্টা করছে। কিন্তু রাজ্যের মানুষ তা প্রত্যাখ্যান করেছেন। এই তাস খেলে নির্বাচনে হেরেছে তাঁরা। এখনও যদি এই রাজনীতি করে চলে তাহলে মানুষ তার জবাব দেবেন বলে মনে করেন ব্র‌াত্যবাবু। তাঁর বক্তব্য, আসন্ন পুরসভা, পঞ্চায়েত এবং লোকসভা নির্বাচনে বিভাজনের রাজনীতির কুফল টের পাবে বিজেপি।