বেলঘরিয়ায় গ্রেফতার তৃণমূলের প্রাক্তন কাউন্সিলর

বেলঘরিয়ায় গ্রেফতার তৃণমূলের প্রাক্তন কাউন্সিলর

বেলঘরিয়ায় গ্রেফতার প্রাক্তন কাউন্সিলর। এক তৃণমূল কর্মীকে খুনের ঘটনায় গ্রেফতার করা হয় তাকে। ধৃত প্রাক্তন কাউন্সিলর হলেন রূপালি সরকার। তিনি এলাকায় মদন মিত্র ঘনিষ্ঠ বলেই পরিচিত। কামারহাটি পৌরসভার ২৯ নম্বর ওয়ার্ড। ২০২০ সালে বেলঘরিয়া উত্তর বাসুদেবপুর এলাকায় মে মাস নাগাদ তৃণমূল কর্মী সৌমেন দাসকে খুন করা হয়। তারপর থেকে শুরু হয় তদন্ত।

গোটা ঘটনায় শুক্রবার কামারহাটি পৌরসভা ২৯ নম্বর ওয়ার্ডের প্রাক্তন তৃণমূল কাউন্সিলর রুপালি সরকার ব্যারাকপুর আদালতে আত্মসমর্পণ করলে বিচারক তাকে গ্রেফতারের নির্দেশ দেয়। সেই মতো রূপালিকে গ্রেফতার করে পুলিশ।সাত দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে তাকে। জানা গিয়েছে, ২০২০ সালে করোনা পরিস্থিতির সময় সৌমেন দাস তাঁর সঙ্গীদের নিয়ে ত্রাণ বিলি করছিলেন।

সেই সময় তাঁর উপর হামলা হয়। হামলার ঘটনায় গুরুতর জখম হয় সৌমেন। এরপর ১৯ মে তাঁর মৃত্যু হয়। এই ঘটনায় অন্যতম অভিযুক্ত ২৯ নম্বর ওয়ার্ডের প্রাক্তন কাউন্সিলর কামারহাটি পৌরসভার রুপালি সরকার। সৌমের দাসের আইনজীবী বলেন, ‘এই ঘটনার সূত্রপাত ২০২০ সাল থেকে। তৃণমূলের গোষ্ঠী দ্বন্দ্বের কারণে এই ব্যক্তি মারা যায়।

সেই ছেলের হয়ে ২০২০ সাল থেকে আমরা মমলা লড়ছি। লোয়ার কোর্ট বেল দিয়ে দিলেও আমরা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্ট যাই। পরে সেই বেল বাতিল করা হয়।’ অন্যদিকে, মৃতের মা জানান, ‘সৌমেন দাসের পরিবারের সদস্য জানান, ‘আমি জানি না ওকে কীভাবে বেল দিল। সবার আগে আমি ধন্যবাদ জানাব আমাদের উকিলকে।

কারণ উনি না থাকলে হয়ত আমরা জিততে পারতাম না।আজকে অপরাদীরা যেটুকু শাস্তি পাচ্ছে বা পাবে সবটাই ওনাদের জন্য। এই মমলা চলাকালীন যথেষ্ঠ প্রভাব খাটানো হয়েছিল। কাউন্সিলর ছিলেন বলে বারাবর বলেছিলেন তাঁকে কেউ কিছু করতে পারবে না। আমার ছেলে গরিব-দুঃখী খেতে না পেলে তাকে খেতে দিত। ও সবার উপকার করত। তাই আজকের গ্রেফতারিতে আমি প্রচুর খুশি ‘