জাপান | প্রশান্ত মহাসাগরের মজার দেশ Japan

জাপান  |  প্রশান্ত মহাসাগরের মজার দেশ Japan

জাপান পূর্ব এশিয়ায় প্রশান্ত মহাসাগরের তীরে অবস্থিত একটি দেশ। জাপানি ভাষায় জাপান শব্দটিকে নিহন বা নিপুন নামে ডাকা হয়। এক সময় মনে করা হতো সকালে পূর্ব দিকে সূর্য উঠাটাকে জাপান থেকেই সবচেয়ে আগে দেখা যায়। এর জন্য জাপানকে ল্যান্ড অফ দি রাইসিং সান – Land of the Rising Sun বলা হয়।  আনুমানিক খ্রিস্টপূর্ব ৩০,০০০ অব্দের একটি পুরনো প্রস্তরযুগীয় সংস্কৃতি জাপানি দ্বীপমালায় প্রথম মানব জনবসতি গড়ে তুলেছিল বলে জানা গিয়েছে। এরপর খ্রিস্টপূর্ব ১৪,০০০ অব্দ নাগাদ (জামোন যুগের শুরুতে) মধ্য প্রস্তরযুগ থেকে নব্য প্রস্তরযুগের মধ্যবর্তী সময়ে একটি সেমি-সেড্যানটারি শিকারী-সংগ্রাহক সংস্কৃতি গড়ে ওঠে।

এদের মধ্যে সমসাময়িক কালের আইনু জাতি ও ইয়ামাতো জাতির পূর্বপুরুষেরাও ছিলেন। এই মানুষেরা গুহায় বাস করত এবং এদের জীবিকা ছিল মৌলিক কৃষিকাজ। এই যুগে নির্মিত চিত্রিত মাটির পাত্রগুলি বিশ্বের প্রাচীনতম অধুনা-বর্তমান মৃৎশিল্পের কয়েকটি নিদর্শন। খ্রিস্টপূর্ব ৩০০ অব্দ নাগাদ ইয়ায়োই জাতি জাপানি দ্বীপপুঞ্জে প্রবেশ করে জোমনদের সঙ্গে মিশে যেতে শুরু করে। খ্রিস্টপূর্ব ৫০০ অব্দ নাগাদ শুরু হওয়া ইয়ায়োই যুগে ভিজে-চাল উৎপাদন,মৃৎশিল্পের একটি নতিন ধারার বিকাশ, এবং কোরিয়া ও চীনের অনুসরণে ধাতুবিদ্যার চর্চা শুরু হয়।

চীনা বুক অফ হান-এ প্রথম জাপানের লিখিত ইতিহাস পাওয়া যায়। তিন রাজ্যের নথি অনুযায়ী, খ্রিস্টীয় ৩য় শতাব্দীর জাপান দ্বীপমালার সবচেয়ে শক্তিশালী রাজ্যটির নাম ছিল ইয়ামাতাই-কোকু। কোরিয়ার বায়েকজে থেজে জাপানে প্রথম বৌদ্ধধর্মের আগমন ঘটেছিল। তবে জাপানি বৌদ্ধধর্মের পরবর্তীকালীন বিকাশ ঘটেছিল প্রধানত চীনা প্রভাবে।প্রথম দিকে জাপানে বৌদ্ধধর্ম বাধাপ্রাপ্ত হলেও, পরে এই ধর্ম জাপানের শাসকশ্রেণির পৃষ্ঠপোষকতা লাভ করে এবং অসুকা যুগে (৫৯২-৭১০ খ্রিষ্টাব্দ) সর্বত্র মান্যতা পায়।

