মারব এখানে লাশ পরবে শ্মশানে''...মহাগুরুর ডায়লগ পৌঁছল এবার হাইকোর্টে

মারব এখানে লাশ পরবে শ্মশানে''...মহাগুরুর ডায়লগ পৌঁছল এবার  হাইকোর্টে

''মারব এখানে লাশ পরবে শ্মশানে''...মহাগুরুর ডায়লগ পৌঁছল এবার কলকাতা হাইকোর্টে। সোমবার জনপ্রিয় বাংলা ছায়াছবির ডায়লগের আসল ব্যখা কী, তা জানিয়েই মামলা ঠুকলেন মহাগুরু মিঠুন চক্রবর্তী। একইসঙ্গে রক্ষাকবচ চেয়ে রাখলেন আবেদনও। ডায়লগ বলে যে এভাবে হয়রান হতে হবে তা হয়তো কোনওদিন ভাবেননি ডিস্কো ডান্সার। চলতি মার্চে বিজেপির ব্রিগেড সমাবেশ মঞ্চে পদ্ম শিবিরে যোগ দেন মহাগুরু।

তারপর থেকে বিজেপির হয়ে বিভিন্ন প্রচারে তাঁকে দেখা যায়। বাঙালি বাবুকে নিয়ে জনতার আবেগ ছিল বাঁধন ছাড়া। সেই সময় জনতার আবদার মেটাতে তাঁকে পরোক্ষে বলতে দেখা যায় জনপ্রিয় ডায়লগ। ''মারব এখানে লাশ পরবে শ্মশানে ''- এমন নিজের মুখে সভামঞ্চে সরাসরি বলেননি তিনি। এমনটাই দাবি তাঁর। বিধানসভা নির্বাচন পর্বে ২৫ মার্চ থেকে ২৬ এপ্রিল পর্যন্ত বিজেপি প্রার্থীদের হয়ে প্রচার করেন মহাগুরু।

সেই সময় মিঠুন চক্রবর্তী বিভিন্ন সভামঞ্চে ঘুরিফিরে এসেছে ডায়লগটি। ভোটপর্ব মিটতেই ৬ মে মানিকতলা থানায় এফআইআর করেন একজন। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে ভারতীয় দন্ডবিধির ১৫৩এ, ৫০৪,৫০৫ একাধিক ধারায় এফআইএর রুজু হয়। হিংসা ছড়ানো, শান্তি নষ্টের চেষ্টার মতন অভিযোগ করা হয়। এই এফআইআর খারিজ চেয়ে সোমবার কলকাতা হাইকোর্টে মামলা দায়ের করেছেন মিঠুন চক্রবর্তী।

মিঠুনের আইনজীবী বিকাশ সিং ও পার্থ ঘোষ জানান, "এর আগেও একাধিক অনুষ্ঠানে এই ডায়লগ বলেছেন মিঠুন বাবু। ২০১৪ সালে কলকাতা চলচ্চিত্র উত্‍সবে শাহরুখ খান সহ একাধিক তারকার উপস্থিতিতে এমন ডায়লগ বলেন তিনি। পাবলিক ফিগার তিনি, জনতার আবদার মেটাতে এমন জনপ্রিয় ডায়লগ মাঝেমধ্যে বলতে হয়। তবে এর উদ্দেশ্য কাউকে খাটো করা বা হিংসা ছড়ানো নয়। হাইকোর্টে এই বিষয়টি তুলে ধরার চেষ্টা করবো।" ডায়লগটি নিয়ে রাজনৈতিক দড়ি টানাটানি ছিলোই। তবে মানিকতলা থানায় এফআইআর পর তা অন্যমাত্রা পায়। হাইকোর্টে আইনি লড়াই এখন নায়ক ও তাঁর বলা ডায়লগকে ঘিরে। চলতি সপ্তাহের শুক্রবার মহাগুরুর আবেদনের শুনানির সম্ভাবনা।