ফ্রান্সের নতুন প্রধানমন্ত্রী গ্যাব্রিয়েল আতাল

ফ্রান্সের নতুন প্রধানমন্ত্রী গ্যাব্রিয়েল আতাল

ফ্রান্সের নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে গ্যাব্রিয়েল আতালের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাখোঁ সরকারের রদবদলের অংশ হিসেবে তাঁকে এই দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। গ্যাব্রিয়েল আতাল (৩৪) আধুনিক ফ্রান্সের ইতিহাসে সবচেয়ে কম বয়সী ও প্রথম সমকামী প্রধানমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন। এর আগে ১৯৮৪ সালে প্রধানমন্ত্রী হয়েছিলেন ৩৭ বছর বয়সী লোরাঁ ফ্যাবিউস।  এলিজাবেথ বর্নির স্থলাভিষিক্ত হচ্ছেন গ্যাব্রিয়েল আতাল।

দায়িত্ব গ্রহণের ২০ মাস পর বর্নি পদত্যাগ করেন। ২০২২ সালের মে মাসে তিনি প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নেন। তাঁর আগে ফ্রান্সের প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী ছিলেন এডিথ ক্রেসন। তিনি ১৯৯১ সালের মে মাস থেকে পরের বছরের এপ্রিল পর্যন্ত দেশটির প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। গ্যাব্রিয়েল আতাল বর্তমানে মাখোঁর মন্ত্রিসভায় শিক্ষামন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। আগামী জুনে ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের নির্বাচন। ওই নির্বাচনে ফরাসি সরকারের নেতৃত্ব দিতে হবে তাঁকে।

গ্যাব্রিয়েল অ্যাটাল বরাবরই ইম্যানুয়েল ম্যাক্রোঁর স্নেহের পাত্র ছিলেন। কোভিড মহামারীর সময়ে সরকারের মুখপাত্র হিসাবে কাজ করেছিলেন সদাহাস্যময় গ্যাব্রিয়েল। সেই সময়ে বিভিন্ন সরকারি নির্দেশিকার ব্যাখা, জনসাধারণের উদ্দেশে সরকারি বার্তা পৌঁছে দেওয়ার মতো গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব সামলান গ্যাব্রিয়েল। আর তার দৌলতেই ফ্রান্সের ঘরে ঘরে পরিচিত মুখ হয়ে ওঠেন তিনি।

সাম্প্রতিক জনমত সমীক্ষা অনুযায়ী, ফ্রান্সের সবচেয়ে জনপ্রিয় রাজনীতিবিদদের মধ্যে অন্যতম গ্যাব্রিয়েল। বিভিন্ন রেডিও শো এবং সংসদ- উভয়ক্ষেত্রেই তাঁর বাগ্মিতা নজর কাড়ে ফরাসি জনগণের।'গ্যাব্রিয়েল অ্যাটালকে অনেকটা ২০১৭ সালের ম্যাক্রনের মতো বলা যেতে পারে,' মত সংসদ প্যাট্রিক ভিগনালের। কেন? কারণ ইম্যানুয়েল ম্যাক্রোঁও আধুনিক ফরাসি ইতিহাসের সর্বকনিষ্ঠ প্রেসিডেন্ট। সেই সময়ে ফ্রান্সে তুমুল জনপ্রিয় ছিলেন তিনি। অল্প বয়স, দুর্দান্ত বাগ্মীতা এবং সুপুরুষ হওয়ার দৌলতে বিশ্বের নজর কাড়েন ম্যাক্রোঁ।

যদিও সাম্প্রতিক সময়ে হয় তো কিছুটা জনপ্রিয়তায় ভাঁটা পড়েছে। ম্যাক্রোঁর পেনশন এবং অভিবাসন সংস্কারের নীতিতে অখুশি হয়েছেন জনগণের একাংশ। আসন্ন জুনের নির্বাচনে তার প্রভাবও পড়তে পারে বলে মত বিশ্লেষকদের। তবে এমন সময়ে গ্যাব্রিয়েলের মতো এত জনপ্রিয় এক তরুণকে প্রধানমন্ত্রী করাটা এক সুপরিকল্পিত সিদ্ধান্ত বলে মনে করা হচ্ছে।জনমত সমীক্ষা অনুযায়ী বর্তমানে ম্যাক্রোঁর শিবির ডানপন্থী মেরিন লে পেনের দলের তুলনায় প্রায় আট থেকে দশ শতাংশ পয়েন্ট পিছিয়ে।মজার বিষয়টি হল, গ্যাব্রিয়েল অ্যাটাল(৩৪) এবং ইম্যানুয়েল ম্যাক্রোঁর(৪৬) দু'জনের বয়স যোগ করলেও তা মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বিডেনের(৮১) থেকে কম।

আরো পড়ুন      জীবনী  মন্দির দর্শন  ইতিহাস  ধর্ম  জেলা শহর   শেয়ার বাজার  কালীপূজা  যোগ ব্যায়াম  আজকের রাশিফল  পুজা পাঠ  দুর্গাপুজো ব্রত কথা   মিউচুয়াল ফান্ড  বিনিয়োগ  জ্যোতিষশাস্ত্র  টোটকা  লক্ষ্মী পূজা  ভ্রমণ  বার্ষিক রাশিফল  মাসিক রাশিফল  সাপ্তাহিক রাশিফল  আজ বিশেষ  রান্নাঘর  প্রাপ্তবয়স্ক  বাংলা পঞ্জিকা