৮ম শতাব্দীর নারা যুগে (৭১০-৭৮৪) জাপানে শক্তিশালী রাষ্ট্রের উদ্ভব ঘটে। এই সময় রাষ্ট্রশক্তির কেন্দ্র ছিল হেইজো-ক্যো-র রাজসভা (আধুনিক নারা)। নারা পর্যায়ে জাপানি সাহিত্যের বিকাশ ঘটতে শুরু করে। এই যুগেই বৌদ্ধধর্ম-অনুপ্রাণিত শিল্পকলা ও স্থাপত্যেরও বিকাশ ঘটতে শুরু করেছিল।৭৩৫-৭৩৭ খ্রিষ্টাব্দের বসন্তরোগ মহামারীতে সম্ভবত জাপানের এক-তৃতীয়াংশ অধিবাসীর মৃত্যু ঘটে। ৭৮৪ সালে সম্রাট কাম্মু নারা থেকে নাগাওকা-ক্যো-তে রাজধানী সরিয়ে আনেন। এরপর ৭৯৪ সালে হেইয়ান-ক্যো-তে (আধুনিক ক্যোটো) রাজধানী অপসারিত হয়।

২০০৮ সালে জাপানের জনসংখ্যা ছিল ১২ কোটি ৭৭ লক্ষ[১], ফলে জাপান বিশ্বের ১০ম জনবহুল দেশ। ১৯শ শতকের শেষ দিকে এবং ২০শ শতকের শুরুর দিকে জাপানে জনসংখ্যার দ্রুত বৃদ্ধি ঘটে। তবে সম্প্রতি জন্মহারের পতন এবং বিদেশ থেকে নীট অভিবাসন মোটামুটি শূন্যের কোঠায় হওয়াতে অতি সম্প্রতি, ২০০৫ সাল থেকে, জাপানের জনসংখ্যা হ্রাস পেতে শুরু করেছে। জাপানের জনগণ জাতিগতভাবে একই রকম, এখানে জনসংখ্যার ঘনত্ব অত্যন্ত বেশি এবং গড় আয়ু ৮১ বছরের কিছু বেশি, যা পৃথিবীর সর্বোচ্চগুলির একটি। ২০২৫ সাল নাগাদ ৬৫ থেকে ৮৫ বছর বয়সবিশিষ্ট নাগরিকের অংশ ৬% থেকে ১৫%-এ উন্নীত হবে বলে আশা করা হচ্ছে। জাপান মূলত একটি নগরভিত্তিক রাষ্ট্র।

মোট জনসংখ্যার মাত্র ৪% কৃষিকাজে নিয়োজিত। বহু কৃষক কৃষিকাজের পাশাপাশি পার্শ্ববর্তী শরহগুলিতে অতিরিক্ত কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করেন। শহুরে জনসংখ্যার প্রায় ৮ কোটি হনশু দ্বীপের প্রশান্ত মহাসাগরীয় উপকূলে এবং কিউশু দ্বীপের উত্তরাংশে বসবাস করে। সবচেয়ে জনবহুল শহরগুলির মধ্যে আছে টোকিও মহানগর এলাকা (জনসংখ্যা প্রায় ১ কোটি ৩০ লক্ষ), ইয়োকোহামা (৩৬ লক্ষ), ওসাকা (২৬ লক্ষ), নাগোয়্যা (২২ লক্ষ), সাপ্পোরো (১৮ লক্ষ), কিয়োতো (১৫ লক্ষ), কোবে (১৫ লক্ষ), কাওয়াসাকি (১৪ লক্ষ), ফুকুওকা (১৪ লক্ষ) এবং সাইতামা (১২ লক্ষ)। জাপানের ঘনবসতিপূর্ণ শহরগুলিতে সরু ঘিঞ্জি রাস্তা, জনাকীর্ণতা, বায়ু দূষণ এবং কিশোর অপরাধ প্রধান সমস্যা।

