ন'বছরেই লক্ষ কোটির সংস্থার মালিক ফাল্গুনী

ন'বছরেই লক্ষ কোটির সংস্থার মালিক ফাল্গুনী

ইনভেস্টমেন্ট ব্যাঙ্কারের দায়িত্বপূর্ণ পদ ছেড়ে ২০১২ সালে যখন তিনি ফ্যাশন ও সৌন্দর্যপণ্যের অনলাইন বিপণি তৈরি করেছিলেন, তখন দেশে ই-কমার্স সদ্য জনপ্রিয় হচ্ছে। সেগুলির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে ন'বছরের মধ্যে শেয়ার বাজারে পা রাখল ফাল্গুনী নায়ারের সংস্থা এফএসএন ই-কমার্স ভেঞ্চার্চ। বস্তুত, তার দুই শাখা সংস্থা নায়কা এবং নায়কা ফ্যাশনই বহুল পরিচিত।

আর প্রথম দিনেই সংস্থার শেয়ার সম্পদ পার করে ফেলল ১ লক্ষ কোটি টাকার গণ্ডি। ওয়াকিবহাল মহলের দাবি, নায়কাই ভারতের প্রথম মহিলা পরিচালিত ইউনিকর্ন স্টার্ট-আপ (শেয়ারমূল্য ১০০ কোটি ডলার বা বেশি), যেটি বাজারে নথিভুক্ত হল। আর শেয়ার দরের হাত ধরে ব্যক্তিগত উদ্যোগে উঠে আসা মহিলা কোটিপতিদের তালিকায় ফাল্গুনীর স্থান হল একেবারে প্রথম সারিতে। যেখানে রয়েছেন বায়োকনের কিরণ মজুমদার শ', বাইজু'সের দিব্যা গোকুলনাথ।

বাজারে প্রথম শেয়ার ছাড়ার সময়ে (আইপিও) ফাল্গুনীর সংস্থার শেয়ারের দাম ঠিক হয়েছিল ১১২৫ টাকা। তা কিনতে আবেদন জমা পড়েছিল আইপিও-র আকারের ৮২ গুণ। বুধবার সকালে বাজারে নথিভুক্তির সঙ্গে সঙ্গে সেই দর পার করে ২০০১ টাকা। দিনের শেষে দাম দাঁড়ায় ২২০৬.৭০ টাকা। অর্থাত্‍, শুরুর দামের চেয়ে ৯৬.১৫% বেশি। শেয়ার সম্পদ হয় ১,০৪,৪৩৮.৮৮ কোটি টাকা।

পারিবারিক ট্রাস্টের মাধ্যমে সংস্থার প্রায় অর্ধেক অংশীদারি রয়েছে ফাল্গুনীরই হাতে। ফলে শেয়ারমূল্যের হাত ধরে ফাল্গুনীর নিজের সম্পদ পৌঁছে গিয়েছে ৫০ হাজার কোটি টাকার কাছাকাছি। তাঁর দুই ছেলে-মেয়েও সংস্থার অন্যতম প্রোমোটার। নায়কা বিক্রি করে দেড় হাজার ব্র্যান্ডের প্রায় চার হাজার রকমের ফ্যাশন ও সৌন্দর্য পণ্য। ওয়েবসাইট, অ্যাপের পাশাপাশি, সারা দেশে ৮০টি সাধারণ বিপণি রয়েছে তাদের।

রয়েছে নিজেদের ব্র্যান্ডের পণ্যও। অনেকের বক্তব্য, শেয়ার বাজারে পা রাখার আগে থেকেই নায়কা লাভজনক সংস্থা। যা স্টার্ট-আপের ক্ষেত্রে বিরল। আবার মুম্বইয়ের সিনেমা জগতের সঙ্গেও নায়কার যোগসূত্র রয়েছে। ক্যাটরিনা কাইফ সংস্থার একটি ব্র্যান্ডের অন্যতম মালকিন। আলিয়া ভট্ট অন্যতম লগ্নিকারী।

এ দিন এনএসই-তে ফাল্গুনীর পরিবারের সঙ্গে ক্যাটরিনাও উপস্থিত ছিলেন। ওয়াকিবহাল মহল মনে করাচ্ছে, কোটাক মহিন্দ্রা ব্যাঙ্কে ১৮ বছর কাজ করার পরে ইনভেস্টমেন্ট ব্যাঙ্কারের চাকরি ছাড়ার সময়ে ফাল্গুনী ছিলেন কেরিয়ারের মধ্যগগনে। সে দিনের ঝুঁকি নেওয়ার ক্ষমতা ও উদ্ভাবনী দক্ষতার স্বীকৃতিই এ দিন পেলেন তিনি।