জলপাইগুড়িতে আচমকা বাবার মাথায় কোদালের কোপ বসাল ছেলে!

জলপাইগুড়িতে আচমকা বাবার মাথায় কোদালের কোপ বসাল ছেলে!

পারিবারিক বিবাদ ছিল। বেশ কিছুদিন বাবার (Father) সঙ্গে ছেলের কথা কাটাকাটি হচ্ছিল। কিন্তু সেই ঝামেলা যে এমন মারাত্মক আকার নেবে চতুর্থীর রাতে, তা পরিবারের অন্যান্যদের ছিল ধারনার বাইরে। বাড়ির বারান্দায় বসে ছিলেন বাবা। আচমকা পিছন থেকে তার মাথাতে কোদাল দিয়ে কোপ দেয় ছেলে! ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় বাবার।

শনিবার সন্ধ্যায় চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে জলপাইগুড়ির (Jalpaiguri) মিনগ্লাস চা বাগানের (Tea Garden) এলাকায়। শনিবার সন্ধ্যা। ডুয়ার্সের মাল ব্লকের মিনগ্লাস চা-বাগানের বাসিন্দা গুরপা ওরাই বাড়ির বারান্দায় বসেছিলেন। অভিযোগ সে সময় আচমকা তাঁর মাথায় কোদাল দিয়ে মাথায় আঘাত করে ছেলে। বছর ৬৫-এর গুরপা ওরাইয়ের ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয়।

এদিকে বাবাকে মেরে বাড়ি থেকে পালায় ছেলে পুনাই। বছর ত্রিশের ওই যুবক কেন এই কাণ্ড ঘটাল তার আসল কারণ এখনও জানা যায়নি। এদিকে ঘরের ভিতর ই রক্তারক্তি কাণ্ড দেখে চিত্‍কার করে ওঠেন বাড়ির অন্যান্যরা। ছুটে আসেন প্রতিবেশীরা। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় মাল থানার পুলিশ। মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠিয়েছে তারা।

মৃতের মেয়ে ও জামাই মাইকেল কেরকেট্টা মাল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। সেখানে মূল অভিযুক্ত হিসাবে পুনাইকে দায়ী করা হয়েছে। মাইকেল কেরকেট্টা জানান, “বাড়ি মিনগ্লাস চা বাগানের ভাদুয়া লাইন শ্রমিক মহল্লায়। শনিবার সন্ধ্যায় শ্বশুর গুরপা ওরাই ঘরের বারান্দায় বসে ছিল। সেই সময় আমার শালা পুনাই (৩০) কোদালের হাতল দিয়ে মাথায় আঘাত করে শ্বশুরের।

আমি বাঁচতে ছুটে গেলে আমার উপরও মারমুখী হয়ে ওঠে। এর পর বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যায় সে। পুনাইয়ের মারে ঘটনাস্থলেই শ্বশুরের মৃত্যু হয়।” স্থানীয়রা জানাচ্ছে শনিবার বাবা ও ছেলের মধ্যে বাদানুবাদ হয়েছিল। তার পর সন্ধ্যায় এই ঘটনা ঘটে। মাল থানার পুলিশ সুত্রে জানা গিয়েছে, রবিবার মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। ঘাতক ছেলের খোঁজ চলছে এখন। এদিকে পুজোর মুখে এই ঘটনায় চাবাগানের শ্রমিক মহল্লায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে। 

[ আরও পড়ুন ]