ওমোতেনাশি জাপানের সংস্কৃতির একটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। অতিথিদের আপ্যায়ন ও দেখভাল করাকে তারা বিশেষ সুযোগ বলে মনে করেন। দোকান, রেস্তোরা কিংবা রাস্তায় কোনো অচেনা ব্যক্তিকে সাহায্য করা সহ জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রেই তারা এর অনুশীলন করতে সচেষ্ট থাকেন। অন্যের কোনোরকম সমস্যা না করে, সহযোগিতার ভিত্তিতে সমাজে শান্তি বজায় রাখতে চান তারা। এজন্যই সামাজিক শিষ্টাচার ও নিয়ম-কানুন অনুশীলনের প্রতি তাদের গুরুত্ব অনেক বেশি। জাপানে যদি আপনার মানি-ব্যাগ হারিয়ে যায়, তবে এটি চুরি হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম।

অধিকাংশ ক্ষেত্রেই কেউ একজন তা পেয়ে কাছের পুলিশ বক্সে জমা দিয়ে যাবে। কারো ঠাণ্ডা-সর্দি হলে তারা সার্জিক্যাল-মাস্ক পরিধান করেন, যাতে অন্য কেউ সংক্রমিত না হয়। বাড়ির কাজ শুরুর আগে উপহার-মোড়কে প্রতিবেশিদের ওয়াশিং পাউডারের বাক্স উপহার দেওয়া হয়, যেসব ধুলো-বালি উড়ে বেড়াবে তা থেকে কাপড় পরিচ্ছন্ন রাখতে কিছুটা সাহায্যের নিদর্শন হিসেবে। দোকান ও রেস্তোরায় কর্মীরা আপনাকে নত হয়ে আন্তরিক অভিবাদন জানাবে।

খুচরো কয়েন দেওয়ার সময় তারা এক হাত আপনার হাতের নিচে রাখবে যাতে কয়েন পড়ে না যায়। দোকান থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় দোকান দার  দরজায় দাঁড়িয়ে আপনাকে বিদায় জানাতে দেখলে অবাক হবেন না যেন। এমনকি জাপানি প্রযুক্তিগুলোও ওমোতেনাশির অনুশীলন করে। আপনি সামনে গিয়ে দাঁড়াতেই ট্যাক্সির দরজা খুলে যাবে। লিফট ক্ষমা চাইবে আপনাকে অপেক্ষায় রাখার জন্যে। রাস্তায় নির্মাণ-কাজ চলার সংকেতে একজন কর্মীর বাউ করার চিত্র দুঃখ প্রকাশ করে সাময়িক অসুবিধার জন্যে। 

কোনো ব্যক্তি তার যতটা দূরে থাকে জাপানি সংস্কৃতিতে তার প্রতি তত বেশি আতিথেয়তা দেখানো হয়। এজন্য বিদেশিদের প্রতি তাদের ভদ্রতা একটু বেশিই। তবে তাদের এ সংস্কৃতি স্রেফ লোকজনের প্রতি ভদ্রতা দেখানোর মধ্যেই সীমাবদ্ধ নেই। তাদের শৈশব থেকে শেখানো হয়, “কেউ যদি তোমার জন্যে ভালো কিছু করে, তবে তুমি অন্য কারো জন্যে ভালো কিছু করো। আর কেউ যদি তোমার প্রতি খারাপ কিছু করে, তাহলে তুমি অন্য কারো প্রতি খারাপ কিছু করা থেকে বিরত থাকো।" তাদের এ শিষ্টাচারের উৎস খুঁজতে গেলে দুটি বিষয় সামনে আসে- জাপানি চা উৎসবের আচার অনুষ্ঠান ও মার্শাল আর্টস। ওমোতেনাশি’ শব্দটিও সরাসরি চা-উৎসব থেকে এসেছে। এ উৎসবে আয়োজকরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করেন অতিথিদের আনন্দ দেওয়ার। অনুষ্ঠানের সজ্জা থেকে শুরু করে, চায়ের পাত্র পর্যন্ত সবকিছু অতিথিদের কথা মাথায় রেখেই বাছাই করেন। বিনিময়ে কোনো কিছুর প্রত্যাশা করেন না। অতিথিরাও তাদের প্রচেষ্টার প্রতি সম্মান জানিয়ে আন্তরিক কৃতজ্ঞতা দেখান। এভাবেই তারা একটি পারস্পারিক শ্রদ্ধাবোধের পরিবেশ গড়ে তোলেন।

