বাড়িতে সহজে বানান পাটিসাপটা পিঠে

বাড়িতে সহজে বানান পাটিসাপটা পিঠে

আজবাংলা  মন করে মাঝে মাঝে পিঠে-পুলি খাওয়া হোক। কিন্তু সব সময়ে কি তা হয়? বাঙালি পিঠে-পুলি বানাতেই অনেকটা সময় লেগে যায়। তা ছাড়া আজকালকার দিনে অধিকাংশ বাড়িতেই বিশেষ চল থাকে না সব সময়ে পিঠে-পুলি বানানোর। ফলে সকলে ছোট থেকে শিখতেও পারেন না। তা হলে হঠাৎ এক দিন পাটিসাপটা খেতে ইচ্ছা করলে কী করবেন?সহজেই বাড়িতে পাটিসাপটা বানানো শিখে নিন। তা হলেই যখন ইচ্ছা খাওয়া যাবে পিঠে।

কী ভাবে কম সময়ে পাটিসাপটা বানাবেন?

উপকরণ- খোল তৈরির জন্য চালের গুঁড়ো: ১ কাপ ময়দা: ১ কাপ জল: ১ কাপ খেজুর গুড়: ২-৩ চা চামচ পুর তৈরির জন্য দুধ: ১ লিটার কিশমিশ: ৭-৮টি নারকেল কোরানো: ১ কাপ চিনি বা গুড়: ১ কাপ এলাচ: ২টি

প্রণালী-

প্রথমে ময়দা, চালের গুঁড়ো, গুড় আর জল মিশিয়ে পাতলা করে একটি গোলা তৈরি করে রেখে দিন। এর পর ক্ষীর বানাতে শুরু করুন।একটি পাত্রে এক লিটার দুধ নিয়ে তা টানাতে থাকুন। দুধ শুকিয়ে দু’কাপ মতো হয়ে এলে তাতে কিশমিশ, নারকেল কোরা আর চিনি মিশিয়ে দিন। এর পরে একটি কাপে অল্প জলের মধ্যে দু’চামচ চালের গুঁড়ো গুলে নিয়ে মিশিয়ে দিন। ক্ষীর ঘন হয়ে এলে ভাল ভাবে নাড়তে থাকুন। ক্ষীর বেশ ঘন হয়ে গেলে নামিয়ে ফেলুন।

এ বার একটি নন স্টিক প্যানে কয়েক ফোঁটা তেল দিয়ে গরম করে নিন। তাওয়া গরম হয়ে এলে তাতে একটি বড় হাতায় করে চালের গুঁড়ো আর ময়দার গোলা ছড়িয়ে দিন। রুটির মতো সেঁকা হয়ে এলেই এক পাশে পুর দিন, তার পর রুটিটি মুড়িয়ে দিন। আর একটু সেঁকে নিয়ে পাটিসাপটা নামিয়ে নিন।

এ বার একের পর এক এ ভাবেই ভাজতে থাকুন পাটিসাপটা। খেয়াল রাখবেন যেন গোলাটি তাওয়ায় লেগে না যায়। তার জন্য প্রয়োজনে প্রথম দিকে অল্প বেশি তেলও দিয়ে তাওয়া তৈরি করে নিতে পারেন।