অ্যামাজনের সিইও-র পদ থেকে ইস্তফা দেবেন জেফ বেজস

অ্যামাজনের সিইও-র পদ থেকে ইস্তফা দেবেন জেফ বেজস

 অ্যামাজনের প্রতিষ্ঠাতা ও এতদিনের প্রধান এক্সিকিউটিভ অফিসার জেফ বেজোস। বেজোস নিজেই এ কথা জানিয়ে বলেছেন এবার থেকে সেই দায়িত্ব সামলাবেন অ্যান্ডি জ্যাসি। তিনি এতদিন অ্য়ামাজনের ওয়েব সার্ভিসের প্রধান ছিলেন। ২০১৬ সাল থেকে তিনি এই দায়িত্ব সামলাচ্ছেন। এছাড়া প্রায় ২৪ বছর ধরে তিনি এই কোম্পানির সঙ্গে যুক্ত।  

করোনা অতিমারীর জেরে যেখানে অন্যান্য শিল্পপতিরা লোকসানের মুখ দেখেছেন সেখানে নিজের লাভ দ্বিগুণেরও বেশি বাড়িয়েছেন বেজস। লকডাউনের ফলে ওয়েব সিরিজের দর্শক সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় ৭.২ বিলিয়ন ডলার থেকে বেজসের লাভের পরিমাণ এক ধাক্কায় ১২৫.৬ বিলিয়ন ডলার হয়েছে। অ্যামাজনের কর্মীদের একটি চিঠি লিখে নিজের সরে যাওয়ার ইচ্ছের কথা জানিয়েছেন জেফ বেজস। তিনি বলেছেন, অ্যামাজনের বেশ কিছু কাজের সঙ্গে তিনি যুক্ত থাকবেন।

কিন্তু এরপর নিজের সংস্থা 'ডে ওয়ান ফান্ড' ও 'বেজস আর্থ ফান্ডের' জন্য বেশি সময় দেবেন। সেইসঙ্গে মহাকাশ ও সংবাদমাধ্যমের দিকেও তাঁর আগ্রহ আরও একটি ঝালিয়ে নিতে চান তিনি। ৫৭ বছরের জেফ বেজস ১৯৯৪ সালে নিজের গ্যারাজে অ্যামাজনের প্রতিষ্ঠা করেন। ধীরে ধীরে এত বছরে রিটেইলের দুনিয়ায় সবথেকে বড় নাম অ্যামাজন। সব ধরনের সামগ্রী ঘরে বসেই পাওয়া যায়। অবশ্য শুধু অ্যামাজন নয়, 'দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট' সংবাদপত্র ও 'ব্লু অরিজিন' স্পেস ফার্মও রয়েছে তাঁর।

সেই দু'দিকেই এবার বেশি নজর দিতে চান তিনি। ইতিমধ্যেই তিনি তাঁর দক্ষতা প্রমাণ করেছেন। অ্যামাজনের ক্লাউড ইভেন্ট জ্য়াসি ক্লাউড সার্ভিসের উন্নতির জন্য ৮টি পয়েন্ট দেখিয়েছেন। প্রায় ৩ ঘণ্টা চলেছিল তাঁর প্রেজেন্টেশন। তিনি যে ক্লাউড ইনফ্রা সার্ভিস নিয়ে গতটা গভীরে পড়াশোনা করেছেন, তা সেই উপস্থাপনায় প্রমাণিত হয়েছিল। এবার ওয়েব সার্ভিসে তিনি এটি কাজে লাগাতে চান। আরও দ্রুত ও ইতিবাচক সার্ভিসের জন্য তিনি এই পরিষেবা আনতে চান। মনে করা হচ্ছে জ্যাসি চালকের পদে বসার পর অ্যামাজন ক্লাউড ও ডেটা সার্ভিসে আরও উন্নতি করবে।