শিষ্টাচার, সহানুভূতি ইত্যাদি বিষয়গুলো সামুরাই যোদ্ধাদের আচরণ-বিধিতেও মূল বিষয় ছিল। তাদের বিধানে কেবল সম্মান, শৃঙ্খলা ও নৈতিকতার কথা বলা হয়নি, যুদ্ধ থেকে শুরু করা চা-পরিবেশন করা পর্যন্ত সকল কিছু সঠিকভাবে করার নীতি বাতলে দেওয়া হয়েছিল। নিজের অনুভূতির প্রতি নিয়ন্ত্রণ, আত্মিক প্রশান্তি এবং শত্রুর প্রতি শ্রদ্ধাবোধের নীতিও অনুশীলন করতে হতো তাদের। তাদের থেকে এ সংস্কৃতি গোটা সমাজেও ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে। বিদেশীদের কাছে তাদের এ শিষ্টাচার অবাক করা হলেও, তারা নিজেরা এ নিয়ে খুব একটা সন্তুষ্ট নন। টোকিওতে চালানো সাম্প্রতিক এক জরিপের ফলাফল থেকে বিষয়টি স্পষ্ট হয়।

যেখানে ৬৫ শতাংশ বিদেশী মনে করেন টোকিওবাসীর আচার-ব্যবহার বেশ সন্তোষজনক, সেখানে এ কথার সাথে একমত হওয়া টোকিওবাসীর সংখ্যা মাত্র ২৪ শতাংশ। একইরকম ৭৯ শতাংশ পর্যটক মনে করেন টোকিও একটি পরিচ্ছন্ন শহর, কিন্তু মাত্র ৪১ শতাংশ স্থানীয়দের কাছে শহরটিকে পরিচ্ছন্ন বলে মনে হয়। জাপানের রাজধানী টোকিও জাপানের জাতীয় ভাষা জাপানি জাপানের জনসংখ্যা ১২৬,৯১৯,৬৫৯ (২০১৫ আনুমানিক) জাপানের জাতীয় খেলা সুমো এবং জুডো সরকার এককেন্দ্রিক সংসদীয় সাংবিধানিক রাজতন্ত্র জাপান দেশে দ্বীপের সংখ্যা ৬৮৫২ টি জাপানের জলবায়ু নাতিশীতোষ্ণ প্রকৃতির জাপানের জাতীয় ফুল চেরি ফুল (শাকুরা) 

  জাপান গুরুত্ব দেয় শৈশবে জাপানে শিশুদের স্কুলে পড়ালেখার পাশাপাশি আদব-কায়দা শেখানোর বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে দেখা হয়ে থাকে। গুরুজনদের সম্মান করা, মানুষের সাহায্যে হাত বাড়িয়ে দেওয়া, সবাই মিলে কাজ করা ইত্যাদি শিক্ষা একদম ছেলেবেলায় জাপানিদের মনে গেঁথে দেওয়া হয়। স্কুলে ছাত্র-শিক্ষক নিজেরাই মিলেমিশে একসাথে ক্লাসরুম, ক্যাফেটেরিয়া ইত্যাদি পরিষ্কার করেন, কোন কাজকেই ছোট করে না দেখার অভ্যাস এখান থেকেই গড়ে ওঠে জাপানী শিশুদের। 

