তৃণমূল নেতা বিনয়ের মতোই দেশ ছাড়ার ফুল প্লান করে ফেলেছিল শুভদীপ

তৃণমূল নেতা বিনয়ের মতোই দেশ ছাড়ার  ফুল প্লান করে ফেলেছিল শুভদীপ

রবিবার রাতেভুয়ো CBI অফিসার শুভদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়কে গ্রেফতার করে পুলিস। তিনদিনের ট্রানজিট রিমান্ডে শুভদীপকে দিল্লি থেকে মঙ্গলবার সকালেই হাওড়ায় আনে জগাছা থানার পুলিস। আদালতে পেশের পর প্রতারককে হেফাজতে নিতে চাইবেন তদন্তকারীরা। তবে তার আগে প্রকাশ্যে এসেছে চাঞ্চল্যকর তথ্য। জেরায় জানা গিয়েছে, ভারত থেকে নেপালে পালিয়ে যাওয়ার ছক ছিল শুভদীপের। তবে তার আগেই তাঁকে গ্রেফতার করে ফেলে জগাছা থানার পুলিস।

এর আগে যুব তৃণমূল নেতা বিনয় মিশ্র এখন প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপরাষ্ট্র ভানুয়াতুতে চলে গেছে ।  কয়লা ও গরুপাচারে অভিযুক্ত যুব তৃণমূল নেতা বিনয় মিশ্রের বিরুদ্ধে কয়েক হাজার কোটি টাকা দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে। তদন্তকারীরা জানতে পেরেছেন, দিল্লি থেকে ট্রেনে রাস্কৌল এবং সেখান থেকে গাড়ি বা বাসে নেপালে পালানোর ছক কষেছিল শুভদীপ। ৯ জুলাই দিল্লির চাণক্যপুরীর ওই পাঁচতারা হোটেলে ওঠে প্রতারক।

 ওই হোটেল আগেও বেশ কয়েকজনের ভুয়ো ইন্টারভিউ নিয়েছিল সে। এমনকী লালনকেও ওই হোটেলেই ইন্টারভিউ নেয় সে। এবারও তেমনই ছক ছিল বলে অনুমান পুলিসের। তবে রবিবার সকাল থেকে তার কীর্তি ফাঁস হয়ে যাওয়ায় প্ল্যান বদলে ফেলে শুভদীপ। পরের দিন অর্থাত্‍ সোমবার সকালেই দিল্লি থেকে নেপালে চম্পট দেওয়ার পরিকল্পনা করে ফেলে। কিন্তু রবিবার রাতেই ওই পাঁচ তাঁরা হোটেলে অভিযান চালায় জগাছা থানার পুলিস।

পাকড়াও হয় অভিযুক্ত। সিবিআই-সহ বিভিন্ন কেন্দ্রীয় সরকারি দফতরের নথি, স্ট্যাম্প ব্যবহার করে চাকরির নামে প্রতারণার অভিযোগ রয়েছে ওই যুবকের বিরুদ্ধে। শুভদীপ দাবি করেছিলেন, বিহারের বাসিন্দা লালনের কথাতেই নাকি তিনি ভুয়ো কাজ করতেন। অথচ 'জি-২৪ ঘন্টা'কে লালন জানান, তাঁর কাছ থেকে টাকা নিয়ে সিবিআই কনস্টেবল পদে তাঁকে চাকরি পাইয়ে দেন। সেই সঙ্গে উঠে আসে চাকরির নামে প্রতারণা সংক্রান্ত বিস্ফোরক তথ্যও। সিবিআইতে চাকরির নামে বিভিন্ন চাকরি প্রার্থীর কাছ থেকে পুলিশ ভেরিফেকশন বাবদ নিত নেওয়া হত টাকা।