I অক্ষর দিয়ে শুরু নামের মানুষরা কেমন হয়

I অক্ষর দিয়ে শুরু নামের মানুষরা কেমন হয়

কথায় আছে, নাম দিয়ে যায় চেনা। এটা কিন্তু খুব ভুল কথা নয়। আপনার নামের প্রথম অক্ষর বলে দেবে আপনি কী ধরনের মানুষ। প্রত্যেকের নামেরই একটা বিশেষত্ব আছে, যা থেকে সেই ব্যক্তির চরিত্র সম্পর্কে একটা ধারণা করা যায়। জ্যোতিষশাস্ত্র মতে, নামের প্রথম অক্ষর অনেক অর্থ বহন করে। নামের প্রথম অক্ষর দিয়ে সেই ব্যক্তি সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারা যায়। নামের প্রথম অক্ষর দিয়ে আপনি নিজের ভাগ্য যাচাই করতে পারেন।

তাই নামের প্রথম অক্ষরের যথেষ্ট গুরুত্ব আছে। দেখে নিন আপনার নামের প্রথম অক্ষর আপনার সম্পর্কে কী বলছে। ইংরাজি বর্ণমালায়া প্রতিটি বর্ণের তাৎপর্য নিয়ে আলোচনায় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বর্ণ I । কারণ এর বর্ণগত মান ৯ , অন্যদিকে এর সংখ্যাতত্ত্বগত মানও ৯। ফলে, দুদিক থেকে একই মান আসায় এর সংখ্যাত্ত্বগত গুরুত্ব খুব বেশি। নামের শুরুতে যাঁদের I

থাকে ,তাঁরা খুবই আবেগপ্রবণ ও দরদী মানুষ হয়। অন্যের ব্যাথার কথা জানতে পারলে , তাঁর প্রতি সহানুভূতিশীল হয়ে পড়েন। বন্ধু হিসাবে এঁরা খুবই ভালো। তার চেয়েও বড় বিষয় মানুষ হিসাবে এঁরা খুবই উচ্চমানের হয়। এক কথায় বললে এঁরা বড় মাপের মানুষ হন।  I= আপনার ইংরাজি নামের বানানের প্রথম অক্ষর যদি I হয়ে থাকে, তা হলে আপনি প্রকৃতিগত ভাবে একজন হৃদয়বান মানুষ।

আপনি সব সময় সব কিছুকে গভীর ভাবে অনুভব করেন। এর ফলে আপনি এক ধরনের বোধ অর্জন করেছেন, যার সাহায্যে আপনি শিল্পীসুলভ ও সৃষ্টিশীল মন পেয়েছেন। যেটা কাজে লাগিয়ে বড় কোনও প্রকল্পও গড়ে তুলতে পারেন অবলীলাক্রমে। হ্যাঁ, আপনি আপনার সৃজনশীল পরিকল্পনার মধ্যেই থাকুন, না হলে আপনার মধ্যে প্রচুর পরিমাণে দুশ্চিন্তা এসে বাসা বাঁধবে।

এতে আপনার মানসিক তথা দৈহিক স্বাস্থ্যের ক্ষতি হতে পারে। এঁদের ওপর নির্ভর তো চেখ বুজে করা যাতে পারে। অন্যদিকে, বিবেকবান হওয়ায়, এঁরা প্রতিটি বিষয় গভীরভাবে চিন্তা ভাবনা করেন। নামের শুরুতে যদি কারোর I বর্ণটি থাকে, তাহলে জানবেন সেই ব্যক্তি যেকোনও কারোর দুঃখে সবরকমের ত্যাগ স্বীকার করতে রাজি হয়ে যাবেন। এঁরা বুদ্ধিদীপ্ত মানুষ হন।

ফলে , সহানুভূতির সঙ্গে বুদ্ধির মিশেলে এঁরা অনেকটাই এগিয়ে যএতে পারেন জীবনে। কোনও কঠিন পরিস্থিতিতে এঁরা সবসময়ে মূল্যবোধকে ঠিক রাখতে সচেষ্ট হন। তাই ন্যায়ের পথে চলে কোনও কিছুকে বিচার করা এঁদের স্বভাবজাত পন্থা। শান্তিপূর্ণভাবে জীবনে চলায় এঁরা বিশ্বাসী হন। কোথাও অশান্তি দেখলেও এঁরা তা বন্ধ করতে উদ্যত হন।

কারোর সাথে খুব খারাপ সম্পর্ক না থাকলে , এঁরা সাধারণত ঝগড়া ঝাঁটির দিকে যান না। বন্ধুত্ব ধরে রাখতে এই মানুষরা সবসময়ে সচেষ্ট হন। তবে সময়ে সময়ে এঁরা রাগারাগি একটু করে ফেলেন।  ভালোভাবে বাঁচাবার জন্য এঁরা সমস্ত রকমের চেষ্টা করেন। শুধু নিজেরটা নয়, আশপাশের মানুষও যাতে ভালো থাকেন, সেই চেষ্টাও করেন এঁরা। তবে তবে এঁরা বিশেষ ক্ষেত্রে নিজের লোকে দ্বারা পরিবেষ্টিত হয়ে থাকতেই ভালোবাসেন। তাই একটু চুপচাপ ধরনের মানুষ হয় এঁরা।