 পরিশ্রমী জাতি

বিশ্বজুড়ে অসম্ভব করিৎকর্মা পরিশ্রমী একটি জাতি হিসেবে জাপানীদের দারুণ সুনাম রয়েছে। দীর্ঘ কর্মজীবন শেষে অবসরের পরও তারা ঘরে বসে থাকতে পছন্দ করে না। ঘরের কাজে, বাচ্চাদের যত্নআত্তিতে, বিভিন্ন সামাজিক কার্যক্রমে ব্যস্ত সময় কেটে যায় তাদের। পরিশ্রমের সুফলটাও প্রত্যক্ষ। জাপানের মানুষের চেহারায় বয়সের ছাপ পড়ে কম, শরীর শক্তপোক্ত থাকে বহুবছর পর্যন্ত। সবচেয়ে দীর্ঘজীবী মানুষের তালিকায় জাপানের অবস্থান তৃতীয়। গড়ে প্রায় ৮৩ বছর বাঁচে জাপানীরা, পুরো জীবনটাই কাটে কাজের প্রতি বিপুল উদ্দীপনায়, পরিবার, সমাজ ও দেশের কল্যাণে।

 ডাস্টবিনহীন দেশ জাপান!

জাপানের রাস্তায় কোন ডাস্টবিন থাকে না! এমনকি দেশটির কোথাও অন্যান্য দেশের মত বর্জ্যের ভাগাড় পর্যন্ত নেই, কারণ জাপানীরা সবরকম বর্জ্য রিসাইকেল করে ফেলে! যেগুলো রিসাইকেল করা সম্ভব না সেগুলো খুব সুশৃংখল একটি পদ্ধতির মধ্য দিয়ে ধ্বংস করে ফেলা হয়। ধূমপায়ীরা ব্যাগে করে ছাইদানি নিয়ে ঘুরেন, জাপানের রাস্তায় যে সিগারেটের ছাই পর্যন্ত ফেলা নিষিদ্ধ!

 শিশুর জন্য নিরাপদ দেশ জাপান

শৈশবে নৈতিক শিক্ষাদানের অভ্যাসটির দারুণ সুফল পেয়েছে জাপান। বড় হয়ে আদর্শ নাগরিক হিসেবে গড়ে ওঠে জাপানি তরুণরা, মানবিক মূল্যবোধ তাদের অসাধারণ, শিক্ষার হার প্রায় শতভাগ, তাই অপরাধের প্রসারও অসম্ভব কম। জাপানের রাজধানী টোকিও পৃথিবীর সবচেয়ে নিরাপদ একটি শহর, ছয় বছরের একটি শিশুও এই শহরে কোন রকম বিপদ আপদের আশঙ্কা ছাড়াই ইচ্ছামতো সারা শহর ঘুরে বেড়াতে পারে নিরাপদে!

 প্রবল আত্মসম্মানবোধ জাপানিদের আত্মসম্মানবোধ টনটনে!

সম্মানের খাতিরে জীবন বিলিয়ে দেওয়ার ভুরিভুরি নজির রয়েছে দেশটিতে।  জাপানের বেশ কয়জন প্রধানমন্ত্রী অল্প কয়টি নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি পূরণ করতে ব্যর্থ হওয়ায় স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করেছেন, কথা দিয়ে সে কথা রক্ষার ব্যাপারে তারা এতটাই কঠোর। টাইটানিক জাহাজডুবি থেকে যে কয়জন জাপানি বেঁচে ফিরে আসতে পেরেছিলেন, দেশে ফিরে তাদের প্রবল জনরোষের সম্মুখীন হতে হয়। “সহযাত্রীদের বাঁচাতে যদি নাই পারলে, তবে তাদের সাথেই প্রাণ কেন দিলে না!” এই ছিলো জনতার আক্ষেপ!

 ওভারটাইম বিষয়টিই নেই যে দেশে!

