প্রেগনেন্সির সময়ে চুল ঝরে যাচ্ছে? রইল সমাধান

প্রেগনেন্সির সময়ে চুল ঝরে যাচ্ছে? রইল সমাধান

আজবাংলা   নরমাল মানুষের ডেইলি ১০০ টার মতো চুল পড়েই থাকে। এটি খুব কমন বিষয়। কিন্তু প্রেগনেন্সির সময়ে অনেক বেশি হেলদি খাওয়া-দাওয়া, সুস্থ লাইফস্টাইল মেইনটেইন করা আর হরমোনাল কারণে চুল অনেক কম পড়ে। মোটামুটি সুপারমডেল টাইপ সিল্কি শাইনি চুল থাকে এক্সপেক্টিং মায়েদের।

শিশুর জন্মের পর আবার একটা বিশাল হরমোনাল চেইঞ্জ তৈরি হয় দেহে। দেহ নরমাল অবস্থায় ফিরে আসার জার্নি আর সাথে বাচ্চার কেয়ার নিতে গিয়ে নিজের রাতের ঘুম দিনের শান্তি নষ্ট হওয়া, দুই মিলে মাথা খালি হয়ে যেতে কয়েক মাসের বেশি কিন্তু লাগে না। এই সময়টাকে ভারিক্কি ভাষায় বলে Telogen Effluvium।

যাইহোক, প্রেগনেন্সিতে চুল পড়া মায়েদের কমন প্রবলেম। সন্তান জন্মের পর নিজের চুলের কেয়ার-টা আসলে কিভাবে নিতে হবে এ নিয়ে কিছু প্রয়োজনীয় তথ্য জানা থাকলেই এই সমস্যা থেকে সহজেই উতরে যাওয়া যায়। আসুন দেখে নেওয়া যাক, এর জন্য কি কি করতে হবে।

বাচ্চাকে ব্রেস্টফিড করাতে হবে বলে বেশি খেতে হয়। তাই বলে শুধু দিনে ২-৩ প্লেট ভাত খেয়েই দায়িত্ব শেষ ভাববেন না। শুধু ভাত, রুটি, চিনি দিয়ে কতগুলো Empty Calorie না খেয়ে একটু চিন্তা ভাবনা করে সুষম খাবার খান। যাতে করে প্রচুর প্রোটিন, মিনারেলস, দরকারি ভিটামিনগুলো আপনি পাবেন।

শাক-সবজি, বাদাম, সিজনাল ফল যেন অবশ্যই ডায়েটে থাকে। এর Anti-oxidant আপনার চুলের গোঁড়ার জীবনটা বাড়িয়ে দেবে। আয়রন রিচ খাবার খাওয়া খুবই জরুরি। কলিজা, দুধ, ডিম, কচু, পালং শাক বেশি বেশি খেতে হবে। সারাদিন বাচ্চার কেয়ার নেয়ায় চুল বিরক্ত করে বলে দিনের পর দিন টাইট খোঁপা  বেঁধে ফেলে রাখবেন না।

মনে রাখবেন এসময়ই আপনার রুট-গুলো উইক হয়ে যাবে। টাইট করে বাঁধা খোঁপায় এই দুর্বল চুলের গোঁড়াই আরও বেশি করে উঠে চলে আসবে। চুল খুব আলগাভাবে বেণী  করে রাখতে পারেন। বাট ‘নো পনিটেইল’ আর ‘নো টাইট বান’। ব্লো ড্রাই, ফ্ল্যাট আয়রন বা এধরনের হিট স্টাইল একেবারেই নিষিদ্ধ নতুন মায়ের জন্য।