Saraswati Puja | সরস্বতী পুজোর নিয়মাবলী ও জেনে নিন নির্ঘণ্ট

Saraswati Puja | সরস্বতী পুজোর নিয়মাবলী ও জেনে নিন নির্ঘণ্ট

মাঘ মাসের পঞ্চমী তিথিতে পালিত হয় সরস্বতী পুজো। ‘ওঁ জয় জয় দেবী চরাচর সারে, কুচযুগ শোভিত মুক্তা হারে। বীণা রঞ্জিত পুস্তক হস্তে, ভগবতী ভারতী দেবী নমস্তুতে।।’ বিদ্যা, জ্ঞান, সঙ্গীতের দেবী সরস্বতী। শ্বেত পদ্মে উপবেশিত এক হস্তে পুস্তক, অন্য হস্তে বীণা। হাতে বীণা থাকার কারণে দেবী বীণাপাণি। বৈদিক যুগে অবশ্য দেবীর চার বাহুর উল্লেখ পাওয়া যায়।

হস্তে পুস্তক, জপমালা, জলের পাত্র এবং বীণা ধারণের উল্লেখ পাওয়া যায়। পুস্তক বিদ্যা, জপমালা জ্ঞান, জলের পাত্র সৃষ্টি এবং বীণা সঙ্গীতের প্রতীক। বসন্ত পঞ্চমীতে অভ্র, আবীর, আমের মুকুল, যবের শীষ, দোয়াত কলম সহযোগে দেবী সরস্বতীর পূজার রীতি। আগামী ৫ ফেব্রুয়ারি, ২২ মাঘ শনিবার সরস্বতী পূজা।  দেশের বিভিন্ন রাজ্য়ে এই দিনটি বসন্ত পঞ্চমী হিসেবে পরিচিত। এই দিন থেকে শীত ঋতুর অবসানে বসন্তের শুভ আগমন বার্তা ধ্বনিত হয়। বসন্ত পঞ্চমী তিথিতেই ব্রহ্মার মুখ গহ্বর থেকে সরস্বতীর সৃষ্টি বলে পুরাণে বর্ণিত আছে। সেই কারণে এই দিনে সরস্বতী পুজোর বিধান রয়েছে শাস্ত্রে।

সরস্বতী পুজোর ঠিক ৪০ দিন পরে পালিত হয় দোল উত্‍সব। মাঘ মাসের শুক্লপক্ষের পঞ্চমী তিথি, অর্থাৎ চলতি বছর শনিবার, ৫ ফেব্রুয়ারি সরস্বতী পুজো হবে। এদিন সকাল ৩টে ৪৭ মিনিট থেকে পঞ্চমী তিথি শুরু হবে। রবিবার, ৬ ফেব্রুয়ারি সকাল ৩টে ৪৬ মিনিট পর্যন্ত পঞ্চমী তিথি থাকছে। সূর্যোদয়ের পর ও পূর্বাহ্নের আগে সরস্বতী পুজো করা হয়ে থাকে।

 কৃষি নির্ভর আমাদের দেশে এই সময় থেকেই শুরু হয় সর্ষে রোপণ। তাই কৃষিকাজের ক্ষেত্রেও বসন্ত পঞ্চমী তিথিটি অত্যন্ত উল্লেখযোগ্য। হিন্দু মতে দেবী সরস্বতী হলেন বিদ্যা, জ্ঞান, শিল্পকলা, সঙ্গীত ও সাহিত্যের অধিষ্ঠাত্রী দেবী। সরস্বতী পুজোর দিন শিশুদের হাতেখড়ি দেওয়ার অনুষ্ঠান প্রচলিত আছে। এদিন থেকেই অনেক শিশু তাদের প্রথম অক্ষর লেখে।

সরস্বতী পুজোর দিন সকালে গায়ে নিম ও হলুদ বাটা মেখেও স্নান করেন অনেকে। আগেকার দিনে এই সময় বসন্ত রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিত। সেই কারণেও নিম ও হলুদ বাটা মেখে স্নান করা এই সময় উপকারী। বাগদেবী, বিরাজ, সারদা, ব্রাহ্মী, শতরূপা, মহাশ্বেতা, পৃথুধর, বকেশ্বরী সহ আরো অনেক নামেই দেবী ভক্তের হৃদয়ে বিরাজমান। সকালে স্নান সেরে সাদা বা হলুদ পোশাক পরে সরস্বতী পুজোর জন্য প্রস্তুত থাকার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

সরস্বতী পুজোর মন্ত্র   মূলত, পুষ্পাঞ্জলী দেওয়ার সময় সরস্বতী পুজোর যে মন্ত্র রয়েছে, তার মধ্যে এই অংশটি তাৎপর্যপূর্ণ, ' সরস্বতী মহাভাগে বিদ্যেকমললোচনে, বিশ্বরূপে বিশালাক্ষী বিদ্যাং দেহি নমস্ত‌ুতে। জয় জয় দেবী চরাচর সারে, কুচযুগশোভিত মুকতাহারে। বীণারঞ্জিত পুস্তক হস্তে, ভগবতী ভারতী দেবী নমহস্তুতে। নমঃভদ্রকাল্যৈ নমো নিত্যং সরস্বত্যৈ নমো নমঃ। বেদ-বেদাঙ্গ-বেদান্ত-বিদ্যা-স্থানেভ্য এব চ।। এস স-চন্দন পুষ্পবিল্ব পত্রাঞ্জলি সরস্বতৈ নমঃ।।'

 সরস্বতীর স্তব মন্ত্র শ্বেতপদ্মাসনা দেবী শ্বেত পুষ্পোপশোভিতা। শ্বেতাম্ভরধরা নিত্যা শ্বেতাগন্ধানুলেপনা।। শ্বেতাক্ষসূত্রহস্তা চ শ্বেতচন্দনচর্চ্চিতা। শ্বেতবীণাধরা শুভ্রা শ্বেতালঙ্কারব‌ভূষিতা। বন্দিতা সিদ্ধগন্ধর্ব্বৈর্চ্চিতা দেবদানবৈঃ। পূঝিতা মুনিভি: সর্ব্বৈঋষিভিঃ স্তূয়তে সদা।। স্তোত্রেণানেন তাং দেবীং জগদ্ধাত্রীং সরস্বতীম্। যে স্মরতি ত্রিসন্ধ্যায়ং সর্ব্বাং বিদ্যাং লভন্তি তে।

বিশুদ্ধ সিদ্ধান্ত পঞ্জিকা অনুসারে–

পঞ্চমী তিথি আরম্ভ–

ইংরেজি– ৫ ফেব্রুয়ারি, শনিবার।

বাংলা– ২২ মাঘ, শনিবার।

সময়– রাত ৩টে ৪৮ মিনিট।

পঞ্চমী তিথি শেষ–

ইংরেজি– ৬ ফেব্রুয়ারি, রবিবার।

বাংলা– ২৩ মাঘ, রবিবার।

সময়– রাত ৪টে ৩৮ মিনিট।

গুপ্তপ্রেস পঞ্জিকা মতে–

পঞ্চমী তিথি আরম্ভ-

ইংরেজি– ৫ ফেব্রুয়ারি, শনিবার।

বাংলা– ২২ মাঘ, শনিবার।

সময়– সকাল ৭টা ০৬ মিনিট ১০ সেকেন্ড।

পঞ্চমী তিথি শেষ–

ইংরেজি– ৬ ফেব্রুয়ারি, রবিবার।

বাংলা– ২৩ মাঘ, রবিবার।

সময়– সকাল ৭টা ০৮ মিনিট ০৪ সেকেন্ড।