নাবালিকা ‘গণধর্ষণ’কাণ্ডে গ্রেফতার হাঁসখালির ‘ডন’ তৃণমূল নেতার ছেলে

নাবালিকা ‘গণধর্ষণ’কাণ্ডে গ্রেফতার হাঁসখালির ‘ডন’ তৃণমূল নেতার ছেলে

হাঁসখালিতে নাবালিকাকে গণধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার তৃণমূল নেতার ছেলে। তার বিরুদ্ধে গত শনিবার হাঁসখালি থানায় অভিযোগ দায়ের করেছিলেন নাবালিকার বাবা-মা। শাসকদলের সমস্ত রকম হুমকি উপেক্ষা করে  চাইল্ড লাইনের সহযোগিতায় নির্যাতিতার পরিবার ঘটনার চার দিন পর বিচারের আশায় প্রশাসনের দ্বারস্থ হন। রবিবার সকালে তাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করতে থাকে পুলিশ।

সূত্রের খবর, জেরায় একাধিক অসঙ্গতি মিলেছে। রবিবার সকালে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। শনিবার রাতে থানায় অভিযোগ দায়ের হওয়ার পর থেকেই কার্যত বেপাত্তা অভিযুক্ত তৃণমূল নেতা। ছেলে হাজতে। ভারতীয় দণ্ডবিধির 376 (3),302,201,34 এবং পক্সো আইনের 6 নং ধায়ায় অভিযুক্ত করা তৃণমূল পঞ্চায়েত সদস্য সমর গোয়ালীর ছেলে ব্রজোগোপাল কে ।

সপরিবারের ‘আত্মগোপন’ করেছে তৃণমূল নেতা। রবিবার সকালে হাঁসখালিতে ওই তৃণমূল নেতার বাড়িতে গিয়ে দেখা গেল দরজা বন্ধ বাইরে থেকে। একতলার অ্যাসবেস্টার আর টিনের ঘর। সামনে অনেকটা উন্মুক্ত উঠান। তার মধ্যে থেকেই শোনা গেলো “ওরা হয়তো জামাইয়ের বাড়িতে গিয়েছে। তাও তো এক সপ্তাহের বেশি হয়েছে।”

আরেক প্রতিবেশী শুধু বললেন, ‘কিছু জানি না।’ তবে দূরে দাঁড়িয়ে থাকা এক প্রৌঢ়া,ক্যামেরার সামনে বিস্ফোরক কথা বলেন।  “সোমবার আমি বাড়িতে রান্না করছিলাম। ওদের বাড়িতে পার্টি হচ্ছিল। জানলা দিয়ে দেখি। মেয়েটা যখন যায়, আমি দেখতে পেয়েছিলাম। পার্টিতে পাঁচসাত জন ছিল। ওরই সবাই বন্ধু। মেয়েটা আগে অনেকবার এসেছে এই বাড়িতে, ওদের মধ্যে ভালোবাসা ছিলো।

ছেলের বাবা তো ডন, আমার ছেলেকে মেরেছে, এই পাড়ায় কেউ মুখ খুলবে না ওর বাবার ভয়ে। । কতজন পিস্তলের গুলি খেয়েছে। ছেলের কাছেও পিস্তল থাকে, বাবার কাছেও থাকে।” অভিযুক্তের প্রতিবেশীরা কার্যত মুখে কুলুপ এঁটেছেন। । অভিযুক্ত তৃণমূল নেতা কোথায়,  প্রশ্ন শুনেই বলছেন তাঁরা, ‘কিচ্ছু বলতে পারব না।’ এবার পুলিশ প্রশাসন এলাকার ‘ডন’কে খুঁজে বার করতে পারবে কিনা, সেটাই দেখার।