নির্ধারিত সময়ের পরও কাজ করার জন্য “ওভারটাইম” নামে একটি শব্দ প্রচলিত দুনিয়াজুড়ে, শুধুমাত্র জাপানে এই শব্দটির কোন অর্থ নেই। জাপানিরা স্বভাবগতভাবেই অফিসের সময় শেষ হওয়ার পরও দীর্ঘ সময় পড়ে থাকে কাজ নিয়ে। ঊর্ধতন কর্মকর্তার আগে অফিস ত্যাগ করার কথা কল্পনাতেও ভাবতে পারে না তারা, যত জরুরী তাড়াই থাকুক না কেন ঘরে ফেরার। কাজের প্রতি ভালবাসা তাদের মজ্জাগত, ছোটবেলাতেই এই বিষয়টি তাদের খুব ভালভাবে শিখিয়ে দেওয়া হয়েছে। জাপানের মানুষ তাই গড়ে প্রতিদিন চার-পাঁচ ঘন্টা অতিরিক্ত কাজ করে অফিসে এবং এই অতিরিক্ত খাটুনির ব্যাপারটি নিয়ে তাদের কোন বিরক্তি বা আক্ষেপ নেই, খুব সাধারণভাবেই তারা বিষয়টি মেনে নেয়।

অতিরিক্ত কাজের চাপে মৃত্যু!

“ওভারটাইম” শব্দটি না থাকলেও জাপানি ভাষায় এরচেয়ে অনেক গুরুতর একটি শব্দ আছে- “কারোশী” যার অর্থ “অতিরিক্ত কাজের চাপে মৃত্যু!’’ ব্যাপারটি শুনতে আজব মনে হলেও জাপানের প্রেক্ষাপটে এটি খুব স্বাভাবিক একটি ঘটনা। সেখানে প্রতিবছর গড়ে ১০,০০০ মানুষ মারা যায় শুধুমাত্র অতিরিক্ত কাজের চাপে, ডায়াগনোসিসে তাদের মৃত্যুর কারণ হিসেবে লেখা হয়- “কারোশী”! এটি ঠেকাতে অবশ্য জাপানিদের অভিনব একটি পন্থা রয়েছে। পৃথিবীর আর যে কোন দেশে অফিসে ঘুমালে মানুষ বসের বকা খায়, এমনকি চাকরিও চলে যেতে পারে, কিন্তু একমাত্র জাপানে এই ব্যাপারটিকে উৎসাহিত করা হয়! কেননা সেখানে কাজ ফাঁকি দিয়ে ঘুমাবে এমন মানুষ বলতে গেলে নেই, বরং স্বেচ্ছায় ভয়াবহ খাটুনি করতে গিয়ে মারা পড়ার ঝুঁকি ঢের বেশি, তাই কাজের ফাঁকে একটু ঘুমিয়ে নেওয়ার ব্যাপারটি বলতে গেলে অলিখিত একটি প্রথা হয়ে দাঁড়িয়েছে সে দেশে! 

 ভুমিকম্পের দেশ!

আমাদের দেশে হঠাৎ একটি ভূমিকম্প হলে সবাই হতচকিত হয়ে পড়ি, মানুষ প্রাণ হাতে নিয়ে ছুটে ঘর থেকে নেমে আসে রাস্তায়। মজার ব্যাপার হচ্ছে জাপানে এই বিষয়টি নিয়ে মানুষের তেমন কোন ভ্রুক্ষেপ নেই! মানুষ অফিসে কাজ করছে, ছাত্ররা পরীক্ষা দিচ্ছে, রেঁস্তোরায় রান্নাবান্না হচ্ছে, এর মাঝেই ভূমিকম্প হচ্ছে- মানুষজন নির্বিকার। কারণটা হচ্ছে- জাপানে প্রতিবছর প্রায় ১৫,০০০ ভূমিকম্প হয়! ব্যাপারটি নিত্যদিনের জীবনের সাথে এমনভাবে জড়িয়ে গেছে যে এটি তাদের জন্য এখন গা সওয়া একটি ব্যাপার! তাদের বাড়িঘরগুলোও সেভাবেই ভূমিকম্প প্রতিরোধের উপযোগী করে তৈরী, তাই এত বিপুল পরিমাণ ভূমিকম্পেও ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ হয় তুলনামূলক অনেক কম।

 সময়ানুবর্তিতার দেশ!

