জেনে নিন এলপিজি গ্যাস সিলিন্ডার সংক্রান্ত কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য

জেনে নিন এলপিজি গ্যাস সিলিন্ডার সংক্রান্ত কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য

আজবাংলা    এখন প্রায় সব বাড়িতেই ব্যবহৃত হয় রান্নার গ্যাসের এলপিজি সিলিন্ডার। গ্যাস জ্বালানোর পর এলপিজির মধ্যে স্ফুটন হয়। ফলে গ্যাস জ্বলতে থাকে ৪২ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেডে। এই এলপিজির সম্বন্ধে রয়েছে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ন তথ্য যা হয়ত আমরা অনেকেই জানি না।

চলুন জেনে নেওয়া যাক সেগুলি কি কি। সাথে দেখে নিন কি ভাবে গ্যাসে আগুন লেগে গেলে তা আপনি ঘরোয়া পদ্ধতিতে খুব সহজেই নিভিয়ে ফেলতে পারেন।  অনেক সময়ই দেখা গিয়েছে যে বেশ কয়েকদিনের জন্য বাইরে যেতে হচ্ছে ৷ কিন্তু বাড়িতে ভর্তি এলপিজি গ্যাস সিলিন্ডার রয়েছে ৷

স্বাভাবিক ভাবেই তখন প্রশ্ন ওঠে যে বাড়িতে ভর্তি গ্যাস সিলিন্ডার কতদিন পর্যন্ত রাখা যেতে পারে ৷ এবং এত দীর্ঘ সময় পর্যন্ত গ্যাস রাখলে কোনও বিপদ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে কিনা ৷ভর্তি এলপিজি সিলিন্ডার রাখলে চিন্তার কোনও কারণ নেই ৷ কেবল কিছু সর্তকতা বিধি মেনে চলতে হবে ৷ ভর্তি সিলিন্ডারের আয়ু বেশি হয়ে থাকে ৷

এবং দীর্ঘ সময় পর্যন্ত তা সুরক্ষিত থাকে ৷ তবে গ্যাসোলিন ও ডিজেল ফুয়েল লম্বা সময় পর্যন্ত রাখতে পারবেন না ৷বিশেষজ্ঞদের মতে আপনি লম্বা সময় পর্যন্ত সিলিন্ডার রাখতে হবে ৷ তবে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে কতটা গ্যাস ভর্তি রয়েছে এবং তার কোয়ালিটি কেমন ৷ সাধারণত ১০ বছর পর গ্যাস সিলিন্ডার রিসাইকেল করা হয় ৷

১০ বছর পর গ্যাস সিলিন্ডারের কোয়ালিটি চেক করানো হয় ৷ সব ঠিক থাকলে গ্যাস আরও লম্বা সময় পর্যন্ত চলবে ৷ সিলিন্ডারের উপরে ইন্সপেকশন ডেট অবশ্যই চেক করে নেবেন ৷দীর্ঘ সময় পর্যন্ত সিলিন্ডার রাখতে হলে কী করবেন? এর জন্য রেগুলেটর খুলে উপরে ক্যাপের সিল লাগিয়ে শুকনো জায়গায় রাখতে হবে ৷ তাহলে গ্যাস সুরক্ষিত থাকবে ৷ আগুন বা জল থেকে দূরে রাখবেন গ্যাস 

1. সিলিন্ডারের রঙ কেন লাল রঙের হয়?

এলপিজি অর্থাত্‍ আমাদের বাড়িতে থাকা রান্নার গ্যাসের সিলিন্ডারের রঙ থাকে লাল। কারণ লাল রঙ অনেক দূর থেকে সকলের নজরে পারে। ফলে সিলিন্ডার ভর্তি পরিবহন রাস্তায় থাকলে অন্যান্য পরিবহন যান গুলি অনেক দূর থেকেই সিলিন্ডার ভর্তি যান দেখতে পায়। ফলে দুর্ঘটনা এড়ানো যায়।

২. এলপিজি গ্যাসে গন্ধ হয় কেন?

বাড়িতে রান্নার গ্যাসের সিলিন্ডার থেকে গ্যাসের গন্ধ পাওয়া যায় তীব্রভাবে। কিন্তু বাড়িতে ব্যবহৃত রান্নার গ্যাস অর্থাত্‍ এলপিজি আসলে কিন্তু গন্ধহীন। কিন্তু গ্যাস সিলিন্ডার এলপিজি গ্যাস ভরার সময় ইচ্ছাকৃতভাবে ইথিল মারক্যাপ্টন নামে একটি গন্ধক ইচ্ছাকৃতভাবে মেশানো হয়, যাতে কোনওভাবে ওই গ্যাস লিক হলে যাতে গন্ধের দ্বারা তা বোঝা যায়। এতে বিপদ এড়ানো যায়।

3. সিলিন্ডারের নীচে কেন গর্ত থাকে?

গ্যাসের সিলিন্ডারের নীচে গর্ত থাকে তা লক্ষ্য করলেই বোঝা যায়। ওই গর্ত থাকারণ কারণ সিলিন্ডারের নীচে জঞ্জাল জমলে যাতে তা বোঝা যায়। এছাড়াও রান্না ঘরের মেঝেতে পরিস্কার করার সময় বা অন্যান্য কারণে জল পরে গেলে যাতে সিলিন্ডারের কোনও ক্ষতি না হয় সে কারণেও থাকে ওই গর্ত।

4. গ্যাসের সিলিন্ডারের আকৃতি একই হয়?

আমাদের বাড়িতে যে গ্যাস সিলিন্ডারগুলি আসে লক্ষ্য করলে দেখা যাবে সেগুলির আকার বৃত্তাকার বা নলাকার হয়। সব জায়গাতেই এই এক ধরনেরই সিলিন্ডার সরবরাহ করা হয়ে থাকে।

5. এলপিজি গ্যাস ঠিক কি?

এলপিজি কি? এলপিজি আসলে তরল পেট্রোলিয়াম গ্যাস। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এটি বিউতেন বা প্রোপেন হয়। এই এলপিজি আসলে হাইড্রোকার্বন গ্যাসের জ্বলন্ত মিশ্রণ। যা রান্নার পাশাপাশি যানবহনের জ্বালানি হিসেবেও ব্যবহৃত হয়ে থাকে।

6. গ্যাসের ওজন ঠিক কি?

একটি খালি এলপিজি গ্যাস সিলিন্ডারের ওজন প্রায় ১৫.৩ কেজি। সিলিন্ডারে গ্যাসের পরিমান থাকে ১৪.2 কেজি। তাই গ্যাস ও সিলিন্ডারের ওজন মিলিয়ে একটি ভর্তি সিলিন্ডারের ওজন হয় মোট ২৯.৫ কেজি। তবে সব ক্ষেত্রেই এই ওজন নির্ভর করে প্রস্তুতকারক সংস্থার ওপর।