চাণক্যের এই নীতি মেনে চললে জীবনে কখনো অর্থের অভাব হবে না

চাণক্যের এই নীতি মেনে চললে জীবনে কখনো অর্থের অভাব হবে না

চাণক্যের মতে, মানুষের সর্বদা ভাল অভ্যাস অবলম্বন করা উচিত। ভাল অভ্যাস একজন ব্যক্তিকে দুর্দান্ত এবং সফল করে তোলে। ভাল অভ্যাস শিক্ষা এবং সংস্কৃতি মাধ্যমে বিকশিত হয়। চাণক্য এক বিরাট পণ্ডিত ছিলেন। চাণক্য অনেক বিষয়ে সচেতন ছিলেন। চাণক্য যত ভাল শিক্ষক ছিলেন তেমনি অর্থনীতিবিদও ছিলেন। এছাড়া চাণক্যও একজন দক্ষ কৌশলবিদ ছিলেন। চাণক্য সমাজ ও মানুষকে গভীরভাবে প্রভাবিত করে প্রতিটি বিষয় অধ্যয়ন করেছিলেন। অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে চাণক্য নীতিকে তাই এক বিশেষ স্থান দেওয়া হয়েছে। 

আচার্য চাণক্য এক বিরাট বিদ্বান ছিলেন। অর্থনীতি, সমাজবিজ্ঞান এবং নীতিশাস্ত্রে যার জ্ঞান ছিল আকাশ তুল্য। তিনি তাঁর জ্ঞান দিয়ে মানবজাতির জন্য অনেক ভাল কাজ করে গিয়েছেন। চাণক্য নীতি (Chanakya Niti) মানুষের প্রতিটি সমস্যার সমাধানের হাল। চাণক্য প্রতিটি পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে বিস্তারিত ব্যাখ্যা দিয়ে গিয়েছেন। কৌটিল্য ও বিশ্নুগুপ্ত বিখ্যাত চাণক্য তক্ষশিলা বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য হিসেবে পরিচিত ছিলেন চাণক্য।

আর এই চাণক্যকে (Chanakya) অনুসরণ করে জীবনধারণ করেন এমন বহু মানুষ রয়েছে।  এখন আপনি যদি অর্থের অভাবে ভুগছেন, তাহলে আমরা আজ চাণক্যের সেই নীতি গুলি নিয়ে কথা বলবো, যেগুলি মেনে জীবনে দূর হবে আপনার অর্থের অভাব। আচার্য চাণক্য তাঁর নীতি গ্রন্থে এমন একটি পদ লিখে ছিলেন যেখানে মূর্খরা শ্রদ্ধা পায় না, যেখানে শস্য ভাল রাখা হয় এবং যেখানে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে কোনও লড়াই হয় না, সেখানে লক্ষ্মী জি নিজেই আসে এবং অর্থ-শস্যের অভাব হয় না। 

 আচার্য চাণক্য বলেছেন যে জ্ঞানী লোকদের বরাবর সম্মান করা উচিত, বোকা লোকদের নয়। যে সমস্ত লোক এটি মেনে চলে তাঁদের জীবনে কোনও সমস্যা হয় না বা তাদের তহবিলেরও ঘাটতি হয় না। শস্যকে অন্নপূর্ণা বলা হয় কারণ শস্য নিজেই দেবী লক্ষ্মীর রূপ, তাই দেবী লক্ষ্মী, যারা খাদ্যশস্য নষ্ট করেন তাঁদের উপর রাগান্বিত হন। অতএব, যে বাড়িতে শস্যের প্রতি শ্রদ্ধা হয়, এটি নষ্ট হয় না, এটি ভালভাবে রাখা হয়, সেখানে সর্বদা লক্ষ্মীর ঘর হয়ে ওঠে।

যে বাড়িতে কলহ হয় না, স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয় না, পারস্পরিক ভালবাসা বিরাজ করে, সেই বাড়িতে লক্ষ্মী থাকেন। কারণ স্ত্রীকে গৃহ লক্ষ্মী বলা হয়। অতএব, স্বামীর উচিত সর্বদা স্ত্রীদের সম্মান করা।যদি কোনও ব্যক্তি চাণক্যের দেখানো এই পথে চলে তবে সে অবশ্যই তার জীবনে সাফল্য অর্জন করবে এবং অর্থের অভাব হবে না। জেনে রাখুন, মানুষের বিশ্বাস চাণক্যের এই চিন্তাধারা তাদের জীবনকে এগিয়ে নিয়ে গেছে।