জাপান পৃথিবীর একমাত্র দেশ যেখানে কাজে এক মিনিট দেরি করে আসাকেও বিরাট অপরাধ হিসেবে দেখা হয়! সবকিছু অসম্ভব নিখুঁতভাবে সময় মেনে চলে, এতটাই নিখুঁত যে পাবলিক ট্রেনগুলোর গড়ে ১৮ সেকেন্ডের বেশি দেরি করার কোন নজির নেই। এবং দেরিগুলোও হয় বিচিত্র সব কারণে, সবচেয়ে বড় কারণ ট্রেনের নিচে ঝাঁপিয়ে পড়ে আত্মহত্যা! প্রযুক্তির চরম উৎকর্ষের একটি অন্ধকার দিক আছে, পারিবারিক বন্ধনগুলো দুর্বল করে দিচ্ছে এই প্রযুক্তির আতিশয্য। একটা অসুস্থ আসক্তির বুদবুদের ভেতর আটকা পড়ে থাকে হাজার হাজার মানুষ, ব্যক্তিগত জীবনে অসম্ভব নিঃসঙ্গ এই মানুষগুলো বিচিত্র সব উপায়ে নিঃশেষ করে দেয় তাদের জীবন ঝাঁকে ঝাঁকে প্রতিদিন।

 দৃঢ় সামাজিক বন্ধনের দেশ

জাপানে সামাজিক বন্ধনগুলো খুব দৃঢ়। বিভিন্ন সমস্যায় সবাই মিলে একত্রে ঝাঁপিয়ে পড়ে সমাধানে। জাপানের প্রতিটি মোবাইল ফোনে একটি ইমার্জেন্সি এলার্ট স্বয়ংক্রিয়ভাবে যুক্ত করা থাকে। যে কোন দুর্যোগ বিপর্যয়ে এই এলার্মগুলো বেজে ওঠে সবার মোবাইলে (সাউন্ড অফ করা থাকলেও!) এবং মুহূর্তের মাঝে চলে যায় মেসেজ- এই দুর্যোগ মোকাবিলায় কী কী পদক্ষেপ নিতে হবে তাদের সেটি জানিয়ে। একবার একটি মজার ঘটনা ঘটেছে। সুনামি আর ভূমিকম্পের আঘাতে বিপর্যস্ত পুরো জাপান, আক্রান্ত জনপদের কাছে খাদ্য, চিকিৎসা, সেবা ইত্যাদি পৌঁছে দিতে হিমশিম খাচ্ছে সরকার, এমন সময় জনগণের সেবায় মাঠে নেমে এলো কুখ্যাত জাপানি মাফিয়া গোষ্ঠী- ইয়াকুজা! তাদের সংঘবদ্ধতা এবং পেশাদারিতা পুলিশের চেয়ে ঢের বেশি, দেখা গেল দুর্গম সব লোকালয়ে সরকারি সাহায্য পৌঁছানোর অনেক আগেই পৌঁছে গেছে তাদের ত্রাণ! এভাবেই দুর্যোগ আর বিপর্যয়ে গোটা জাতি যখন দুরবস্থায় পড়ে, ভাল খারাপের সীমানাটা তখন মুছে যায়, মুখ্য হয়ে উঠে একমাত্র পরিচয়- “আমরা সবাই জাপানি, আমার জাপানি ভাইয়ের জন্য আমি সবার আগে প্রাণ দেবো।” তাই তো যুগে যুগে পারমাণবিক বোমার আঘাত সহ নানা ভয়াবহ আক্রমণের ধাক্কা সইয়েও আজ জ্ঞানে-কল্যাণে-প্রযুক্তিতে সাফল্যের শীর্ষে ছোট্ট এই দেশটি, পৃথিবীবাসীর কাছে ভালবাসা এবং  শ্রদ্ধামিশৃত বিস্ময়ের  একটি নাম- জাপান!