সাবধান, দাঁতে হলদে ছোপ হটানোর জন্য করছেন লেবু ও সোডার ব্যবহার?

সাবধান, দাঁতে হলদে ছোপ হটানোর জন্য করছেন লেবু ও সোডার ব্যবহার?

আজবাংলা  একেবারে নিয়ম মেনে ব্রাশ করছেন। তাও কিছুতেই দাঁতের হলুদ ছোপ যাচ্ছে না। এমন পরিস্থিতি থেকে বাঁচার জন্য অনেকেই লেবুর রস বা বেকিং সোডা ইত্যাদির ব্যবহার বলবেন। তা যে সম্পূর্ণ ভুল পদ্ধতি, তাও নয়। কিন্তু এই পদ্ধতি করার আগে কয়েকটি বিষয় মাথায় রাখা উচিত।

আমাদের দাঁতের দু’টি স্তর আছে – ভিতরেরটির নাম ডেন্টিন, সেটি একটু হলদেটে।উপরের সাদা স্তরটি হল এনামেল। এবারে, এনামেল কিন্তু ক্রমশ ক্ষইতে আরম্ভ করে, তখনই দৃশ্যমান হয়ে ওঠে ভিতরের ডেন্টিন। এবার এই পরিস্থিতি এড়াতে আপনি যত বেশিবার ব্রাশ করবেন,

বা স্কেলিং করাবেন তত বাড়বে এনামেলের ক্ষয় হওয়ার হার। তাই দিনে দুইবারের বেশি ব্রাশ একেবারেই করা উচিত নয়।ব্রাশ করার সময় খুব জোরে ঘষা চলবে না, লেবুর রস বা বেকিং সোডা জাতীয় জিনিসপত্র দিয়ে খুব ঘষাঘষি করলে সাময়িক ফল পাবেন বটে, কিন্তু আখেরে এনামেল আরও বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

তা হলে কি এই পরিস্থিতি থেকে মুক্তি পাওয়ার কোনও রাস্তা নেই? আছে। প্রথমেই একটি রোটেটিং বা অসিলেটিং ব্রাশ কিনুন। ব্যাটারিচালিত অসিলেটিং ব্রাশ নিশ্চিতভাবেই আপনার দাঁত ম্যানুয়াল ব্রাশের চেয়ে ভালোভাবে পরিষ্কার করে।

হলদেভাব তাড়ানোর উপযোগী পেস্ট বা মাউথওয়াশ পাওয়া যায় বাজারে, কিন্তু তা টানা মাসখানেকের বেশি ব্যবহার করা উচিত নয়। তাতে এনামেল ক্ষয়ে যাওয়ার আশঙ্কা বাড়ে। ব্যবহার করতে পারেন বেকিং সোডা আর জলের মিশ্রণও। কিন্তু আগেই বলা হয়েছে, এটি এনামেল ক্ষইয়ে দিতে পারে, তাই ঘন ঘন ব্যবহার না করাই ভালো।