কর্পূর জ্বালিয়ে মা দুর্গার কাছে এই ভাবে অর্পণ করুন, দেখুন কী হয়

কর্পূর জ্বালিয়ে মা দুর্গার কাছে এই ভাবে অর্পণ করুন, দেখুন কী হয়

শুধু পুজো নয়, ঘরের মধ্যেও কর্পুর রাখার উপকারিতা অনেক। জেনে নিন কিছু টোটকা। কর্পূরের ব্যবহার শুধুই পুজোতে সীমাবদ্ধ নয়। হিন্দু ধর্ম মতে, যদি পুজোয় কর্পূর ব্যবহার না করা হয়, তা হলে পুজোই সম্পন্ন হয় না বলে মনে করা হয়। ঘর ও শরীরের নেতিবাচক শক্তি দূর করার জন্য কর্পূর অত্যন্ত প্রয়োজনীয় বলে মনে করা হয়। এখন জেনে নিন কী কী উপায়ে কর্পূরকে কাজে লাগাতে পারেন আপনি:

১। বাস্তুশাস্ত্র মতে, অনেক চেষ্টাতেও হয়ত কাজ হচ্ছে না। ভাল সময় আসছে না। টাকা পয়সা জমছে না। এই অবস্থায় রূপোর বাক্সে নিয়মিত কর্পূর ও লবঙ্গ জ্বালান। এর ফলে নানা বাধা দূর হবে। যে কাজ আটকে রয়েছে তা-ও ভাল ভাবে হয়ে যেতে পারে।

২। ঘরে, ব্যবসায় বা কাজের জায়গায় কোনও বাস্তুদোষ থাকলে তাতে ক্ষতির মুখও দেখতে হয় অনেককে। সেই নেতিবাচক শক্তি দূর করতে কর্পূরের গুলি রাখতে পারেন একটি পাত্রে। এর ফলে যে শুধু নেতিবাচক শক্তিই চলে যাবে তা নয়, ধনলাভের সুযোগও বাড়তে পারে।

৩। কর্পূর পরিবেশও শুদ্ধ করে। বাড়িতে পুজো পাঠ চলার সময় কর্পূর অবশ্যই জ্বালান। এর গন্ধেই পরিবেশ পাল্টে যায়।

৪। শীতের দিনে কাপড়ের ভাঁজে বা আলমারির মধ্যে কর্পূর রেখে দিলে পোকামাকড় হয় না। জামাকাপড় ঠিক থাকে।

৫। কর্পূরের গন্ধে মন ও মস্তিষ্ক সতেজ থাকে।

৬। গাঁটের ব্যথাতেও কর্পূর লাভদায়ক।

৭। যদি অনিদ্রার সমস্যা থাকে, তা হলে কর্পূর তেল মাথায় মাখুন। এতে মাথা ঠান্ডা থাকে ও ঘুম আসে। কর্পূরের তেল কয়েক ফোঁটা বালিশে ফেলে ঘুমোতে যেতে পারেন।

৮। সর্দিতে নাক বন্ধ থাকলে, শ্বাসকষ্ট হলে, হাঁচি হলে কর্পূরের সাহায্যে সমাধান করা যেতে পারে। গরম জলে কর্পূর ঢেলে তার ভাপ নিলে আরাম পাবেন।

৯। কালো ও মজবুত চুলের জন্যও কর্পূর খুব উপকারী। মাথার তেলে কর্পূর মিশিয়ে মাখলে রক্তপ্রবাহ বাড়ে ও চুল মজবুত হয়।

১০। দাদ, হাজা বা চুলকানি থেকে রেহাই পেতেও কর্পূর ওষুধের কাজ করতে পারে। কর্পূরের গুলি ত্বকে লাগালে কমতে পারে বিভিন্ন চর্মরোগ।

১১। জ্যোতিষশাস্ত্র অনুসারে, যদি খরচ বেশি হয় অথচ আয় যথেষ্ট না হয়, তা হলে গোলাপ ফুলে কর্পূরের টুকরো রাখতে পারেন ও কর্পূর জ্বালিয়ে মা দুর্গার কাছে অর্পণ করতে পারেন। লাভ মিলতে পারে কম আয় অথচ বেশি খরচের সমস্যা থেকে।

১২। যদি বাজে খরচ বেড়ে যায়, তা হলে সূর্যাস্তের সময় কর্পূরের প্রদীপ জ্বালান ও সেটি ঘরে ঘোরান। সমস্যার সমাধান হতে পারে। রাহু-কেতুর সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে রোজ ঘরে কর্পূর জ্বালাতে পারেন।

১৩। ভাগ্য ফেরাতে স্নানের সময় কর্পূরের তেল কয়েক ফোঁটা জলে ফেলে স্নান করা যেতে পারে। এর ফলে শরীর থেকে নেতিবাচক শক্তি দূর হয়।