ডাস্ট অ্যালার্জি থেকে মুক্তির সহজ এই উপায় গুলি জানুন 

ডাস্ট অ্যালার্জি থেকে মুক্তির সহজ এই উপায় গুলি জানুন 

বেড়ে চলা দূষণ , ধুলো বালির কারণে ডাস্ট অ্যালার্জি বর্তমান দিনে খুব সাধারন সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। ডাস্ট অ্যালার্জির কারণে ত্বকে চুলকানি,  চোখ-নাক থেকে অনবরত জল পড়া,ত্বকের  লালচে ভাব, ব়্যাশ এবং শ্বাসকষ্টের মতো সমস্যাও দেখা দিতে পারে। তবে ঘরোয়া কিছু উপায়ে ডাস্ট অ্যালার্জি থেকে মুক্তি পেতে পারেন , জেনে নিন সেগুলি……  


অ্যালার্জি মূলত রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার ভারসাম্যহীনতার কারণে হয়ে থাকে। ডাস্ট অ্যালার্জি প্রতিরোধের ক্ষেত্রে প্রোবায়োটিক অত্যন্ত উপকারি। অন্ত্রের ব্যাকটেরিয়ার ভারসাম্যতা বজায় রাখতে এবং অ্যালার্জি থেকে মুক্তি পেতে পর্যাপ্ত পরিমাণ উপকারি ব্যাকটেরিয়া গ্রহণ করুন। অন্ত্রের ব্যাকটেরিয়া বাড়াতে দই খেতে পারেন, কারণ এতে প্রোবায়োটিক রয়েছে। 

মধু ডাস্ট অ্যালার্জির চিকিৎসার ক্ষেত্রেও অত্যন্ত সহায়ক।  গবেষণা অনুযায়ী, মধু পরিবেশে উপস্থিত অ্যালার্জেনের সাথে শরীরকে খাপ খাওয়াতে সহায়তা করে।  এক চা চামচ মধুর সেবন, হাঁচি বা কাশির থেকে তাৎক্ষণিক স্বস্তি দিতে সক্ষম। মধুতে অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্য বর্তমান , যা অ্যালার্জির কারণে হওয়া ব়্যাশ কমাতেও  প্রয়োগ করতে পারেন।

ডাস্ট অ্যালার্জি নিয়ন্ত্রনের ক্ষেত্রে অ্যালোভেরা অত্যন্ত কার্যকর। ৩ থেকে ৪ টেবিল চামচ অ্যালোভেরার রস, দিনে দু'বার পান করুন। অ্যালোভেরাতে ব্যথানাশক এবং অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্য বর্তমান, যা ডাস্ট অ্যালার্জির কারণে সৃষ্ট ব্যথা এবং ফোলাভাবের চিকিৎসার ক্ষেত্রে অত্যন্ত উপকারি।

ডাস্ট অ্যালার্জির চিকিৎসার ক্ষেত্রে ঘি অত্যন্ত কার্যকর। আধ চা চামচ ঘি নিন, তাতে পরিমাণ মতো গুড়ও যোগ করতে পারেন। অনিয়ন্ত্রিত হাঁচি কমাতে ঘি চেটে খেতে পারেন। ঘিতে অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্য বর্তমান, যা অনুনাসিক পথ পরিষ্কার করতে সাহায্য করে এবং ক্রমাগত হাঁচি থেকেও স্বস্তি দেয়।