জেনে নিন ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপটে লালদিঘির গুরুত্ব

জেনে নিন ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপটে লালদিঘির গুরুত্ব

আজবাংলা   লালদিঘি (Lal Dighi) পশ্চিমবঙ্গের রাজধানী কলকাতার বিবাদীবাগ অঞ্চলের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত একটি বৃহদাকার ঐতিহাসিক জলাশয়। এই দিঘির ইতিহাস কলকাতা মহানগরীর ইতিহাস অপেক্ষাও প্রাচীনতর। ব্রিটিশ যুগে এই জলাশয়টি ছিল শহরের অন্যতম মিষ্টি পানীয় জলের উৎস।

বর্তমানে এই দিঘির উত্তর ভাগে মহাকরণের সম্মুখে রাজ্য সরকার একটি ভূগর্ভস্থ কার পার্কিং প্লাজা নির্মাণ করছে। জব চার্নকের আগমনের পূর্বেই ডিহি কলিকাতা গ্রামে লালদিঘির অস্তিত্বের প্রমাণ পাওয়া যায়। লালদিঘির নিকটেই সাবর্ণ রায়চৌধুরী পরিবারের একটি কাছারি ও গৃহদেবতা শ্যামরায়ের মন্দিরটি অবস্থিত ছিল।

অনুমান করা হয়, দোলযাত্রা উপলক্ষ্যে রং খেলার পর এই দিঘির জল লাল হয়ে উঠত বলে দিঘিটি লালদিঘি নামে পরিচিত হয়। ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি উক্ত কাছারিবাড়িটি প্রথমে ভাড়া ও পরে ক্রয় করে নিয়েছিলেন। অবশ্য লালদিঘির নামকরণ নিয়ে অন্য কাহিনিও প্রচলিত আছে।

কেউ কেউ বলেন, পুরনো কেল্লার লাল রংটি এই দিঘির জলে প্রতিবিম্বিত হত বলে দিঘিটি লালদিঘি নামে পরিচিত হয়। অন্যমতে, জনৈক লালচাঁদ বসাক এই দিঘিটি খনন করিয়েছিলেন। তাঁর নামানুসারেই দিঘিটির নাম হয় লালদিঘি।

নব্যভারত-এ প্রাণকৃষ্ণ দত্ত এই দিঘির অন্য একটি ইতিহাসের বর্ণনা দিয়েছেন। তাঁর মতে, গোবিন্দপুরের মুকুন্দরাম শেঠ বা তাঁর পুত্রেরা এই দিঘি খনন করিয়ে থাকবেন। এই দিঘির ধারে তাঁর কাছারি অবস্থিত ছিল। দোলের দিন রংখেলার পর দিঘির জল লাল হয়ে যেত বলে দিঘির নামকরণ হয় লালদিঘি।

অষ্টাদশ শতকে ট্যাঙ্ক স্কোয়ার বা লালদিঘি-সংলগ্ন চত্বরটি ছিল ‘শহরের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত’। এই দিঘির আয়তন ছিল ২৫ একর। ডাচ অ্যাডমিরাল স্ট্যাভার্নিয়াস ১৭৭০ সালে এই অঞ্চল পরিভ্রমণের পর লেখেন, ‘সরকারের আদেশক্রমে কলকাতাবাসীদের শুদ্ধ ও মিষ্টি পানীয় জল সরবরাহের উদ্দেশ্যে এই দিঘি খনন করা হয়। একাধিক জলের উৎস দিঘির জল সর্বদা সব স্তরে রাখতে সাহায্য করে। এটির চারিদিক রেলিং দিয়ে ঘেরা।
তাই কেউ এই দিঘির জল ব্যবহার করতে পারে না।’ পূর্বে দিঘিটি আরও বড়ো ছিল। ওয়ারেন হেস্টিংসের আমলে দিঘিটি পরিষ্কার করে এর পাড় বাঁধিয়ে দেওয়া হয়। এই দিঘির জল সেই সময় ছিল শহরের সবচেয়ে মিষ্টি জল। পৌরসংস্থার জল সরবরাহ পরিষেবা চালুর আগে এই দিঘিই শহরের ইউরোপীয় বাসিন্দাদের জলের চাহিদা মেটাত।

১৭৫৬ সালের ১৮ জুন, ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি ও বাংলার নবাব সিরাজদৌলার মধ্যে সংঘটিত লালদিঘির যুদ্ধে ইংরেজ বাহিনীর পরাজয় ঘটেছিল। এর ফলে কলকাতা ব্রিটিশদের হাতছাড়া হয়। ১৭৫৭ সালের ২৩ জুন পলাশীর যুদ্ধের পর ইংরেজরা আবার শহরের দখল নিতে সক্ষম হয়।