সিপিএম থেকে বিজেপি হয়ে বর্ধমানের আইনুল হক এবার যোগ দিলেন তৃণমূলে

সিপিএম থেকে বিজেপি হয়ে বর্ধমানের আইনুল হক এবার যোগ দিলেন তৃণমূলে

আজবাংলা    রাজ্যের প্রাক্তন শিল্পমন্ত্রী প্রয়াত নিরুপম সেনের ঘনিষ্ঠ আইনুল হক তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দিলেন। বুধবার তৃণমূল ভবনে আরও এক প্রাক্তন বিজেপি নেতা তৃণমূলের পতাকা তুলে নিলেন। এদিন তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন ২০১৯-এ বীরভূম লোকসভার প্রার্থী ডা. রেজায়ুল করিম।

দলের শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগে সিপিএম তাঁকে বহিষ্কার করেছিল ২০১৮ সালের গোড়ার দিকে। তারপর বর্ধমান শহরের একদা ডাকসাইটে বাম নেতা তথা পুরসভার প্রাক্তন চেয়ারম্যান আইনুল হক গত বছর মার্চ মাসে দিলীপ ঘোষ, মুকুল রায়দের উপস্থিতিতে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন।

ওই দিনই গেরুয়া পতাকা হাতে তুলে নিয়েছিলেন অগ্নিমিত্রা পলও। কিন্তু আবার বছর দেড়েকের মধ্যে ঝাণ্ডা বদল করে ফেললেন আইনুল। বুধবার তৃণমূল ভবনে মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের উপস্থিতিতে তৃণমূলে যোগ দিলেন তিনি।লোকসভা ভোটের পর থেকেই বিজেপির জেলা অফিসে যাওয়া বন্ধ করে দেন আইনুল হক।

বুধবার তৃণমূলের পতাকা হাতে নিয়ে আইনুল হক বলেন, “আজ দেশের বড় বিপদ। বিপন্ন সার্বভৌমত্ব, একই দেশের দুধরনের নাগরিক তৈরি করা, অর্থনৈতিক ইস্যুগুলিকে আড়াল করে ধর্মীয় জিগির তোলা। আমি মনে করছি এসবের বিরুদ্ধে একমাত্র লড়াই করতে পারে জননেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

তার আহ্বানে সাড়া দিয়ে তৃণমূলে যোগ দিলাম।”বর্ধমানের তাঁর ঘনিষ্ঠদের বক্তব্য, লোকসভা ভোটে প্রার্থী তালিকায় নিজের নাম না দেখেই বিজেপির সঙ্গে দূরত্ব বাড়াতে শুরু করেছিলেন।তাঁদের বক্তব্য, আইনুলবাবু আশা করেছিলেন বর্ধমান-দুর্গাপুর আসনে তাঁকে টিকিট দেবে বিজেপি। কিন্তু তা হয়নি।

ফলে এদিন তৃণমূলে যোগ দেওয়ার পর কৌতূহল তৈরি হয়েছে, তাহলে কি বিধানসভায় বর্ধমানের কোনও আসনে আইনুলকে প্রার্থী করবে তৃণমূল?যে দিন সিপিএম আইনুলকে বহিষ্কার করেছিল, সে দিন তিনি ছিলেন রাজ্যের বাইরে।সেখান থেকেই ফোনে জানিয়েছিলেন দলের অভ্যন্তরে একদল নেতা প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতে তাঁকে বহিষ্কার করেছে।

কিন্তু তিনি সারাজীবন বামপন্থী হয়ে থাকবেন বলে জানিয়েছিলেন। কিন্তু রাজনীতি তো সম্ভাবনার শিল্প।কখন কী হয় কেউ বলতে পারে না।তাই বাম শিবির থেকে একেবারে রাম ব্রিগেডে চলে গিয়েছিলেন আইনুল। এবার তৃণমূলে। সিপিএমের পূর্ব বর্ধমান জেলার এক নেতার কথায়, “দলের কাছে নির্দিষ্ট অভিযোগ ছিল বলেই তাঁকে সরাসরি বহিষ্কার করা হয়েছিল। 

২০১৬ বিধানসভা নির্বাচনে বর্ধমান দক্ষিণ কেন্দ্র থেকে সিপিএমের প্রার্থী হয়েছিলেন আইনুল হক। ২০১৯-এ বীরভূম লোকসভা কেন্দ্র সিপিএমের হয়ে লড়াই করেছিলেন ডা. রেজাউল করিম। তবে দুজনেই পরাজিত হয়েছিলেন। এদিকে বেশ কয়েক দিন ধরেই রাজ্যের বামপন্থী বিধায়ক ও নেতাদের একাংশ অভিযোগ করে আসছে তৃণমূলে যোগদানের বিনিময়ে তাঁদের বড় ধরনের প্রলভন দেখাচ্ছে প্রশান্ত কিশোরের আই প্যাক। যদিও আই প্যাকের পক্ষ থেকে সেই দাবিকে উড়িয়ে দেওয়া হয়।